জয়নাল আবেদীন: রংপুর সহ বিভাগের আট জেলা অসহনীয় লোডশেডিংয়ের কবলে পড়েছে । আর এই লোডশেডিং কখনও কখনও তিন থেকে চার ঘণ্টা পর্যন্ত স্থায়ী হচ্ছে। অব্যাহত লোডশেডিংয়ের ফলে রংপুর বিভাগে ছোট বড় মিলে প্রায় ৮শ কারখানায় উৎপাদন বন্ধ হয়ে গেছে। এছাড়া ঈদকে সামনে রেখে বেচাকেনার ভরা মৌসুমেও শপিং মল ও বিভিন্ন দোকানে ক্রেতার দেখা নেই।

এদিকে পচন্ড গরমে জনজীবন অচল হয়ে পড়েছে।

রংপুরে সর্বোচ্চ ৩৫ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস।অন্যদিকে গরমের কারণে হিট স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে ২৫ জন বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক জানান, প্রচন্ড গরমে হিট স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে সোমবার দুপুর পর্যন্ত ২৫ জন হাসপাতালে ভর্তি হলেও তবে কোন মৃত্যু সংবাদ নেই ।বিদ্যুৎ বিভাগ বলছে, জাতীয় গ্রিড থেকে চাহিদার তুলনায় অনেক কম বিদ্যুৎ পাওয়ায় ঘন ঘন লোডশেডিং দিতে হচ্ছে। তবে অবস্থা স্বাভাবিক হতে কত সময় লাগবে তা জানাতে পারেননি কোনও কর্মকর্তা।

রংপুর বিদ্যুৎ বিভাগের নর্দান ইলেক্ট্রিসিটি সাপ্লাই কোম্পানির (নেসকো) নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক প্রকৌশলী বলেছেন রংপুর বিভাগে পিক আওয়ারে বিকাল ৫টা থেকে সকাল ৭টা পযন্ত নেসকো ও পল্লী বিদ্যুৎ মিলিয়ে যা চাহিদা রয়েছে । সেখানে পাওয়া যাচ্ছে খুবই কম। ফলে বাধ্য হয়ে রেশনিংয়ের মাধ্যমে বিদ্যুৎ সরবরাহ করতে হচ্ছে।

পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির একজন পদস্থ কর্মকর্তা বলেন, রংপুর জেলাসহ পুরো বিভাগে তিন/চার দিন ধরে চার থেকে পাঁচ ঘণ্টার বেশি বিদ্যুৎ সরবরাহ সম্ভব হচ্ছে না।এদিকে রংপুর নগরীতে আরও ভয়াবহ অবস্থা। বিদ্যুতের অভাবে শপিং মলসহ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, কলকারখানা বন্ধ হয়েছে। প্রচন্ড গরমে মানুষ প্রয়োজন ছাড়া বাসা থেকে বের হচ্ছে না।

নগরীর প্রেস ক্লাব মার্কেটের ব্যবসায়ী আজাদ জানান, বিদ্যুৎ যায় কিন্তু কখন আসবে তা কেউ বলতে পারে না। একদিকে প্রচন্ড গরম, অন্যদিকে লোডশেডিংয়ের কারণে জনজীবন বিপর্যস্ত।একই কথা জানান জেলা পরিষদ সুপার মার্কেটের ব্যবসায়ী নেতা রইচ আহমেদ । তিনি বলেন, ‘লোডশেডিং আর প্রচন্ড গরমে মার্কেটে বেচাকেনা নেই। কয়েক দিন পর ঈদ। এখন বেচাকেনার ধুম পড়ার কথা, কিন্তু ক্রেতা নেই।’

এদিকে লোডশেডিংয়ের কারণে লেখাপড়া বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন অনেক অভিভাবক ও শিক্ষার্থী।লোডশেডিং এ পড়তে না পাড়া রংপুর কালেক্টরেট স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষার্থী তানভীর আলমাছ জানায় ভাগ্যিস স্কুল এখন বন্ধ নইলে পড়া দিতে না পাড়ায় স্যারদের বকা খেতে হতো ।

গৃহবধূ খালেদা বেগম বলেন, ‘সরকার বলছে বিদ্যুতের সংকট নেই, তাহলে কেন এত লোডশেডিং?’সার্বিক বিষয়ে জানতে নেসকোর প্রধান প্রকৌশলী শাহাদত হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘রংপুর বিভাগে নেসকো আর পল্লী বিদ্যুতের চাহিদা অনুযায়ী বিদ্যুৎ সরবরাহ পাওয়া যাচ্ছে না। ফলে লোডশেডিং দিতে হচ্ছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘দিনের বেলায় রংপুর বিভাগে বিদ্যুতের চাহিদা ৬শ মেগাওয়াট। সরবরাহ পাওয়া যাচ্ছে সর্বোচ্চ ৪শ মেগাওয়াট। সন্ধ্যার পর থেকে চাহিদা ৭শ মেগাওয়াট। পাওয়া যাচ্ছে সর্বোচ্চ ৫শ মেগাওয়াট।’নেসকোর ওই প্রকৌশলী আরো বলেন এ সমস্যা সাময়িক আশা করি দুই থেকে তিন দিনের মধ্যে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে যাবে।’

Previous articleচাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে গলায় ফাঁস দিয়ে যুবকের আত্মহত্যা
Next articleআওয়ামী লীগ সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করার ষড়যন্ত্র করছে একটি মহল: প্রধানমন্ত্রী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।