অতুল পাল: সম্প্রতি বাউফলের কেশবপুর, সূর্য্যমণি, ধুলিয়া ও চন্দ্রদ্বীপসহ বিভিন্ন ইউনিয়নে সামাজিক অপরাধসহ গরু-মহিষ এবং ঘরবাড়িতে চুরি ও ডাকাতির ঘটনায় সাধারন মানুষ আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে। সম্পদ রক্ষায় রাত জেগে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, ঘরবাড়ি ও গোয়ালঘর পাহারা দিচ্ছেন সাধারন মানুষ ও ব্যাবসায়ীরা।

বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে দেখছেন বলে বাউফল থানা পুলিশ সাংবাদিকদের জানিয়েছেন। সরেজমিন এবং একাধিক সূত্র থেকে প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে, বিগত তিন মাসে কেবলমাত্র কেশবপুর ইউনিয়নেই শতাধিক গরু, মহিষ ও ছাগল চুরি হয়েছে। যার বাজার মূল্য প্রায় ৪০ লাখ টাকা। ১৫টি দোকানে চুরি সংঘটিত হয়ে ৫০ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি হয়েছে। মাছ ধরা ট্রলারের মেশিনসহ অর্ধশতাধিক ঘরে চুরি, ৪-৫টি বাড়িতে ডাকাতি সংঘটিত হয়ে লাখ লাখ টাকার ক্ষতিসাধন করা হয়েছে। এছাড়াও একাধিক ঘরে অগ্নিকান্ড, মাছের ঘের ও খালে বিষ প্রয়োগ করে পাঁচ শতাধিক মুরগি নিধন এবং একাধিক নারী ও শিশু নির্যাতনের ঘটনাও ঘটেছে। চুরির হাত থেকে রেহাই পায়নি ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রও। এক কথায় কেশবপুর ইউনিয়নে আইন-শৃংখলা পরিস্থিতি সম্পূর্ণ ভেঙ্গে পড়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কেশবপুর ইউনিয়নের একাধিক ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সদস্যরা জানান, কিছু ঘটনা রাজনৈতিক প্রতিহিংসা ও ছত্রছায়ায় ঘটেছে। আবার কিছু ঘটনা সমাজবিরোধিদের ছত্রছায়ায় হয়েছে। আওয়ামী লীগ বিরোধী একটি চক্র সমাজে অস্থিরতা সৃষ্টির পায়তারা করছে বলেও কেউ কেউ মন্তব্য করেন। তবে সাধারন মানুষ চুরি-ডাকাতিসহ নানা ধরণের সামাজিক অপরাধের কারণে অশান্তিতে রয়েছেন বলে ষ্পষ্টই জানিয়েছেন। একটি সূত্র জানায়, প্রভাবশালীরা বাহিরের কিছু অপরাধিদের ভাড়া করে এনে তেঁতুলিয়া নদী সংলগ্ন কেশবপুর, ধুলিয়া, নাজিরপুর, চন্দ্রদ্বীপ ইউনিয়নে চুরি-ডাকাতি করাচ্ছে। এরফলে ওই সব ইউনিয়নের মানুষ আতঙ্কিত হয়ে রাত্রিযাপন করছেন। এধরণের ঘটনার কারণে মমিনপুর, কালামিয়ার বাজার, সিকদারের বাজারসহ ছোট ছোট হাটবাজারগুলো রাত জেগে ব্যাবসায়ীরা পাহারা দিচ্ছেন।

মমিনপুর বাজারের ব্যাবসায়ী আসাদুজ্জামন জানান, বাজারের ব্যাবসায়ীরা পালা করে রাত জেগে পাহারা দিচ্ছি। এরপরেও সুযোগ পেলেই চুরি হচ্ছে। ইউনিয়নের একাধিক বয়োজ্যেষ্ঠরা জানান, সামাজিক অবক্ষয় এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, এখানে একাধিক সন্তানের বিধবা মাতাও ধর্ষিত হয়েছে। মাদকের কারণে সমাজ নষ্ট হয়ে গেছে। এরকম পরিস্থিতি ইতিপূর্বে আমরা দেখিনি।

কেশবপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ সালেহ আহমেদ পিকু জানান, নির্বাচনের পূর্বে আমার দুই ভাইকে হত্যা করা হয়েছে। সেই হত্যাকান্ডের সাথে জড়িতরা জামিনে এসে নানা ধরণের অপরাধ করে বেড়াচ্ছে। তবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে। ওই ইউনিয়নের এক প্রবাসী জানান, কেশবপুর এখন মাদকের আখড়া হয়েছে। মাদকখোরদের হাতে লাঞ্চিত হওয়ার ভয়ে মুরুব্বিরা ঘরের বাহির হচ্ছেন না। নারীরা ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে বসবাস করছেন। চুরি ডাকাতির ভয়ে সাধারন মানুষ ঘুমাতে পারে না। অপরদিকে সূর্য্যমণি, ধুলিয়া ও চন্দ্রদ্বীপসহ আরো বেশ কয়েকটি ইউনিয়নে চুরি ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। চুরি-ডাকাতিসহ সামাজিক অপরাধ নিয়ে স্থানীয় রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দও বিব্রতকর অবস্থায় রয়েছেন। ঘটনাগুলো ক্ষমতাসিন দলের জন্য হিতকর নয় বলেই তারা মনে করছেন। শীঘ্রই এবিষয়গুলো উর্ধতন মহলে আলোচনা হতে পারে বলেও কেউ কেউ জানান।

এব্যপারে বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আল মামুন সাংবাদিকদের বলেন, দূর্গম এলাকায় কয়েকটি গরু চুরির ঘটনা ঘটেছে। বিষয়টি গুরুত্বসহকারে দেখা হচ্ছে। ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে আমার রাত্রিকালীন পুলিশি টহল জোরদার করেছি। আশা করছি এধরনের সমস্যা আর হবে না।

Previous articleকক্সবাজার সৈকতের গুপ্তখালে ১০ ঘণ্টায় ৩ শিশুর মৃত্যু
Next articleসোনারগাঁওয়ের মোগরাপাড়া ইউপি নির্বাচনে নৌকার ভরাডুবি, দায় এড়াতে অপপ্রচার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।