বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মেয়ের চিকিৎসার জন্য অন্যের রাস্তায় রাস্তায় ঘুরছেন এক হতভাগ্য পিতা। জন্ম থেকেই মেয়েটির পা দুটো বাঁকানো বা অচল। সোজা হয়ে দাঁড়াতে কিংবা হাঁটতে পারে না। মায়ের কোলে করে প্রতিদিন স্কুলে যায়।

সে সুবিদখালী মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী। এমনকি অন্যের সাহায্য নিয়েও হাঁটতে বা চলতে কষ্ট হয়। বাবা বা মায়ের কোলে কোলে কাটছে তার জীবন।

ওই মেয়ের নাম উম্মে হাবিবা, বয়স ১০ বছর, বাড়ি পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জ উপজেলার কপালভেড়া গ্রামে। সে মির্জাগঞ্জ ইউনিয়নের মো. আনোয়ার মোল্লার মেয়ে।

চিকিৎসার জন্য নিজের সহায় সম্বলটুকু সবই শেষ। সে মেয়েটি যেন কারো বোঝা হিসেবে না থাকে, তাই তার বাবা অন্যের কাছে চেয়ে মেয়েটির একটি পা অপারেশন করিয়েছেন গত বছর। গত কয়েক মাস আগে অন্য আরেকটি পা সোজা করে অপারেশন করান ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে।

বাবা আনোয়ার মোল্লা বলেন, মেয়ের অসুস্থতায় জায়গা জমি বিক্রি করে সর্বহারা, অপারেশন হলেও পুরোপুরি সুস্থ্য হয়নি আরো একটি অপারেশন করতে হবে তার জন্য এক লাখ টাকা প্রয়োজন। আমি বরগুনায় একটি কারখানায় শ্রমিকের কাজ করি। ঠিকমতো তাদের দেখাশুনা করতে পারিনা। সুবিদখালীর বিভিন্ন স্কুল-কলেজ ও বাজার ঘুরে ১৫ হাজার টাকা ম্যানেজ করেছি, আরো টাকার প্রয়োজন। সর্বোস্তরের মানুষের কাছে আকুল আবেদন এই যে আমার মেয়ে যেন কারো বোঝা হয়ে না থাকে। একটি অপারেশন হলেই ভালো ভাবে হাঁটতে পারবে বলে চিৎিকসক জানিয়েছেন। উম্মে হাবিবা বাঁচতে চায় ও সে পায়ে হেঁটে স্কুলে যেতে চায়। স্বাভাবিকভাবে যেন জীবনযাপন করতে পারে।

মেয়েটির বাবা আনোয়ার মোল্লা সমাজের বিত্তশালী ব্যক্তিদের কাছে আর্থিক সহায়তা কামনা করেছেন। বিকাশ অথবা যোগাযোগ : উম্মে হাবিবার বাবা আনোয়ার মোল্লার বিকাশ নাম্বার : ০১৯৩৮-৫৪৯৮৮৬

Previous articleহাঁটাপীরের জন্য গান – রফিক সুলায়মান
Next articleকলাপাড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বেড সংকটে চিকিৎসা চলে মেঝেতে
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।