বাংলাদেশ প্রতিবেদক: কলাপাড়ায় খেপুপাড়া বড় জামে মসজিদের একটি দানবাক্স (সিন্দুক) সহ টাকা চুরির ঘটনা ঘটেছে। মঙ্গলবার গভীর রাতে কলাপাড়া থানার সামনে মসজিদে এ ঘটনা ঘটে। আর এ ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ধর্মপ্রান মুসুল্লীরা। তবে চোর চক্রকে গ্রেফতারে সর্বোচ্চ চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, প্রতিদিন রাত সাড়ে আটটার পর এশার নামাজবাদ বেশ কিছু মানুষকে কোরআন তেলোয়াত শিক্ষা দেন বড় মসজিদের ইমাম মুফতি সাইদুর রহমান। প্রতিদিনের ন্যায় মঙ্গলাবার রাত দশটার দিকে কোরআন শিক্ষার পর ইমাম সাহেব মসজিদের সকল দরজা তালাবদ্ধ করে বাসায় চলে যান। গভীর রাতে চোরচক্র মসজিদের দক্ষিন-পশ্চিম পাশের একটি জানালার গ্রীল বাঁকা করে ভিতরে প্রবেশ করে। পরে ভিতরের দানবাক্স (সিন্দুক) টাকা সহ চুরি করে নিয়ে যায়। একইভাবে মসজিদের বারান্দায় থাকা দানবাক্সের (সিন্দুক) তালা ভেঙেও টাকা পয়সা নিয়ে যায় চোর চক্র। তবে দানবাক্সে ঠিক কত টাকা ছিলো সেটা নিশ্চিত করতে পারেনি কেউ।

খেপুপাড়া বড় জামে মসজিদের ইমাম সাইদুর রহমান জানান, নামজের পরে ছোট দানবাক্সের সকল টাকা পয়সা আমরা মসজিদ কমিটি সদস্যদের উস্থিতিতে মসজিদের ভিতরের দানবাক্সে জমা করি। মাস শেষে এসব টাকা ব্যাংকে জমা দেই। গত মাসে ভিতরের দানবাক্স থেকে ২৫ হাজার টাকার মতো সংগ্রহ হয়েছিলো। আর ভিতরের দানবাক্সের ওজন অন্তত ১ মনের বেশি হবে। একার পক্ষে এ দানবাক্স চুরি করা সম্ভব নয়। সকালে আমরা বিষয়টি থানা পুলিশকে অবহিত করেছি। তারা এসে তদন্ত করে গেছে।

কলাপাড়া থানার ওসি মো. জসিম জানান, ঘটনা শোনামাত্র আমরা মসজিদে গিয়েছি। বিষয়টি তদন্ত চলছে। এছাড়া এখন পর্যন্ত কোন লিখিত অভিযোগ পায়নি। তারপরও আমরা চোর চক্রকে গ্রেফতারে সর্বোচ্চ চেষ্টা অব্যাহত রেখেছি। কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও মসজিদ কমিটির সভাপতি আবু হাসানাত মোহাম্মদ শহিদুল হক জানান, এটি অত্যন্ত দু:খজনক। ইমাম সাহেবকে থানায় অভিযোগ দিতে বলা হয়েছে।

Previous articleসাপাহারে সার বিক্রয়ে অনিয়ম, ডিলার ও খুচরা বিক্রেতার ৪০ হাজার টাকা জরিমানা
Next articleছাত্রী ধর্ষণ মামলার আলামত নষ্টের অভিযোগে ওসির বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।