লীনু বিল্লাহ: আর কিছুক্ষণ পর ক্যালেন্ডারের পাতায় আজকের ২৯ আগস্ট তারিখটি বিদায় নিয়ে ৩০ আগস্টের দিনটি শুরু হতে যাচছে, খুবই স্বাভাবিক নিয়মে। কিন্তু আমার এবং আমাদের পরিবারের সকলের কাছে ৩০ আগস্ট দিনটি একটি বিভীষিকাময়, লোমহর্ষক এবং অনিশ্চয়তায় পরিপূর্ণ একটি কালোদিন হিসেবে চিহ্নিত হয়ে আছে দীর্ঘ ৫১ বছর যাবৎ।

আমার এই সত্তুরোর্ধ জীবনের অনেক অনেক স্মৃতি-ই স্বাভাবিক নিয়মে ম্লান হয়ে গেছে। কিন্তু ১৯৭১ সালের ৩০ আগস্টের সেই ভয়াবহ দিনটির প্রতিটি মূহুর্তের দুঃসহ স্মৃতি আমার স্মৃতিপটে এখনো জ্বলজ্বল করে ওঠে।
সেদিন ভোর ৫-৪৫ মিনিটের দিকে পাক হানাদার বাহিনীর একটি বিরাট দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আমাদের ঢাকাস্হ রাজারবাগের বাসাটি ঘেরাও করে ফেলে পিছনের দরজা দিয়ে বাসার ভিতরে ঢুকে পড়ে। শিমুলকে সামনে পেয়ে তার কপালে বন্দুক ঠেকিয়ে একজন সেনা অফিসার চিৎকার করে জিজ্ঞেস করে, ” আলতাফ মাহমুদ কৌন হ্যায়” ?

চিৎকার চেঁচামেচিতে আমরা সবাই ঘুম থেকে জেগে উঠে ঘটনা বোঝার জন্য রুমের দরজা খুলতেই খান সেনারা আমাদের সবার দিকে অস্ত্র তাক করে উচ্চস্বরে একই প্রশ্ন করতে থাকে, “আলতাফ মাহমুদ কৌন হ্যায়”? ঘটনার পরিণাম বুঝতে পেরে আমাদের ভগ্নীপতি আলতাফ ভাই তাঁর রুম থেকে বের হয়ে এসে মাথা উঁচু করে জবাব দিলেন, ” আমিই আলতাফ মাহমুদ”।

এখানে ১৯৭১ সালের ৩০ আগস্টের পূর্বাপর কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ ঘটনার উল্লেখ করা প্রয়োজন। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সেই সময়টিতে ঢাকায় তখন খালেদ মোশাররফের নেতৃত্বাধীন ২ নং সেক্টরের দুর্ধর্ষ ক্র্যাক প্লাটুনের সদস্যদের তৎপরতা শুরু হয়ে গিয়েছিল। তাঁদের মূহুর্মূহু আক্রমণে পাক হানাদাররা ভীতসন্ত্রস্ত ও উৎকন্ঠিত হয়ে পড়ে। বিচ্ছুদের ধরার জন্য তারা মরিয়া হয়ে উঠেছিল।

আমাদের রাজারবাগের বাসাটি ছিল ক্র্যাক প্লাটুনের সদস্যদের জন্য একটি নির্ভরযোগ্য স্হান। কারণ আলতাফ ভাইয়ের তত্ত্বাবধানে আমরা এই বাড়ির নারী পুরুষ সবাই ইতিমধ্যেই মুক্তিযুদ্ধে বিভিন্নভাবে জড়িয়ে গেছি। আলতাফ মাহমুদ ছিলেন ক্র্যাক প্লাটুনের অন্যতম একজন সংগঠক। আমাদের রাজারবাগের সেই বাসাটিতে ঢাকা শহরে ক্র্যাক প্লাটুনের বিভিন্ন স্হানে আক্রমণের শলাপরামর্শ এবং আক্রমনের ছক কাটা হতো।

৭১ এর ৭ই জুন কন্টিনেন্টাল হোটেলে আক্রমণ করে মুক্তিযোদ্ধারা প্রচুর অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে আমাদের বাসায় জড়ো হয় পরবর্তী পরিকল্পনার ছক কাটার জন্যে। ওই আক্রমনের পর ঢাকার রাস্তায় রাস্তায় খান সেনারা টহল বাড়িয়ে দিলে আলতাফ ভাই পরামর্শ দেন অস্ত্রগুলো বাড়ির পিছনের দিকে মাটি খুঁড়ে লুকিয়ে রাখার জন্য। সেই রাতেই আলতাফ ভাই, মেজদা (আমার মেঝ ভাই, দূধর্ষ মুক্তিযোদ্ধা মেওয়া) এবং আমাদের বাড়িওয়ালার বড় ছেলে ইকু মামা মিলে মাটি খুঁড়ে একটি ট্রাংকে ভরে অস্ত্রগুলো লুকিয়ে ফেলে। সামনের দিনগুলোতে ব্যবহারের আশায় অস্ত্রগুলো ৩০ আগস্ট পর্যন্ত সেখানেই রাখা ছিলো।

আক্রমনের পরিকল্পনা, অস্ত্র লুকানো ইত্যাদি সবকিছুই হতো যথেষ্ট সাবধানতা এবং গোপনীয়তা বজায় রেখে। কিন্ত পরিতাপের বিষয়, আমরা পরবর্তীতে জানতে পেরেছি যে, সেই সময়েই ঢাকার কোন এক আড্ডায় মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী কিছু তরুণ জানায় যে তারা বিশ্বস্ত সূত্রে জানতে পেরেছে যে রাজারবাগের একটি বাসায় মুক্তিযুদ্ধের লোকজন নিয়মিত বৈঠক করে, বিষয়টি খানসেনাদের জানানো দরকার। সেই চক্রান্তের ফলশ্রুতিতে প্রথমে আটক করা হয় ক্র্যাক প্লাটুনের অন্যতম সদস্য মগবাজার নিবাসী সামাদকে। পরবর্তীতে সামাদকে নিয়েই খানসেনারা ঢাকা শহরের বিভিন্ন মহল্লায় অবস্হানরত মুক্তিযোদ্ধাদের ধরে ফেলে।

এদের মধ্যে ছিলেন আজাদ, বদি, বাকের, জুয়েল, রুমী, হাফিজ ভাই প্রমুখ। তবে, টের পেয়ে অনেক মুক্তিযোদ্ধা পালিয়ে যেতে সমর্থ হয়। খানসেনাদের তৎপরতার কারণে তারা কেউই আলতাফ ভাইকে সতর্ক করে যেতে পারেননি।

৩০ শে আগস্ট ভোরে আমাদের বাসা চিনিয়ে দেওয়ার জন্য খানসেনারা সামাদকে নিয়ে আসে। আলতাফ ভাই ধরা দেওয়া মাত্রই সামাদ বলে ওঠে, ” আলতাফ ভাই কোন উপায় নাই আমি সব বলে দিয়েছি, অস্ত্রগুলো কোথায় আছে দেখিয়ে দিন”। এই কথা বলা মাত্রই খানসেনারা আলতাফ ভাইয়ের ওপর নির্যাতন শুরু করে দেয়। নিরূপায় হয়ে আলতাফ ভাই অস্ত্রগুলোর সন্ধান জানিয়ে দেয়। অস্ত্রগুলো মাটি খুঁড়ে বের করার পর তারা আলতাফ ভাই এবং আমাদের চার ভাই, যথাক্রমে নূহেল ভাই, খনু ভাই, দীনু ভাই এবং আমাকেও ধরে নিয়ে যায়।

সেদিন আমাদের বাসায় অবস্থানরত ক্র্যাক প্লাটুনের সদস্য আবুল বারাক আলভী (বিশিষ্ট চিত্রশিল্পী) এবং প্রতিবেশী রসুল ভাই এবং নাসের ভাইকেও ওরা আমাদের সাথে ধরে নিয়ে গিয়েছিল। আমাদের সবাইকে সরাসরি ঢাকার নাখালপাড়াস্হ (ড্রাম ফ্যাক্টরী গলি) তৎকালীন এমপি হোস্টেলের পিছনে হানাদার বাহিনীর নির্যাতন কেন্দ্রে নিয়ে যায়।

উল্লেখ্য যে আমাদের মেঝ ভাই এবং ছোটবোন মিনু ১২ আগস্ট মেলাঘরে চলে যাওয়ায় তাঁরা রক্ষা পায়)। তিনদিন অমানুষিক নির্যাতনের ভয়াবহ বর্ণনা এখানে উল্লেখ নাই বা করি। তাছাড়া এতো স্বল্প পরিসরে বিস্তারিতভাবে না লিখলে অনেক ঘটনা অপ্রকাশিত থেকে যাবে।

সেই দিনগুলোর কথা আরও বিস্তারিত বিবরণ সহ একটি বই প্রকাশ করবার আশা জানিয়ে আজ এখানেই শেষ করছি।

তবে বিদায় নেবার আগে বলে যাই, আলতাফ মাহমুূূদের সাহস, দৃঢ় মনোবল এবং স্পার্টাকাসের মতো সব দায়-দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নেবার ফলেই আমরা চার ভাই এবং আবুল বারাক আলভী আমাদের জীবন ফিরে পাই।
এই একান্ন বছরের আগের সেই ভয়াবহ অমানুষিক নির্যাতনের স্মৃতি আজও আমি বয়ে বেড়াচ্ছি। আমার সামনেই নির্যাতন করে যাদেরকে মারা হয়েছিলো, সেই ভয়াবহ স্মৃতি আজও আমাকে তাড়িয়ে বেড়ায়।

লেখকঃ (লীনু বিল্লাহ) লেখক ক্র্যাক প্লাটুনের গেরিলা যোদ্ধা এবং শহীদ আলতাফ মাহমুদের নিকটাত্মীয়

Previous articleটসে জিতে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ
Next articleচান্দিনায় শিক্ষার্থীকে যৌন হয়রানির অভিযোগ সহকারী প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।