মাসুদ রানা রাব্বানী: ধারদেনা করে পৈত্রিকসূত্রে পাওয়া ২৭ শতাংশ জমিতে আমন ধানের চাষ করেছিল আব্দুল্লাহ। কেবল গাছগুলোর পেটে শীষ আসতে শরু করেছে। কিন্তু জমি দখলের অজুহাতে সন্ধ্যার সময় প্রকাশ্যই প্রায় অর্ধেক জমির সব গাছ কেটে ফেলে প্রতিপক্ষরা। এক দিন আগেও তরতাজা ফসলের গাছের পরিচর্যা করে গেছেন রাজশাহী মহানগরীর শাহমখদুম থানার ভূগরইল এলাকার মৃত্যু আতাউর রহমানের ছেলে আব্দুল্লাহ(৩৫)। কিন্তু পরের দিন গত ৯ সেপ্টেম্বর শুক্রবার প্রত্যাক্ষদর্শীর নিকট থেকে খবর পেয়ে জমিতে এসে গাছগুলো কাটা দেখে কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে আহাজারি

করেন আব্দুল্লাহ। এ সময় আশপাশে জড়ো হয়ে ছিলেন এলাকাবাসী ও কৃষকেরা। এ জঘন্য ঘটনায় নির্বাক ও ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী প্রশাসনের কাছে অপরাধীদের কঠোর শাস্তি দাবি করেন। তারা বলেন, ধানের গাছের সাথে এ কেমন শত্রুতা। সরেজমিনে দেখা যায়, ২৭শতাংশ জমির প্রায় অর্ধেক গাছের গোড়া কেটে দেওয়া হয়েছে। গাছগুলো কাটা ঘাষের মত হয়ে পড়ে রয়েছে। প্রতিটি গাছের পেটে কেবলই শীষ এসেছে। কাটা গাছগুলো বুকে নিয়ে আহাজারি করছেন আব্দুল্লাহ।

এ বিষয়ে কৃষক আব্দুল্লাহ অভিযোগ করে জানান, ভুগরইল মৌজার খ্রিস্টান পাড়ায় অবস্থিত দাগ নং ৩২২ এবং আরএস খতিয়ান নং ১৪২ তে আমিসহ আমার এক ভাই ও দুই বোনের নামে আমার বাবার সুত্রে পেয়ে প্রায় ১৫ বছর যাবত ও খারিজ করে খাজনা পরিশোধ করে ভোগ দখল করছি। গত প্রায় দুই মাস থেকে ভুগরইল এলাকার মৃত খলিলের দুই ছেলে আশরাফ আলী (৫০) ও ইসলাম (৫৫) এবং ইসলামের ছেলে আহাদ আলী (২৫) উক্ত জমি নিজেদের বলে দাবি করছে এবং দখল করার চেষ্টা করছে। আমরা তাদের নিকট কাগজ পত্র দেখতে চাইলে তারা কাগজ পত্র দেখাতে পারছেনা। এরই মধ্যে আমার রোপনকৃত ধানের জমিতে বিবাদিরা হুমজিকেলি প্রবেশ করে ধানের গাছগুলো কর্তণ করে। এতে আমার খতির পরিমাণ প্রায় ২০ হাজার টাকা বলে আব্দুল্লাহ জানান। এ

বিষয়ে শাহমখদুম থানার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ মেহেদী হাসানা জানান, এ ব্যপারে আমার জানা নাই তবে লিখিত অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Previous articleকলাপাড়ায় অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে বাস যাত্রী
Next articleআরএমপি’র ‘সাইবার ক্রাইম ইউনিট’র দুই বছর
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।