সোহেল রানা: কুমিল্লার চান্দিনায় সহকারী প্রধান শিক্ষকের যৌন হয়রানির প্রতিবাদ ও বিচারের দাবিতে আন্দোলন করেছে একটি উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। রবিবার (২৮ আগস্ট) টিফিন বিরতিকালে, মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিলের মাধ্যমে আন্দোলন শুরু করেছে তারা। এ আন্দোলন যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক একাধিক আইডি থেকে ভাইরাল হয়েছে। এতে দেখা গেছে অভিযুক্ত সহকারী প্রধান শিক্ষক মোঃ জাকির হোসেন মিয়াজীকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করার জোর দাবি তাদের।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, উপজেলার ১নং শুহিপুর ইউনিয়নের পিপুইয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক মোঃ জাকির হোসেন মিয়াজী কর্তৃক ফেইসবুক যোগাযোগ মাধ্যম মেসেঞ্জারে “এসএসসি” পরীক্ষার্থী এক ছাত্রীকে যৌন হয়রানি ও কুরুচিপূর্ণ কথাবার্তা বলায় ছাত্রীর কাছে পাঠানো বিভিন্ন উত্তেজক স্কেনশর্ট তুলে ধরে বিচারের দাবিতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম প্রথম ফেসবুকে পোস্ট দেন তার পর থেকেই ফেইসবুক শেয়ারে ছড়িয়ে পরে। শুরু হয় সব মহলে সমালোচনা।

এ ঘটনার পর থেকে মুখ খুলতে থাকে একের পর শিক্ষার্থী, একাধিক ছাত্রীর সাথে যৌন হয়রানির অভিযোগ তোলেন তারা। প্রায় সময়ই স্কুলের এসএসসি পরীক্ষার্থী ছাত্রীকে যৌন হয়রানি করত বলেও অভিযোগ শিক্ষার্থীদের।

এ অবস্থায় শিক্ষার্থীরা নিরাপত্তার জন্য অভিযুক্ত শিক্ষককে স্থায়ীভাবে বহিষ্কারের দাবি জানায়। এরই পরিপ্রেক্ষিতে শিক্ষার্থীরা রবিবার দুপুরে টিফিন বিরতিকালে বিদ্যালয়ের সামনে রাস্তায় মানববন্ধন ও মিছিল করে তারা।

একাধিক শিক্ষার্থীর অভিযোগে বলেন, তার স্থায়ীভাবে বরখাস্ত চাই। কেননা, এরকম ছাড় দেয়া হলে পুনরায় তিনি আবারও এরকম করবে। এই নির্লজ্জ একজন শিক্ষক তার বিচার চাই। এ সময় উচ্চ স্বরে শিক্ষার্থীরা শিক্ষকের বিচারের চেয়ে বিভিন্ন ধরনেরে শ্লোগান দেয়। পূর্বেও এ শিক্ষকের বিরুদ্ধে এ ধরনের অভিযোগ রয়েছে বলেও দাবি করেন তারা।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত সহকারী শিক্ষক মোহাম্মদ জাকির হোসেন মিয়াজীর বক্তব্য নিতে গেলে তিনি বলেন, এধরনের কাজ আমি করিনি, একটি কুচক্রী মহল কম্পিউটারে এডিট করে আমাকে ফাঁসানোর চেষ্টা চালাচ্ছে। তিনি আরোও বলেন, আমার ফেইসবুক একাউন্ট হ্যাক হয়েছে। আমার বিরুদ্ধে চক্রান্ত চলছে। আপনার ফেসবুক একাউন্ট কি’ মোবাইল নম্বার দিয়ে খোলা’, নাকি জিমেইল অ্যাকাউন্ট দিয়ে খোলা হয়েছে? অন্য কেউ আপনার ফেসবুক একাউন্ট ব্যবহার করে কী না? ফেসবুক হ্যাক হওয়ার কারণ জানতে চেয়ে সহকারী শিক্ষককে এমন প্রশ্নে? ওই শিক্ষকের ভাতিজা নুরুল ইসলাম সংবাদ কর্মী ও মানবাধিকার কর্মীদের সঙ্গে অসভনীয় আচরণ করেন।

এদিকে ভুক্তভোগী ওই ছাত্রী জানায়, বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ জাকির হোসেন মিয়াজী প্রায় সময় তাকে বিরক্ত করতো এবং ফেসবুক মেসেঞ্জারে যৌন হয়রানি ও কুরুচিপূর্ণ কথাবার্তা বলতো একপর্যায়ে ওই ছাত্রী বিরক্ত হয়ে শিক্ষকের মেসেঞ্জার ব্লক করে দেয়। মেসেজ গুলো স্কেনশর্ট রেখে পরে এবিষয়টি তার সহপাঠীদের সঙ্গে শেয়ার করলে জানাজানি হয়। ভুক্তভোগী ছাত্রীর “মা” সাংবাদিকদের জানান, ধর্ম বিষয়ক শিক্ষক আব্দুল হক মাওলানা বাড়িতে গিয়ে ছাত্রীকে এব্যাপারে কারোও কাছে বলতে নিষেধ করে শাসিয়ে এসেছেন। তবে এ বিষয়ে জানতে চাইলে ধর্ম বিষয়ক শিক্ষক বলেন, তাদের বাড়িতে গিয়েছিলাম সত্য, বলেছি যদি এধরনের কিছু হয়ে থাকে সমাধান করে দিবো। এ বিষয়ে কাউকে কোন জানানোর প্রয়োজন নেই।

এঘটনায় উক্ত বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ জামাল হোসেন বলেন, ছাত্রীর বাবা নির্বাহী অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন।

এ ব্যাপারে চান্দিনা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. জিয়াউল হক মীর এর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এধরনের একটি অভিযোগ পেয়েছি। অভিযোগ পাওয়ার সাথে সাথে জরুরী ভিত্তিতে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার কে বলা হয়েছে।

এবিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার কানিজ আফরোজা বলেন, মঙ্গলবার সকালে ভুক্তভোগী বাড়ীত পরিদর্শনে গেলে ওই ছাত্রীর সঙ্গে কথা বলার পর তার বাবা লিখিত অভিযোগ করেন। বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Previous articleশহীদ আলতাফ মাহমুদ স্মরণে – লীনু বিল্লাহ
Next articleআওয়ামী লীগ ও বিএনপির পাল্টাপাল্টি সমাবেশ, চৌমুহনী পৌরসভা এলাকায় ১৪৪ ধারা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।