সোহেল রানা: অবৈধ ড্রেজারে বিলীন হচ্ছে কৃষি মাঠ। কিছুতেই থামছেনা কৃষি জমি থেকে অবৈধ ভাবে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে বালু-মাটি উত্তোলন। ক্ষতিগ্রস্ত জমির মালিকদের অভিযোগের ভিত্তিতে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্ৰামের কোন না কোন স্থানে অবৈধ ড্রেজার মেশিন চলছে।

মাইলের পর মাইল পাইপ সংযোগ দিয়ে ড্রেজিংয়ের মাটি দিয়ে কোথাও ফসলি জমি আবার কোথাওবা পুকুর ভরাট করা হচ্ছে।ড্রেজার বসিয়ে মাটি ও বালি উত্তোলনের ফলে আশ-পাশের ফসলের জমিগুলো পরিনত হচ্ছে কূপে। ক্রমাগতভাবেই শুরু হয় ভাঙন। এতে বিলীন হচ্ছে শত শত ফসলি জমি। অবৈধ ড্রেজার বসিয়ে প্রতিনিয়ত কৃষি মাঠের ফসলি জমি থেকে মাটি উত্তোলন করছে কিছু কুচক্রী মহল।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলার ১নং শুহিলপুর ইউনিয়ন, ২নং বাতাঘাসী ইউনিয়ন, মাধাইয়া ইউনিয়ন, ১০নং গল্লাই ইউনিয়ন ও মাইজখার ইউনিয়ন পরিষদ গুলোর কৃষি মাঠে সবচেয়ে বেশি ড্রেজার মেশিন বসিয়ে অবৈধভাবে বালু-মাটি উত্তোলনের মহোৎসব চলছে। ওই ইউনিয়নের অবৈধ ড্রেজারের বিরুদ্ধে উপজেলা প্রশাসনের নিকট একাধিকবার অভিযোগ করলেও কোন ব্যবস্থা নেয়াও হয়নি বলেও জানান ভুক্তভোগীরা। তবে মাঝে মধ্যে স্থানীয় প্রশাসন ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যেমে অভিযান চালালেও রহস্যজনক কারনে ওই ড্রেজার ব্যবসায়ী চক্রগুলোর বিরুদ্ধে কোন প্রকার মামলা না করায় দিন দিন বেপরুয়া হয়ে উঠছে এ চক্রটি। অল্প সময়ে এ ব্যবসা লাভজনক হওয়ায় কাচা টাকা আয়ের উৎসর মাধ্যম হিসেবে অবৈধ ড্রেজার দিয়ে মাটি-বালি উত্তোলনের সাথে স্থানীয় প্রভাবশালী রাজনৈতিক দলীয় নেতা, ইউপি সদস্য (সাবেক ও বর্তমান ওয়ার্ড মেম্বারাও) জড়িত রয়েছে।

ড্রেজার ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, মাসোয়ারা দিয়েই চলছে এ অবৈধ ড্রেজার মেশিন। মাসোয়ারা না দিলে অভিযান চালিয়ে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যেমে ওইসব ড্রেজার মেশিন জব্দ করা হয়! মাসোয়ারা দিলে সচল থাকে ড্রেজার মেশিন! তাদের কাছ থেকে মাসোয়ার নামে করছে লক্ষ-লক্ষ টাকার চাঁদাবাজি। ড্রেজার বসিয়ে পাইপ লাইন টানার সাথে সাথে এসে হাজির হয় স্থানীয় প্রভাবশালী ও রাজনৈতিক নেতা, জনপ্রতিনিধি, ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা (তহসিলদার), গ্ৰাম পুলিশ সহ সকলের সাথে সমন্বয় করেই চলছে মাটি উত্তোলনের ব্যবসা।

পুলিশ আসে টাকা নিয়ে চলে যায়। ভরাট কাজ শুরুতে গিয়ে দেখা করতে হয় বড় বড় সাংবাদিকদের অফিসে। দেখা করলেই বলেন ড্রেজার চালাচ্ছেন ভালো কথা চালান সমস্যা নেই! তবে সমন্বয়ের মাধ্যমে চালান কেউ নিউজ করবেনা! অভিযোগও করবেনা বলে আশ্বাস পেয়ে মোটা অংকের অর্থ লেনদেন করার পরেও ভরাট কাজ শেষ না হতেই রক্ষা পাওয়া যায় না, অভিযান চালিয়ে সব ধংস করে দেয়। আবার প্রাইভেটকার ও মোটর সাইকেলে করে এসে গলায় কার্ড ঝুলিয়ে হাতে ক্যামেরা এবং একটা মাইক্রোফোন নিয়ে হাজির হয়ে পরিচয় দেয় আমি সাংবাদিক, ‘টিভি চ্যানেল ও পত্রিকায় কাজ করি। টাকা না দিলে নিউজ করবে, ইউএনও অফিসে অভিযোগ করবে বলে টাকা নিয়ে চলে যায়।

মাঝে মধ্যে সহকারী কমিশনার (ভূমি) এসিল্যান্ড গিয়ে ড্রেজার মেশিন ও ব্যবহৃত যন্ত্রাংশ জব্দ করেন। নামধারী কতিপয় সাংবাদিকদের সঙ্গে সমন্বয়ের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা অভিযানে বের হলে ঘটনাস্থলে পৌছাঁর আগেই খবর চলে যায় ড্রেজার ব্যবসায়ীদের কাছে। যার ফলে ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদেরকে পাওয়া যায়না। তবে ব্যবসায়ীদের না পেলেও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা তার অভিযান শেষে অবৈধ ড্রেজার মেশিন জব্দ করে নিয়ে আসার কয়েক ঘন্টার মধ্যেই আবারো সেখানে বসানো হয় নতুন করে অবৈধ ড্রেজার মেশিন। বর্তমানে এখন সাংবাদিকতার নামে “সাংঘাতিকতা” চলছে, এই রকম আদার ব্যাপারিদের জন্য তো সাংবাদিকতা নয়, প্রকৃত সাংবাদিকদের জন্যই সাংবাদিকতা।

ভুক্তভোগী অনেক কৃষকই অভিযোগ করে বলেন, কৃষি জমিগুলো এখন শুধু নামেই আছে, বাস্তবে নেই। বালু আর মাটি খেকুরা সব শেষ করে দিয়েছে। এলাকায় প্রথমে ৫-৬ শতাংশ জমি কিনে সেখানে ড্রেজার বসিয়ে মাটি ও বালু উত্তোলন করছে বালুদস্যুরা। এ কারণে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। কেউ যদি ইচ্ছা করে জমি দিতে না চায়, তাহলে সেখান থেকে জোর পূর্বক মাটি কাটা শুরু করে শেষ পর্যন্ত ড্রেজার মালিকদের নিকট কমমূল্যে জমি ছেড়ে দিতে বাধ্য হয় সাধারণ কৃষক। ড্রেজার সিন্ডিকেটরা জমির মালিকদের বিভিন্ন ভাবে হুমকি-ধমকি দিয়ে জিম্মি করে রাখে এবং রাজনৈতিক নেতাদের নাম ভাংগায়। ফলে তাদের ভয়ে কেউ কোন অভিযোগ করে না। দু’একবার প্রশাসনের অভিযান পরলেও পরবর্তীতে আর কোন পদক্ষেপ নেওয়া হয় না ফলে স্থানীয়দের মুখে এখন একটাই শব্দ অভিযান কি তাহলে শুধুই লোকদেখানো?

এ বিষয়ে চান্দিনা উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) তাপশ সীল জানান, কিছু দিন পূর্বে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে অভিযান চালিয়ে অবৈধ ড্রেজার বন্ধ করা হয়েছে। তাছাড়া অভিযোগ পাওয়ার সাথে সাথেই ব্যবস্থা নিয়ে থাকি। এ অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি।

Previous articleনূপুর শর্মাকে গ্রেফতারের আবেদন শুনলই না ভারতের সুপ্রিম কোর্ট
Next articleটাঙ্গুয়ার হাওর পরিদর্শনে আপিল বিভাগ ও হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতিগন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।