বাংলাদেশ প্রতিবেদক: নরসিংদীর শিবপুর সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী প্রভা আক্তারের মৃত্যুর ঘটনায় অভিযুক্ত শিক্ষককে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। ঘটনাটি এলাকায় ব্যাপক আলোড়ন তৈরি করেছে।

একই সাথে তাকে আটক করতে রাতভর অভিযান চালিয়েছে পুলিশ এবং ঘটনাটি তদন্তের জন্য উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাকে দিয়ে তদন্ত কমিটি করে সোমবারের মধ্যে রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে।

শিবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সালাউদ্দিন মিয়া বিবিসি বাংলাকে বলেন, প্রভা নামের ওই ছাত্রী বাজার থেকে ইঁদুর মারার বিষ সংগ্রহ করে সেটি পান করে সরাসরি থানায় এসে তার এক শিক্ষিকার বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছে।

থানায় কর্তব্যরত পুলিশ কর্মকর্তাকে ওই ছাত্রী বলে, ম্যাডাম আমাকে আগেও মেরেছে। আজকেও (বৃহস্পতিবার) মেরেছে। আমার কিছু হলে ম্যাডামই দায়ী।

সালাউদ্দিন মিয়া বলেন, বিষ খাওয়ার কথা বলতে বলতেই ঢলে পড়ে মেয়েটি এবং সে কারণে দ্রুততার সাথে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে ওয়াশ করানোসহ দরকারি সব ব্যবস্থা নেয়া হয়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত মেয়েটিকে বাঁচানো যায়নি।

পুলিশ ও স্কুলের প্রধান শিক্ষকের ভাষ্য অনুযায়ী, বৃহস্পতিবার স্কুলের এসেম্বলিতে স্কুল ইউনিফর্ম যথাযথভাবে না পরে আসায় অভিযুক্ত শিক্ষিকা তাকে শাসন করেন। যদিও পুলিশের ভাষ্য অনুযায়ী, বিষ খেয়ে থানায় গিয়ে ওই ছাত্রী পুলিশকে বলে যে তাকে প্রহার করা হয়েছে।

প্রধান শিক্ষক কী বলছেন

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নুর উদ্দিন মোহাম্মদ আলমগীর বলেন, ‘ওই ছাত্রী থানায় গিয়ে প্রহারের কথা বলেছে। কিন্তু আমার স্কুলে কোনো বেতই নেই। ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত শিক্ষিকাকে ফোনে পাচ্ছি না। তাই আসলে কী হয়েছিলো বলা কঠিন।’

তিনি বলেন, অন্যদের কাছ থেকে যে খবর তিনি পেয়েছেন তাতে শিক্ষিকা তাকে সবার সামনে শাসন করেছিলেন। হয়তো এটিকে সে অপমান হিসেবে বিবেচনা করেছে।

স্কুলের সহপাঠীদের উদ্ধৃত করে স্থানীয় এক অভিভাবক জানান, এসেম্বলিতে শাসনের পরে শ্রেণিকক্ষেও একই বিষয় নিয়ে তাকে কটাক্ষ করেন ওই শিক্ষিকা এবং এ সময়ে তাকে দাঁড় করিয়ে কয়েকটি চড়ও দেন তিনি।

এর পরপরই স্কুল ছুটি হয় এবং ওই শিক্ষার্থী সোজা দোকানে গিয়ে ইঁদুর মারার বিষ কিনে তা পান করে নিজেই সরাসরি থানায় গিয়ে উপস্থিত হন।

প্রধান শিক্ষক বলেন, ওই ছাত্রীর বাবা বিদেশে থাকেন এবং দেশে সে তার মায়ের সাথে থাকত। এর আগেও কিছু বিষয়ে ওই ছাত্রীকে নিয়ে প্রধান শিক্ষকের কাছে এসেছিলেন তার মা।

প্রধান শিক্ষক নুর উদ্দিন মোহাম্মদ আলমগীর বলেন, ‘কিছু বিষয় নিয়ে তার মা তাকে নিয়ে এসেছিলো আমার কাছে। আমরা কাউন্সিলিং করেছি। বাচ্চা মানুষ। হয়তো জিদ বা আবেগ বেশি। কিন্তু কী কারণে মৃত্যুর মতো কঠিন সিদ্ধান্ত হলো সেটি হয়তো পুলিশের তদন্তে বের হয়ে আসবে। বা তার রাগের আড়ালে অন্য কোনো কারণ ছিলো কি না সেটি আমরা জানি না।’

জানা গেছে, থানায় শিক্ষার্থীর অবস্থা গুরুতর হয়ে পড়লে তাকে হাসপাতালে নেয়ার পথেই স্কুলের প্রধান শিক্ষককে ডেকে নেয় পুলিশ। একই সাথে উপজেলা প্রশাসনকেও অবহিত করা হয়।

প্রাথমিক চিকিৎসার পরেও ওই ছাত্রী কথা বলেছিলেন। কিন্তু এর পরেই তার অবস্থার অবনতি হতে থাকলে তাকে শিবপুর থেকে নরসিংদীতে হাসপাতালে পাঠানো হয় কিন্তু সেখানে পৌঁছানোর সময় তার মৃত্যু হয়।

সূত্র : বিবিসি

Previous articleপাঁচবিবিতে ১৫০ পিস এ্যাম্পলসহ ২ মাদক কারবারি আটক
Next articleফেসবুকে মিথ্যাচারের অভিযোগে ভাতিজার বিরুদ্ধে চাচার লিখিত অভিযোগ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।