আহম্মদ কবির: মাছ,গাছ, জলজ প্রাণী ও উদ্ভিদ,বলতে গেলে টাঙ্গুয়ার হাওরের মূল্যবান সব সম্পদই দিনের পর দিন হারিয়ে যাচ্ছে। এতে ধীরেধীরে ম্লান হয়ে যাচ্ছে এই হাওরের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য। হারিয়ে যেতে বসেছে সুনামগঞ্জের অন্যতম একটি পর্যটন স্পট।এর অন্যতম কারণ হচ্ছে হাওরটি অরক্ষিত,এর জন্য নিয়মনীতি তোয়াক্কা না করে যে যার মতো ধ্বংসাত্মক কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।আর এসব ধ্বংসাত্মক থাবায় উজাড় হচ্ছে এই হাওরের জীববৈচিত্র‍্য। তবে টনক নড়ছে না সংশ্লিষ্ট কারো।কাগজে-কলমে বা বিভিন্ন-সমাবেশে হাওরের জীববৈচিত্র‍্য সংরক্ষণে তৎপরতা দেখালেও প্রকৃতপক্ষে অভিভাবক শূন্য এ হাওর।

মৃত্যুদশায় থাকা এই টাঙ্গুয়ার হাওর নিয়ে স্থানীয় সচেতন মহলেও রয়েছে চিন্তিত। তাদের কথা মতে উঠে এসেছে টাঙ্গুয়ার হাওরের সমস্যা ও সম্ভাবনার নানা কথা।তারা জানান একটি প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকায় উন্নয়ন প্রক্রিয়ার অংশ হিসাবে ফসল রক্ষার নামে প্রতি বছরেই বাঁধে মাটি দিতে কাটা হয় কান্দা। এতে ঝুঁকিতে পড়ছে কান্দায় প্রাকৃতিকভাবে গজে উঠা অসংখ্য গাছগাছালি ও জীববৈচিত্র‍্য। কিন্তু হাওরের জীববৈচিত্র‍্য রক্ষায় এই কান্দা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখলেও,টাঙ্গুয়ার হাওরের মতো প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকায়,ফসল রক্ষা বাঁধে মাটি দিতে সেই কান্দার মাটি কেটে নেওয়া হয়।পরিহাসের বিষয় যে,ফসলহানির ঝুঁকি ঠেকাতে গিয়ে দিনের পর দিন ঝুঁকিতে ফেলা হচ্ছে এই পরিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকা টাঙ্গুয়ার হাওরের পরিবেশ ও জীববৈচিত্র‍্যকে।

পরিবেশবাদীদের মতে উন্নয়নের নামে এসব কাজ অনভিপ্রেত। জানাযায় লিখিতভাবে টাঙ্গুয়ার হাওরে ফসল রক্ষার বেড়িবাঁধের কোন প্রকল্প না থাকলেও বর্ধিত গুরমা নামে ২৯টি ফসল রক্ষা বেড়িবাঁধ প্রকল্পের মধ্যে ২০টি টাঙ্গুয়ার হাওরের ভেতর দিয়ে বা পাশ দিয়ে গেছে।আর এসব বেড়ি বাঁধের মাটি দিতে এক্সভেটর মেশিন ব্যবহার করে হাওরের উদ্ভিদ ও জীববৈচিত্র‍্য আরও ঝুঁকিতে ফেলা হচ্ছে।শুধু তাই নয়,এসব বাঁধের মাটি ও পাহাড়ি ঢলে ওপার থেকে নেমে আসা বালির কারণে ভরাট হচ্ছে হাওর ও তৎসংলগ্ন নদী।নষ্ট হচ্ছে মাছের অভয়াশ্রমগুলো। এর সাথে বিঘ্নিত হচ্ছে মাছের স্বাভাবিক চলাচল। এছাড়াও হাওরের অভয়াশ্রম গুলোতে নেই পর্যাপ্ত কাঠাবাঁশ।যার ফলে এসব অভয়াশ্রমে বর্ষা মৌসুমে ভাসমান পানিতে নিষিদ্ধ জাল দিয়ে মা ও পোনামাছ নিধনের প্রতিযোগিতা চলে দিনে রাতে।স্থানীয় কিছু দাঙ্গাবাজ দালালদের ছত্রছায়ায় এসব মাছ নিধন হলেও নানা অজুহাতে মৎস্য বিভাগ নির্বিকার। অথচ ওইসব মাছ স্থানীয় বাজারে বিক্রি হচ্ছে দেদারছে। কিন্তু খোঁজ পায়না স্থানীয় মৎস্য বিভাগসহ প্রশাসন। এমন অভিযোগ স্থানীয়দের।হাওরে নামমাত্র পাঁচটি মাছের ও দুটি পাখির অভয়াশ্রম থাকলেও প্রতি বছরেই মাছ লূটে নেয় এসব অভয়াশ্রম থেকে স্থানীয় অবৈধ জেলেরা।তারা বলেন এই হাওর নিয়ে বিভিন্ন সভা-সেমিনারে গুনিজনরা হাওরের উন্নয়নে যেসব আলোচনা করেন তার সিকিভাগই যদি বাস্তবায়ন হতো,তাহলে এমন বেহাল দশায় পড়তে হতো না,এক সময়ের জীববৈচিত্রের নির্ভরযোগ্য প্রাকৃতিক সম্পদের এই অভয়াশ্রম।

টাঙ্গুয়ার হাওর বাংলাদেশে বৃহত্তম গ্রুপ জলমহালগুলোর অন্যতম।এই হাওরে মোট ৫১টি জলমহালের মধ্যে বড় দুটি জলমহাল ইজারাদারদের নিয়ন্ত্রণাধীন,এছাড়াও কয়েকটি ভরাট হয়ে বর্তমানে অভয়াশ্রম সহ মোট ৪৭টি বিলের অস্তিত্ব দেখা মিলে।এই হাওরের মোট আয়তন ৬,৯১২.২০একর।তবে নলখাগড়া বন,হিজল করচ বনসহ বর্ষাকালে সমগ্র হাওরটির আয়তন দাঁড়ায় প্রায় ২০,০০০একর।

স্থানীয় তথ্যমতে জানাযায় এক সময় এই হাওরে পাওয়া যেতো নলখাগড়া,দুধিলতা,লীল শাপলা,পানিফল,শোলা,হেলঞ্জা,শতমূলী,শীতলপাটি, স্বর্ণলতা, বনতুলসী সহ প্রায় দুইশত প্রজাতিরও বেশী গাছগাছালি,প্রায় দেড়শতাধিক প্রজাতির মাছের অভয়াশ্রম ছিল এই টাঙ্গুয়ার হাওর।গেল কয়েক বছরে বিলুপ্ত হয়েছে প্রায় ৫০প্রজাতির মাছ, আরও কিছু প্রজাতি বিলুপ্ত হওয়ার পথে রয়েছে। একই সঙ্গে কমছে বিভিন্ন সরিসৃপ ও উভচর প্রাণীর সংখ্যা।তারা জানান টাঙ্গুয়ার হাওরের জীববৈচিত্র‍্য রক্ষায় দ্রুত পদক্ষেপ না নিলে সামনে অনেক বড় ক্ষতি হয়ে যাবে।

সরেজমিনে ঘুরে জানাযায় বর্ষা কিংবা শুষ্ক মৌসুমে বিশাল এই হাওরটির প্রাকৃতিক রূপ সৌন্দর্য উপভোগ করতে দেশ বিদেশের প্রকৃতিপ্রেমিরা ছুটে আসেন। কিন্তু একটি মাত্র ওয়াচ-টাওয়ার ও একটি ব্যবহার অনুপযোগী গনশৌচাগার ছাড়া নেই কোন দিকনির্দেশনা, নেই পরিচিত সম্বলিত সাইনবোর্ড কিংবা পথনির্দেশক। এ কারণে ভ্রমন পিপাসুরা প্রায়শই বিভ্রান্ত হচ্ছেন।অরক্ষিত এই হাওরের রূপ সৌন্দর্য দর্শনে যে যার মতো করে ইঞ্জিন চালিত নৌকায় হাওরে অগোছালোভাবেই ঘুরে বেড়ান এবং কোমল পানীর বোতল সহ বিভিন্ন প্লাস্টিক পানির বোতল ওয়ান-টাইম প্লাস্টিক গ্লাস,চিপস -চানাচুরের প্যাকেটসহ অসংখ্য প্লাস্টিক সামগ্রী নির্দ্বিধায় হাওরের পানিতে ফেলছেন,এ হাওরটির পরিবেশ বিপর্যয়ের বিষটি বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রায়ই সংবাদ শিরোনাম হলেও,নেওয়া হয়নি বাস্তবমুখী কোন পদক্ষেপ।অথচ সরকার উদ্যোগী হলে বছরান্তে শুধু পর্যটন খাত থেকে কয়েক কোটি টাকা রাজস্ব আয় করা সম্ভব হতো।

এ ব্যাপারে টাঙ্গুয়ার হাওর এলাকার নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক প্রবীণ মুরব্বি জানান, টাঙ্গুয়ার হাওরে বর্তমানে যেভাবে মৎস্য নিধনসহ হাওরের পরিবেশ ধ্বংসাত্মক কাজ হচ্ছে,এতে হাওর পারে বসবাস আমাদের জন্য হুমকি হয়ে যাবে।সরকার হাওরের জীববৈচিত্র‍্য সংরক্ষণে এখনো কোন পদক্ষেপ না নিলে হাওর পাড়ে বসবাস আমাদের জন্য অনুপযোগী হবে।

এ ব্যাপারে টাঙ্গুয়ার ওয়াচ-টাওয়ার সংলগ্ন জয়পুর গ্রামের আবুল কালাম নামের এক চা বিক্রেতা বলেন,টাঙ্গুয়ার হাওরে মাছ ধরা বাদ দিয়ে,পর্যটকগনের কাছে চা বিস্কুট বিক্রি করে আয়-রোজকার করার চেষ্টা করছিলাম কিন্তু পর্যটকবাহী নৌকা ওয়ালারা চা বিস্কুট সহ সব কিছু নিয়ে আসে,আমরা কিছুই বিক্রি করতে পারিনি,এই পর্যটন এলাকায় থেকে আমাদের লাভ কি আবার মাছ ধরায় যেথে হবে।

হাওর পাড়ের একাধিক সুশীল সমাজ প্রতিনিধি জানান প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকা ঘোষিত এই হাওরে পরিবেশ ধ্বংসাত্মক যে কার্যক্রম চলছে তা রোধ করা না গেলে,টাঙ্গুয়ার হাওরের মতো দেশের একটি বিশাল সম্পদ ধ্বংস হয়ে যাবে।টাঙ্গুয়ার হাওরের জীববৈচিত্র‍্য রক্ষায় দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়ার দাবি জানান তারা।

Previous articleকলাপাড়া ভুমি অফিসে সেবার নামে চলছে ঘুষ-লেনদেন, খাস জমিতে বহুতল ভবন নির্মান
Next articleনোয়াখালীতে ৫ বছরের সাজা প্রাপ্ত আসামি গ্রেফতার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।