শফিকুল ইসলাম: জয়পুরহাট সদর উপজেলার দোগাছি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সামছুল আলম ওরফে সুমন গ্রামপুলিশ পাঠিয়ে লেবু হোসেন (৪৫) নামে এক ভ্যানচালককে বাড়ি থেকে ধরে এনে তাঁকে তিন ঘন্টা ইউপি কার্যালয়ের একটি কক্ষে তালা দিয়ে আটকে রেখেছিলেন।

দুপুরে ইউপি চেয়ারম্যান সামছুল আলম সুমন তাঁর কক্ষে ভ্যানচালককে এনে গালে এনে চড়-থাপ্পড় মেরেছেন। তখন ভ্যানচালকের ভাতিজা আবু মুসা চেয়ারম্যানের কক্ষের সামনে থেকে তার চাচাকে মারধর করার এ দৃশ্য মুঠোফোনে ধারণ করছিলেন। ইউপি চেয়ারম্যান তাঁর কাছ থেকে মুঠোফোন কেড়ে নিয়ে ভিডিও ডিলেট করে তাঁকে জুতা পেটা করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

সোমবার দুপুরে দোগাছি ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়র এ ঘটনা ঘটেছে। তবে ইউপি চেয়ারম্যান আটকে রাখার কথা স্বীকার করলেও মারধরের কথা অস্বীকার করেছেন।

লেবু হোসেনের বাড়ি দোগাছি ইউনিয়নের চক ভারুনিয়া গ্রামে। তিনি পেশায় একজন ভ্যানচালক।

লেবু মিয়ার বলেন, সম্পত্তি নিয়ে দ্বন্দ্ব চলছিল। কয়েক দিন আগে চেয়ারম্যান এসে সালিস করে উভয় পক্ষকে ওই জায়গায় স্থাপনা করতে বারণ করেছিলেন। বিরোধপূর্ণ জায়গায় বাঁশ দিয়ে ঘেরাও করে রাখে। আজ সোমবার সকালে আমার স্ত্রীসহ অন্যরা ওই জায়গায় গিয়ে পুঁতে রাখা বাঁশ সরিয়ে ফেলতে বলেন। এনিয়ে মহিলাদের মধ্য ঝগড়া হয়। সেই সময় আমি ভ্যান নিয়ে জয়পুরহাট শহরে গিয়েছিলাম। সকাল নয়টার পর ভ্যান নিয়ে বাড়িতে ফিরে আসি। তখন গ্রামপুলিশ আমার বাড়িতে এসে আমাকে ইউপি চেয়ারম্যানেরর কথা বলে দোগাছি ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে ডেকে নিয়ে যায়। ইউপি চেয়ারম্যানের মুঠোফোনে নির্দেশনা পেয়ে গ্রামপুলিশ আমাকে ইউপি কার্যালয়ের একটি কক্ষে তালা দিয়ে আটকে রাখেন। আটকে রাখার কথা জানতে পেরে আমার পরিবারের লোকজনেরা ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে চলে আসেন। দুপুর একটার পর তালা খুলে আমাকে চেয়ারম্যানের কক্ষে নিয়ে যাওয়া হয়।

লেবু হোসেন বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান সামছুল আলম সুমন তাঁর কক্ষে লোকজনের সামনে আমার গালে চড়-থাপ্পড় মারেন। তখন এ দৃশ্য আমার ভাতিজা আবু মুসা মুঠোফোনে ভিডিও করছিল। চেয়ারম্যান উঠে এসে আমার ভাতিজা মুঠোফোন কেড়ে নিয়ে ধারণ করা ভিডিও মুছে ফেলে তাকে জুতা পেটা করেন। এরপর আমাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। আমি এঘটনার বিচার দাবি করছি।

জানতে চাইলে দোগাছি ইউপি চেয়ারম্যান সামছুল আলম সুমন সাংবাদিকদের বলেন, লেবু হোসেন আমাকে অকথ্য ভাষায় গালিগলাজ করেছে। একারণে গ্রামপুলিশ পাঠিয়ে লেবু হোসেন ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে আনা হয়েছিল। আমি ইউপি কার্যালয়ের বাহিরে ছিলাম। একারণে লেবু হোসেনকে ইউপি কার্যালয়ের একটি কক্ষে আটকে রেখেছিল। আমি আসার পর তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। লেবু হোসেনকে একটু শাসন করা হয়েছে। তাঁর ভাতিজা এসে ভিডিও ধারণ করছিল। একারণে লোকজন তাঁকে সামন্য মারধর করেছে। আমি কাউকে মারধর করিনি। উল্টো লেবুর স্ত্রী আমাকে মারপিট করতে উদ্যত হয়েছিলেন।

জয়পুরহাট সদর থানার পরির্দশক (তদন্ত) গোলাম সারোয়ার সাংবাদিকদের বলেন, এক ভ্যানচালককে বাড়ি থেকে ডেকে এনে দোগাছি ইউপি কার্যালয়ের একটি কক্ষ তালা দিয়ে আটকে রাখা হয়েছিল। জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ থেকে কল করে বিষয়টি জানানো হয়েছিল। পুলিশ যাওয়ার আগেই তাঁকে ছেড়ে দিয়েছে। এঘটনায় থানায় কেউ লিখিত অভিযোগ করেননি।

Previous articleবীরগঞ্জে ইএসডিও-এসইপি প্রকল্পের পুষ্টিকর ফুল গ্রেইন চাল উৎপাদন প্রক্রিয়া বিষয়ক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত
Next articleনোয়াখালীতে কিশোরীকে অপহরণের পর ধর্ষণ, থানায় মামলা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।