ফজলুর রহমান: রংপুরের পীরগাছায় আত্মস্বীকৃত রাজাকারকে কৌশলে বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি নির্বাচন করে প্রধান শিক্ষক জামাই কর্মচারি নিয়োগ বানিজ্য নিয়ে ব্যস্ত। নিয়োগ বানিজ্য নিয়ে ব্যস্ত থাকায় বিদ্যালয়ে দিন দিন হ্রাস পাচ্ছে শিক্ষার্থী।

রাজাকার পরিবারটিকে ওই বিদ্যালয়ে পুনর্বাসন করতে মরিয়া প্রধান শিক্ষক জাহাঙ্গীর কবির । অভিযোগে জানা যায়, উপজেলার নটাবাড়ী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে বিগত ২০১৯ সালে জাহাঙ্গীর কবির সরকার সহকারি শিক্ষক হতে বর্তমান প্রধান শিক্ষক হিসাবে নিয়োগ পান। তিনি প্রধান শিক্ষক হিসাবে নিয়োগের পর বিদ্যালয়ে কর্মচারি নিয়োগসহ একের পর এক নানা অনিয়মে জড়িয়ে পড়েন।

জাহাঙ্গীর কবির সরকার প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ পাওয়ার পর নিজের ইচ্ছে মত একটি পকেট কমিটি করেন। ওই কমিটির সভাপতি করেন নিজের শ্বশুর আত্মস্বীকৃত রাজাকার মাওলানা শামসুল হককে। পরে ম্যানেজিং কমিটির সদস্য হন শ্বশুরের বড় ভাই, ছোট ভাই, শ্যালক ও ভায়রা ভাই। ওই এলাকার বীর মুক্তিযোদ্ধা, বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ও অনেক শিক্ষানুরাগী থাকার পরও নিজের স্বার্থ হাসিলের উদ্দেশ্যে স্বাধীনতা যুদ্ধের বিতর্কিত ব্যক্তি রাজাকারকে সভাপতি করেন। প্রধান শিক্ষক পকেট কমিটির মাধ্যমে সর্বোচ্চ গোপনীয়তা রক্ষা করে বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারি নিয়োগ বিধিকে বৃদ্ধাংগুলি দেখিয়ে আয়া পদে মাজেদা বেগম ও পরিচ্ছন্নতা কর্মী হিসেবে শাহীন আলমকে নিয়োগ দিয়েছেন । এরই মধ্যে বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে ওই বিদ্যালয়ে ৬/৮ জনকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে । নটাবাড়ী মাধ্যমিক বিদ্যালয়টি পারিবারিক বিদ্যালয়ে পরিনত করেছেন প্রধান শিক্ষক ।

জাহাঙ্গীর কবির প্রধান শিক্ষক হিসেবে নিয়োগের পর হইতে ওই বিদ্যালয়ে জাতীয় কোন দিবস বা কর্মসুচি পালন করা হয় না । এই মর্মে আদালতে একটি মামলা চলমান আছে। বিদ্যালয়টিতে নেই কাংখিত সংখ্যক শিক্ষার্থী । ৮/১০ জন শিক্ষার্থী নিয়ে চলছে নটাবাড়ী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পাঠদান কার্য়ক্রম । এ বিষয়ে স্থানীয়রা একাধিক দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করেছেন। এছাড়াও একাধিকবার মানব বন্ধন, মিছিল ,মিটিং ও সংবাদ সম্মেলন করেও কোন কাজ হচ্ছে না ।

স্থানীয়দের সাথে কথা হলে তারা জানান, যে প্রতিষ্ঠানে আত্মস্বীকৃত রাজাকার সভাপতি সেই প্রতিষ্ঠানে আমাদের সন্তানদেরকে বিকৃত ইতিহাস জানার জন্য কি ভর্তি করাব? তারা আরো বলেন মাওলানা শামসুল হক এই এলাকার একজন কুখ্যাত রাজাকার ছিল এটা কার জানার বাকী আছে । সেই রাজাকার স্কুলের সভাপতি আর তারই জামাই হলো প্রধান শিক্ষক, তারা দায়িত্বে থাকতে আমরা কোন অবস্থাতেই শিক্ষার্থী ভর্তি করাতে পারি না । সেই আত্মস্বীকৃত রাজাকার ও নটাবাড়ী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মাওলানা শামসুল হক বলেন অভাবের কারণে আমি রাজাকারে গেছিলাম।

উপজেলার ইটাকুমারি ইউনিয়নের কালিগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ক্যাম্প করে সেখানে ছিলাম । দেশ স্বাধীনের পরে দীর্ঘ দিন পীরগাছা থানায় আমাকে হাজিরা দিতে হয়েছে । আমি নটাবাড়ী স্কুলের সভাপতি না হলে আমার রাজাকারের বিষয়টি কেউ সামনে নিয়ে আসত না ।

উপজেলার নটাবাড়ী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জাহাঙ্গীর কবির সরকার সাংবাদিক পরিচয় পাওয়া মাত্র কোন মন্তব্য না করে বলেন আমি মিটিংয়ে আছি পরে আপনার সাথে কথা বলব ।

Previous articleআ’লীগকে পরাজিত করার দুঃস্বপ্ন দেখে কোনো লাভ নেই: কাদের
Next articleকেশবপুরে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ক্রীড়া সামগ্রী ও হুইল চেয়ার বিতরণ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।