বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে ৮ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। এতে করে ভোগান্তিতে পড়েছেন ঈদে ঘরমুখো যাত্রীরা। তবে বেশি দুর্ভোগ পোহাচ্ছে শিশু ও বৃদ্ধরা। অনেক কর্মজীবী মানুষকে পায়ে হেঁটে গন্তব্যস্থলে যেতে দেখা গেছে।

বুধবার দুপুরে মহাসড়কের কাঁচপুর থেকে সোনারগাঁওয়ে মোগরাপাড়া পর্যন্ত এ তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। এছাড়া মোগরাপাড়া থেকে মেঘনাঘাট পর্যন্ত গাড়িগুলো ধীরগতিতে চলতে বাধ্য হচ্ছে।

জানা গেছে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যাওয়ায় দুর্ভোগ এড়াতে মানুষ গ্রামের দিকে ছুটছেন। এজন্য বুধবার দুপুর থেকেই যাত্রীদের ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে পরিবহন মালিকদের বিরুদ্ধে। তীব্র গরমে দীর্ঘ সময় যানজটে আটকে থাকায় ঘরমুখী যাত্রীরা চরম দুর্ভোগের মধ্যে পড়েছেন।

মাসুদ কবীর রিংকু নামে যাত্রী জানান, ভেবেছিলাম আগামীকাল থেকে যাত্রীর চাপ বেশি হতে পারে, সেজন্য দুর্ভোগ এড়াতে পরিবারকে গ্রামে পাঠিয়ে দিচ্ছি। কিন্তু এসে দেখি মহাসড়কে তীব্র যানজট।

সজিব আহমেদ নামে এক বাসযাত্রী জানান, বুধবার দুপুর ১২টায় চিটাগাং রোড থেকে গাড়িতে উঠেছি। কাঁচপুরে এসে যানজটের কবলে পড়েছি। যেখানে কাঁচপুর থেকে মদনপুর যেতে সর্বাচ্চ ১০ থেকে ১৫ মিনিট লাগে, সেখানে এখনো মদনপুর সিগন্যালে বসে আছি।

আসাদ নামের এক বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের চাকুরিজীবী জানান, মেঘনা ঘাট থেকে চিটাগাং রোডে আসতে প্রায় দুই ঘণ্টা সময় লেগেছে। যানজটের কারণে রাস্তায় বের হতে মন চায় না।

কাঁচপুর হাইওয়ে থানার ওসি মোহাম্মদ নবীর হাসেন জানান, যাত্রীদের চাপ বেশি থাকায় এ যানজট সৃষ্টি হয়েছে। যানজট নিরসনে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। আশা করি খুব শীগগিরই যানজট নিরসন হয়ে যাবে।

Previous articleপাঁচবিবিতে পাটের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা
Next articleআমিন-ফাতেমা দম্পতির কাছে ৩ কোটি টাকা পেতেন ব্যবসায়ী আনিস: র‌্যাব
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।