এস. কে রঞ্জন: আকাশে কালো মেঘ আর গর্জন শুনলেই আঁতকে ওঠে রামনাবাদ ও শিবরাড়িয়া নদী পাড়ের মানুষের বুক। এই বুঝি এলো ঝড়, বন্যার পানিতে ভেসে নিলো স্বপ্নের ঘরগুলো। এভাবেই দিনকাটে পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার খাপরাভাঙ্গা, লালুয়া, ধানখালী, চম্পাপুর ইউনিয়নের রাবনাবাদ ও শিবরাড়িয়া নদী পাড়ের গ্রামের মানুষের। নদীর অতিরিক্ত জোয়ারের পানির সাথে অরক্ষিত রেড়িবাঁধ এ যেনো অভিশাপ হয়ে দাঁড়িয়েছে তাদের জীবন যাত্রায়। বন্যা-জলোচ্ছাস হলেই দেখা মিলে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্তাদের। সারা বছর আর কোন খবর নেয় না তারা এমনই অভিযোগ স্থানীয়দের।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার রাবনাবাদ ও শিববাড়িয়া নদী পাড়ের বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে মাটির সঙ্গে মিশে গেছে। দু-এক জায়গায় সংযোগ থাকলেও উপছে পড়ছে জোয়ারের পানি। অতিরিক্ত জোয়ারের পানিতেই ভেসে গেছে গ্রামের পর গ্রাম। এর মধ্যেই জীবনের ঝুকি নিয়ে বেচে আছে এসব এলাকার অসহায় ও হত দরিদ্র মানুষগুলো। কেহ আবার ছেলে-মেয়ে নিয়ে আশ্রয় নিয়েছে অন্যের জায়গায় কিংবা বেরিবাঁধের উপরে। অমাবস্যা-পূর্ণিমা আসলেই জোয়ারের পানিতে ভাসতে থাকে ওইসব গ্রামের মানুষগুলো। রামনাবাদ নদীর পাড়ে অবস্থিত পায়রা বন্দর অধিগ্রহণ করায় পানি উন্নয়ন বোর্ড সেখানে নতুন করে বাঁধ নির্মাণ কিংবা পুরনো বেড়িবাঁধ মেরামত করছে না এমনই অভিযোগ করেন স্থানীয় বাসিন্দারা। খাপরাভাঙ্গা ইউনিয়নের শিববাড়িয়া নদীর পাড়ে অবস্থিত মানুষগুলোর একই চিত্র দেখতে পাওয়া যায়। এখানকার নিজামপুর গ্রামের মানুষগুলো এখন খুবই শোচনীয় অবস্থায় রয়েছে।

লালুয়া ইউনিয়নের রাবনাবাদ নদীর পাড়ের পশরবুনিয়া গ্রামের গৃহবধু রেহানা বেগম বলেন, স্বাভাবিকের চেয়ে অতিরিক্ত জোয়ারের পানি হইলেই মাঝের রাস্তা চুবাইয়া পানি উঠে আমাগো ঘড়-বাড়ি সব তলাইয়া যায়। এসময় ঘরে থাকা তো দুরে কথা রান্নাবান্নাও বন্ধ হইয়া যায়। একই ইউনিয়নের মো. জবির মাতব্বর জানান, পায়রা পোর্ট ও পানি উন্নয়ন বোর্ড একে অন্যের ঢেলাঢেলিতে এই দশা হইছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড কয় এটা পায়রা পোর্ট মেরামত করবে আর পায়রা পোর্ট কয় আমাগো সময় হলেই করমু। এমন কথাই খালি হুনি। অথছ বেড়িবাধঁ তাড়াতাড়ি ঠিক না করলে স্ত্রী-সন্তান নিয়া বাব-দাদার ভিটায় থাকা মুশকিল হইয়া যাইবো।” এভাবেই ধানখালী, চম্পাপুর ও খাপরাভাঙ্গা ইউনিয়নের একাধিক মানুষ অভিযোগ করে বলেন, বন্যা ও জলোচ্ছাসের সময় এলে অনেকেই সাহায্য সহযোগীতা নিয়া আসে। তারা সাহায্য চায় না, স্থায়ী একটা সমাধান চায়। বেড়িবাঁধগুলোর মেরামত করলেই স্থায়ী একটা সমাধান পাওয়া যাবে। তাই পায়রা পোর্ট কর্তৃপক্ষ ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের সদিচ্ছা ও সহযোগীতা কামনা করেন এসব এলাকার অসহায় ও বন্যার্ত মানুষগুলো।

লালুয়ার চেয়ারম্যান শওকত হোসেন তপন বিশ্বাস বলেন, রাবনাবাদপাড়ের দীর্ঘ সাত কিলোমিটার বেড়িবাঁধ বিধ্বস্ত রয়েছে। পায়রা পোর্ট ও পানি উন্নয়ন বোর্ড ভিন্ন ভিন্ন ভাবে এ বেড়িবাঁধ করার কথা। আসছে নভেম্বর মাসের মধ্যে বিধ্বস্ত এ বেড়িবাঁধ মেরামত না হলে স্থানীয় বাসীন্দাদের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তাই এখানকার মানুষগুলোর কথা চিন্তা করে পায়রা পোর্ট কর্তৃপক্ষ ও পানি উন্নয়ন বোর্ডকে অতি দ্রুত বেড়িবাঁধ মেরামত করার জন্য অনুরোধ জানান। এবিষয়ে কলাপাড়া উপজেলা পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবি)’র এক্সেন মো. আরিফ হোসেন বলেন, খাপরাভাঙ্গা ইউনিয়নের শিবরাড়িয়া বেড়িবাঁধ মেরামতের কাজ এ বর্ষা শেষেই শুরু হবে। বিষয়টি পটুয়াখালী ডিসি মহোদয়েরও নজর রয়েছে। ধানখালী ও দেবপুর বেরিবাঁধের টেন্ডার হয়ে আছে। রাস্তার জায়গা নিয়ে স্থানীয়দের সাথে একটু ঝামেলা ছিলো। তবে, স্থানীয় এম.পি মহোদয়ের হস্তক্ষেপে সে সমস্যারও সমাধান প্রায় হয়ে গেছে। দ্রুতই বেরিবাঁধ মেরামতের কাজ শুরু করা হবে।

তিনি আরোও বলেন, লালুয়া ইউনিয়নের মোট ৭ কি.মি বেড়িবাঁধ মেরামত করা হবে। তারমধ্যে ৬ কি.মি বেরিবাঁধ পায়রা পোর্ট কর্তৃপক্ষ আর বাকী ১ কি.মি পানি উন্নয়ন বোর্ড করবে। এখন পায়রা পোর্ট কর্তৃপক্ষ ৬ কি.মি করলেই আমরা বাকী ১ কি.মি কাজ শুরু করতে পারি। আর ওই ৬ কি.মি. বেরিবাঁধ মেরামতের কাজ পোর্ট কর্তৃপক্ষ কবে নাগাদ শুরু করবে সেটা তারাই বলতে পারে। এজন্য তিনি পায়রা পোর্ট কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলার পরামর্শ দেন।

পায়রা পোর্টের এক্সেন মো. আশিকুর রহমানের মোবাইলে এবিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, পায়রা পোর্টের কোন তথ্য নিতে হলে অফিসিয়াল নিয়মে আসতে হয়। যে কোন তথ্যের জন্য পায়রা পোর্টের সচিবের সাথে যোগাযোগের জন্য তিনি বলেন। পায়রা পোর্টের সচিব মো. সোয়েবুর রহমান বলেন, পায়রা পোর্ট বেড়িবাধেঁর কোন কাজ করবে না। তবে ফোর লেন ও সিক্স লেন রাস্তার কাজ অনেক আগেই শুরু করেছে। এ রাস্তার কাজ শেষ হলেই ৬ কি.মি. বেড়িবাঁধের কাজ হয়ে যাবে। তা শেষ হতে আরোও দু-এক বছর লাগতে পাবে। তবে এবিষয়ে পায়রা পোর্টের প্রধান প্রকৌশলী আরোও ভালো বলতে পারবেন বলে তিনি জানান।

পায়রা পোর্টের প্রধান প্রকৌশলী মো. নাসির আহম্মেদ’র সাথে বার বার মোবইলে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও তাকে পাওয়া যায়নি। মোবাইলে ক্ষুদে বার্তা পাঠিয়েও কোন উত্তর পাওয়া যায়নি।

Previous articleঘাটাইলে ড্রাগন ফল চাষে বছরে আয় ২০ কোটি টাকা
Next articleকাশিনাথপুরে নারীকে ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা, আসামির মৃত্যুদণ্ড
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।