বাংলাদেশ প্রতিবেদক: কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের গুপ্তখালে পড়ে ১০ ঘণ্টায় তিনজন শিশুর (স্কুলছাত্র) করুণ মৃত্যু হয়েছে। সোমবার বিকেলে এ ঘটনা ঘটে। মঙ্গলবার ভোররাতের মধ্যে তিনজনেরই লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

এর মধ্যে কক্সবাজার শহরের বায়তুশ শরফ জব্বারিয়া একাডেমির সপ্তম শ্রেণির ছাত্র তানভীর উল হক তামীমের লাশ উদ্ধার করা হয় সোমবার বিকেল ৫টার দিকে এবং অন্য দুইজনের লাশ মঙ্গলবার (৫ জুলাই) ভোরররাতে সৈকতের ডায়াবেটিক পয়েন্ট ও নাজিরারটেক পয়েন্ট থেকে।

সৈকতে জেলা প্রশাসনের নিয়োগকৃত বীচকর্মীদের সুপারভাইজার মাহবুব আলম বলেন, সোমবার রাতে সাগরের দুটি পয়েন্টে মৃতদেহ ভাসতে দেখে লাইফগার্ডের সদস্যরা মৃতদেহগুলো উদ্ধার করে ও পরে স্বজনদের কাছে দেয়া হয়।

মৃতরা হলো- কক্সবাজার পৌরসভার কুতুবদিয়াপাড়ার বাসিন্দা মুফিজ আলমের ছেলে মো: জায়েদ (৫) ও মোহাম্মদ আলীর ছেলে রিয়াদ (৬)।

কক্সবাজার পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর এস আই এম আকতার কামাল বলেন, ‘সোমবার বিকেলে যখন জোয়ার আসে তখন সমুদ্রের পাড়ে বাড়ি হওয়ায় এ দুই শিশু জোয়ারের পানি দেখতে যায় এবং গুপ্তখালে পড়ে তারা নিঁখোজ হয়। অবশেষে রাতে দুই জনের লাশ উদ্ধার করা হয়।

তিনি বলেন, একটি লাশ পাওয়ার পর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। কিন্তু চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। স্বজনরা লাশ বাড়িতে নিয়ে আসে। ঘণ্টা ব্যবধানে আরেকটি লাশ পাওয়া যায়। সেই লাশটি দাফনের জন্য বাড়িতে নিয়ে আসা হয় তামীমের বাড়ি কক্সবাজার শহরের লারপাড়ায়।

সৈকতের উদ্ধারকর্মীরা জানান, প্রতি বর্ষা মৌসুমে সৈকতে একাধিক গুপ্ত খাল তৈরি হয়। সাধারণভাবে এই খাল বুঝা যায় না। কেবলমাত্র জীবন দিয়েই এই খালের অস্তিত্ব ধরা পড়ে।

Previous articleবয়স মাত্র ২২, পেশায় ইউটিউবার, তার গুলিতে নিহত ৬
Next articleবাউফলে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি, লাখ লাখ টাকার গরু-মহিষ চুরি!
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।