লিটন মাহমুদ: মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলা ধর্ম অবমাননার মামলায় সাবেক এক ছাত্রলীগ নেতাকে কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ।

সাবেক ওই ছাত্রলীগ নেতার নাম শাহিন পাঠান(৪৫)।সে উপজেলার বাউশিয়া ইউনিয়নের মৃত সুরুজ পাঠানের ছেলে । সে বাউশিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এবং গজারিয়া উপজেলা শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক বলে জানা গেছে।

গজারিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোল্লা সোহেব আলী জানান, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে গতকাল ( ২৮ সেপ্টেম্বর, বুধবার) শাহিন পাঠান একটি পোস্ট করেন। তার ঐ পোস্টে আল্লাহ্পাক সম্পর্কে স্পর্শকাতর মন্তব্য ছিল। এদিকে পোস্টটি দেখার পরে এলাকাবাসীর মনে তীব্র ক্ষোভের সঞ্চার হয়। বিষয়টি নিয়ে গজারিয়া উপজেলা শাখা ছাত্রলীগের বর্তমান
সাধারণ সম্পাদক ইউনুস প্রধান থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ শাহিন পাঠানকে আটক করে। তাকে আটকের পরে ব্যাপক জিজ্ঞাসা করা হয় তবে শাহিন পাঠান অনুতপ্ত না হয়ে তার অবস্থানে অনর থাকেন। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ঘটনার সত্যতা পাওয়া যায়। এ ঘটনায় ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত, ধর্ম অবমাননা এবং সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা সৃষ্টি করার চেষ্টার বিষয়টি নিশ্চিত হতে পারেন তারা। ধর্ম অবমাননার মামলায় তাকে আটক দেখিয়ে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

এদিকে মামলার বাদী উপজেলা ছাত্রলীগের বর্তমান সাধারণ ইউনুস প্রধান বলেন, তার এই পোস্টের কারণে এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়। বিষয়টিকে ইস্যু বানিয়ে চলে যাতে কেউ বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে না পারে সেজন্য তিনি নিজে থানা অভিযোগ করেছেন যাতে আইনের মাধ্যমে বিষয়টি সমাধান হয়। ইতোমধ্যে তাকে আটক করা হয়েছে এবং তার ব্যবহৃত মোবাইল এবং ল্যাপটপ জব্দ করেছে পুলিশ।

এদিকে শাহিন পাঠানের বিতর্কিত মন্তব্যের কারণে চাপা উত্তেজনা বিরাজ করছে এলাকায়। বিষয়টি নিয়ে কর্মসূচি দেওয়ার চিন্তাভাবনা করছে একাধিক ইসলামিক সংগঠনের নেতা কর্মীরা। তবে শান্তি-শৃঙ্খলার কথা চিন্তা করে সকল পক্ষকে শান্ত থাকার পরামর্শ দিয়েছেন গজারিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোল্লা সাহেব আলী।

Previous articleসিরাজদিখানে কবর থেকে ৩ মাস পর নারীর লাশ উত্তোলন
Next articleশাহজাদপুরে সাফ জয়ী ফুটবলার আঁখি খাতুনকে সংবর্ধনা প্রদান
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।