পাভেল মিয়া: কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার বড়ভিটা ইউনিয়নের পশ্চিম ধনিরাম এলাকার দেখা দিয়েছে ধরলার তীব্র ভাঙন। ভাঙনে নদী গিলছে বসতভিটা, ফসলি জমিসহ বিস্তৃর্ণ এলাকা। অব্যাহত ভাঙনরোধে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহনের দাবিতে মানববন্ধন করেছেন ভাঙন কবলিত এলাকার বাসিন্দারা।

শুক্রবার সকাল সাড়ে দশটায় উপজেলার বড়ভিটা ইউনিয়নের পশ্চিম ধনিরাম গ্রামের মেলেটারির চর এলাকায় অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে শত শত নারী পুরুষ অংশ নিয়ে ভাঙনরোধে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি জানান।
ভাঙনে বসতভিটা ও ফসলি জমি হারিয়ে নিঃস্ব আলতাফ হোসেন বলেন, গত প্রায় একমাস থেকে এই এলাকায় ধরলার ভাঙন তীব্র আকার ধারণ করেছে। ভাঙনে আমার বসতভিটা ও ফসলি জমি নদীতে বিলীন হয়েছে। আমি পরিবার নিয়ে এখন মানবেতর জীবনযাপন করছি। আমি ভাঙন রোধে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানাচ্ছি।

মহির উদ্দিন নামের অপর একজন বলেন, নদীর ভাঙনের কারণে এপর্যন্ত আমি ষোল বার আমার বসতভিটা হারিয়েছি। এবারের ভাঙনেও আমার বসতভিটা নদীতে বিলীন হয়েছে। এখন আর আমার বসতি গড়ে তোলার কোন জমিজমা নাই। পরিবার নিয়ে কোথায় যাব ভেবে পাচ্ছি না।

স্থানীয় ইউপি সদস্য ইলিয়াস হোসেন বলেন, আমার এই ওয়ার্ডের প্রায় তিন কিলোমিটার এলাকা জুড়ে ধরলার ভাঙন দেখা দিয়েছে। ধরলার ভাঙনে এ অঞ্চলের চল্লিশটিরও বেশি পরিবার ঘরবাড়ি হারিয়েছেন। বর্তমানে দিশেহারা অবস্থা তাদের। এখনও শতাধিক পরিবার ভাঙন আতঙ্কে আছেন। আমন ধানের খেত, ভুট্টা ও কলার খেতসহ শতশত বিঘা ফসলি জমি নদীতে বিলীন হয়েছে। এভাবে চলতে থাকলে গোটা মেলেটারির চর অচিরেই নদীতে বিলীন হয়ে যাবে। আমি এই মানববন্ধন কর্মসূচির মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট সকলের নিকট ভাঙনরোধে দ্রুত কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি জানাচ্ছি।

বড়ভিটা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মিন্টু বলেন, এই ইউনিয়নের ধরলা তীরের মানুষের দুঃখের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে ধরলার ভাঙন। নদীর অব্যাহত ভাঙনে দিনে দিনে দীর্ঘ হচ্ছে নিঃস্ব মানুষের তালিকা। আমি ভাঙন রোধে ব্যবস্থা নিতে উপজেলা প্রশাসনসহ পানি উন্নয়ন বোর্ডের সুদৃষ্টি কামনা করছি।

Previous articleদেশে করোনায় বেড়েছে মৃত্যু, কমেছে শনাক্ত
Next articleরংপুরে বিশ্ব মান দিবস পালিত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।