বাংলাদেশ প্রতিবেদক: একজনের এনআইডি ব্যবহার করে চাকুরী করেন দুই ভাই , মুক্তিযোদ্ধা কোটার সুবিধা পেতে স্ত্রীকে বানিয়েছেন বোন । স্ত্রী হয়ে নিজের শ্বশুর-শাশুড়িকে ক্ষেত্রে আপন মনে না করার দূষিত সমাজেও কাগজে-কলমে বানিয়েছেন আপন বাবা-মা!

চাকরিতে দুই ভাইয়ের নাম একই হয়েছে শুধু তাই নয়, আনিছুর রহমানের স্ত্রীকে নিজের বোন হিসেবে পরিচয় দিয়ে বানানো হয়েছে পরিচয় পত্রও। সেই সুবাদে আনিছুরের স্ত্রী সোনালী খাতুনের শ্বশুর- শাশুড়ি হয়েছেন আপন বাবা-মা!

এমন অসম্ভবকে সম্ভব করে চাঞ্চল্যকর ঘটনার জন্ম দিয়েছেন কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার সন্তোষপুর ইউনিয়নের বাসিন্দা বীর মুক্তিযোদ্ধা আইনুল হকের দুই ছেলে আনিছুর রহমান ও আজিজুল হক।

বীর মুক্তিযোদ্ধা আইনুল হকের দুই ছেলে আনিছুর রহমান এবং আজিজুল হক তথ্য গোপন করে সরকারি চাকরিতে যোগদান করেন। আলাদা আলাদা ছবি ও তথ্য দিয়ে দুটি নম্বরে জাতীয় পরিচয় পত্র হলেও এনআইডিতে দুই ভাইয়ের একই নাম।

২০১২ সালে রংপুর বেতারে আনিছুর রহমান অফিস সহায়ক পদে চাকরি নেন। আর আজিজুল হক ২০১৪ সালে বাংলাদেশ রেলওয়ে ওয়েম্যান পদে অষ্টম শ্রেণী পাস দেখিয়ে চাকরি নেন।

চাকরি হওয়ার পর আজিজুল হক তার পঞ্চম শ্রেণী পাশের তথ্য গোপনের আশ্রয় নেন। আজিজুল হক তার নিজের ভোটার আইডি সংশোধন করে নতুন আইডিতে বড় ভাই আনিছুর রহমানের সব তথ্য উপাত্ত দিয়ে দেন। তিনি পড়াশোনা না করেও বড় ভাই আনিছুর রহমানের অষ্টম শ্রেণী পাসের সনদ ব্যবহার করেন। আগের ভোটার আইডিতে আজিজুল হকের জন্ম সাল ছিল ৫ এপ্রিল ১৯৮৭ সাল পেশা ছিল কৃষক, পরে দুই ভাইয়ের জন্ম তারিখ একই করা হয়।

এ নিয়ে ২০১৪ সালে এনআইডিতে তথ্য গোপন করে চাকরির বিষয়টি বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হলে পরে তদন্ত করে নির্বাচন কমিশন দুই ভাইয়ের নামে জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন আইনে মামলার নির্দেশ দেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে ২০২১ সালের ৩১ জানুয়ারি উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন বাদী হয়ে একটি মামলা করেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়,কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার সন্তোষপুর ইউনিয়নের বাসিন্দা মুক্তিযোদ্ধা আইনুল হকের ৮ ছেলে-মেয়ে। এর মধ্যে বড় ছেলে আনিছুর রহমান রংপুর বেতারে অফিস সহায়ক পদে চাকরি করেন।

এদিকে সোনালী খাতুন একই জেলার উলিপুর উপজেলার গুনাইগাছ ইউনিয়নের নাগড়াকুরা গ্রামের মৃত রবিউল ইসলামের সব ছোট মেয়ে । ২০০৭ সালে সোনালী-আনিছুরের বিয়ে হয় এরপর তারা হন স্বামী-স্ত্রী কিন্তু কিছুদিন পরেই সেই স্ত্রীকে বানানো হয় বোন।

স্থানীয়রা জানিয়েছে, বিয়ের পর স্থানীয় সাপখাওয়া দাখিল মাদ্রাসায় ২০১০-১১ শিক্ষাবর্ষে অনিয়মিত শিক্ষার্থী হিসেবে ভর্তি হন আনিছুরের স্ত্রী সোনালী। শ্বশুর-শাশুড়িকে বানান বাবা-মা। এরপর জিপিএ ২ দশমিক ৯৪ পেয়ে ২০১৩ সালে উত্তীর্ণ হন তিনি। পরের বছর সেই সনদ ও ভুয়া জন্ম নিবন্ধন দেখিয়ে ভোটার হন। এতেও শ্বশুর মুক্তিযোদ্ধা আইনুল হককে পিতা ও শাশুড়ি জমিলা বেগমকে নিজের মা হিসেবে তথ্য দেন।

এদিকে স্থানীয় গ্রাম পুলিশ জহুরুল হক নিশ্চিত করেছেন, সোনালী খাতুন মুক্তিযোদ্ধা আইনুল হক এবং জামিলা বেগমের সন্তান নন, মূলত তাদের ছেলের বউ।

এ ব্যাপারে তিনি জানান, আনিছুর রহমান আমার বন্ধু। সোনালী খাতুন তার স্ত্রী। সোনালীর বাবার বাড়ি উলিপুর উপজেলায়।

মুক্তিযোদ্ধা আইনুল হকের আরেক ছেলে খালেক বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, সোনালী খাতুন তার ভাবী। মুক্তিযোদ্ধার সুযোগ-সুবিধা পেতেই ভাই-ভাবি এমনটি করেছেন।

এ ব্যাপারে সন্তোষপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী লাকু বলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা আইনুল হকের ৮ ছেলে-মেয়ের মধ্যে সোনালী নামে কোনো সন্তান নেই। এই নামে তার পুত্রবধূ আছেন। তিনি আনিছুর রহমানের স্ত্রী।

এ ব্যাপারে আনিছুর রহমান জানান, স্ত্রীকে বোন বানানোর বিষয়টি ভুলবশতঃ হয়েছে। তার স্ত্রী এমনটা করেছেন।

তবে এ বিষয়ে কথা বলতে অস্বীকৃতি জানান আনিসুরের স্ত্রী সোনালী খাতুন।

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন জানান, ২০১৪ সালে ভোটার হালনাগাদ করার সময় সোনালী খাতুন এসএসসি সনদ এবং জন্ম নিবন্ধনের তথ্য দিয়ে ভোটার হন। তথ্য গোপন করার বিষয়ে কেউ কোনো লিখিত বা মৌখিক অভিযোগ করেননি।

Previous articleহাতীবান্ধায় যৌতুকের জন্য গৃহবধুকে নির্যাতন, থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের
Next articleশেখ হাসিনার জন্মদিন উদযাপন জবি নীলদলের
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।