অতুল পাল: বাউফলের নাজিরপুর-তাঁতেরকাঠী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে উপনির্বাচনের পর সহিংস ঘটনায় এক সংবাদিকের বাড়ি এবং দুইটি আওয়ামী লীগ অফিসসহ নৌকার সমর্থক ২৫টি ঘর-বাড়িতে হামলা-ভাঙচুর চালানো হয়েছে। বন্ধ করে দেয়া হয়েছে নৌকার সমর্থকদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানও। সহিংস ওই ঘটনার পর ঘর-বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন নৌকার প্রায় পাঁচ শতাধিক কর্মী-সর্মথক।

মঙ্গলবার (৬ সেপ্টেম্বর) রাতভর উপনির্বাচনে বিজয়ী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী এস.এম মহসিনের সমর্থকেরা ওই ঘটনা ঘটিয়েছে বলে ভূক্তভোগীরা জানিয়েছেন। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায় মঙ্গলবার (৬ সেপ্টেম্বর) নাজিরপুর-তাঁতেরকাঠি ইউপির চেয়ারম্যান পদের উপনির্বাচনে ৬৫ ভোটে নৌকার প্রার্থী মো. ইব্রাহিম ফারুককে হারিয়ে বিজয়ী হন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী (চশমা) এস.এম মহসিন। মঙ্গলবার রাতে ৬ টার দিকে ফলাফল ঘোষণার পর থেকে ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে শুরু হয় সহিংস তান্ডব।

বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকেরা তান্ডব চালিয়ে বাড় ডালিমা ও ছয়হিস্যা আওয়ামী লীগ অফিস, বাউফল প্রেসক্লাবের সদস্য সাংবাদিক জি.এম ফোরকানের বসতঘরসহ নাজিরপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারন সম্পাদক মো. ফরাদ গাজী, ৯ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি ও ইউপি সদস্য আনসার উদ্দিন খান, ৯নং ওয়ার্ড যুবলীগ সভাপদি রিয়াদুল ইসলাম বাবু, কচুয়া গ্রামের জসিম খান, বড় ডালিমা গ্রামের আবদুল্লাহ , জামাল সরদার, স্বপন সরদার, কাশেম গোলদার, ইয়ার হোসেন, মাহফুজ, রামনগর গ্রামের দুলাল মৃধা, মামুন মৃধা, ছয়হিস্যা গ্রামের রাজ্জাক মাস্টার, মালা, বারেক গাজী, লুৎফার মাস্টার, নিদমী গ্রামের শহিদ হাওলাদার, রিয়াজ বেপারী, হানিফ সরদার, নিজ তাঁতেরকাঠি গ্রামের মোতালেব এবং ইউসুফ সরদারের ঘর-বাড়ি ভাঙচুর করা হয়। এছাড়াও রামনগর বাজারে নৌকার সমর্থক মামুন মৃধা, কামাল হোসেন হাওলাদার, বাকলা বাজারের মাহবুব, শহিদুল ইসলাম, নিমদী বাজারের নজরুল তালুকদার, ধানদী বাজারের মহসিন মৃধা, ছয়হিস্যা বাজারের বাচ্চু মোল্লা এবং বৌ বাজারের জলিল সরদারের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

নাজিরপুর ইউনিয়নের কচুয়া গ্রামের ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউপি সদস্য মো. আনসার উদ্দিন খানের বাড়িতে ব্যাপক তা-ব চালানো হয়। ভাঙচুর করা হয় ঘরের আসবাবপত্র। রাম দা দিয়ে কোপানো হয় ঘরের চারপাশের টিনের বেড়া এবং রান্না ঘরের হাড়ি পাতিল।

কচুয়া গ্রামের বাসিন্দা ও ৯ নং ওয়ার্ড যুবলীগ সভাপতি রিয়াদুল ইসলাম বাবু বলেন, আমার বাড়িঘর ভাঙচুর ও লুটপাট করা হয়েছে। আমি ও আমার পরিবারের সদস্যরা বাড়িতে যেতে পারছি না। বাউফল প্রেসক্লাবের সদস্য সাংবাদিক জি.এম ফোরকান বলেন, নজিরবিহীন হামলা চালানো হয়েছে আমার বাড়িতে। সন্ত্রাসীদের তা-বে তছনছ হয়ে গেছে আমার বসতঘর। এবিষয়ে বিজয়ী চেয়ারম্যান প্রার্থী এস.এম মহসিনের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

এবিষয়ে বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা অফিসার মো. আল-মামুন বলেন, পরিস্থিতি শান্ত রাখতে পুলিশ মাঠে কাজ করছে।

Previous articleউল্লাপাড়ায় থাকছে না চতরার বিলের জলাবদ্ধতা
Next articleকাপড় নষ্ট করায় মাকে গোয়ালে ফেলে রাখলেন ছেলে, ফ্ল্যাটে তুলে দিলেন ইউএনও
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।