স্বপন কুমার কুন্ডু: ঈশ্বরদীর মুলাডুলি মাছের আড়তে দৈনিক মাছ বিক্রি কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে। ভোর থেকে মহাসড়কে হেড লাইট জ্বালিয়ে সারিবদ্ধ হয়ে দাঁড়িয়ে থাকে মাছবোঝাই পিকআপ ও ভটভটি। মুলাডুলি মৎস্য আড়ত এদের গন্তব্য । ভোর ৬টায় শুরু হয় বেচাকেনা। গাড়িচালকরা কে কার আগে আড়তে ঢুকবে এ নিয়ে ব্যস্ত।

শুক্রবার ভোরে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ক্রেতা-বিক্রেতার পদচারণায় মুখরিত সাছের আড়ত। শ্যালো মেশিনের ভটভট শব্দ আর আড়তদারদের মাছের দরদামের হাঁকডাকে সরগরম পুরো এলাকা। এখানকার নদী, পুকুর ও বিলের মাছের চাহিদা থাকায় স্বল্প সময়ে এ আড়ত পরিচিতি লাভ করেছে। আড়তে ঈশ্বরদী ছাড়াও পার্শ্ববর্তী আটঘরিয়া, চাটমোহর, নাটোরের বড়াইগ্রাম, লালপুর ও কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা উপজেলার মৎস্য চাষি ও ব্যবসায়ীরা মাছ বিক্রি করতে আসেন।

রুই, কাতল, চিতল, সিলভার, পাঙ্গাশ, আইড়, বাইন, কালবাউশ, পাবদা, কই, মাগুর, শিং, রিটা, শোল, কাচকি, টাকি, পুঁটিসহ বহু ধরনের মাছ এখানে পাওয়া যায়। মাত্র তিন ঘণ্টায় দৈনিক কোটি টাকার ওপরে আবার কোন কোন দিন দেড় কোটি টাকার মাছ বেচাকেনা হয়।

মুলাডুলির মামা-ভাগনে মৎস্য আড়তদার কবির মালিথা বলেন, চার বছরে মুলাডুলি আড়ত পরিচিত লাভ করেছে। এখানে চার থেকে পাঁচ উপজেলার মাছ আসে। ঢাকা, সিলেট, রংপুর, খুলনাসহ দেশের বিভিন্ন বিভাগীয় ও জেলা শহরের পাইকারি ব্যবসায়ীরা এ আড়তে মাছ কিনতে আসছে। প্রতিদিন তিন ঘণ্টায় কোটি টাকার ওপরে মাছ বিক্রি হয়।

বন্ধু মৎস্য আড়তের আড়তদার জাহাঙ্গির হোসেন বলেন, প্রতিদিন কোটি কোটি টাকার মাছ বেচাকেনা হয় এ আড়তে। এখানে কয়েক শত মানুষের কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হয়েছে। বর্ষায় পানি জলাবদ্ধতাসহ বেশ কিছু সমস্যা আছে। এগুলো নিরসন হলেই মাছের আমদানি আরও বাড়বে।

মৎস্য আড়তদার সমিতির সাধারণ সম্পাদক মাইনুদ্দিন হোসেন বলেন, মাত্র কয়েক বছরেই মুলাডুলি আড়ত ব্যবসায়ী ও চাষিদের মধ্যে সাড়া ফেলেছে। প্রতিদিনই মাছে বেচাকেনা বাড়ছে। আগামীতে আরও বেশি মাছ আমদানির জন্য আমরা উদ্যোগ নিয়েছি।

মুলাডুলি ইউপির চেয়ারম্যান আব্দুল খালেক মালিথা জানান, মুলাডুলিতে মৎস্য আড়ত গড়ে ওঠায় এ অঞ্চলের চাষি ও ব্যবসায়ীদের জন্য সুবিধা হয়েছে। স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত মাছ এ আড়তে বেচাকেনার ফলে এখানকার বেশকিছু মানুষের কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হয়েছে। মাছ আড়তের উন্নয়নের জন্য আমার সার্বিক সহযোগিতা অব্যাহত রয়েছে।

উপজেলা মৎস্য সম্প্রসারণ কর্মকর্তা জাকিয়া সুলতানা জানান, ঈশ্বরদীতে ২,৪৭৬টি পুকুর রয়েছে। এছাড়া উপজেলার পাশ দিয়ে পদ্মা নদী বহমান। এখানকার পুকুর ও নদীর মাছ স্থানীয় মৎস্য আড়ত এবং হাটবাজারে বেচাকেনা হয়। উপজেলার সবচেয়ে বড় মাছের আড়ত মুলাডুলি। প্রতিদিন এখানে প্রচুর মাছ বেচাকেনা হয়। এখানকার মাছ রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন জেলা শহরগুলোতে যায়।

Previous articleফুলবাড়ীতে মাদ্রাসাছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে শিক্ষক জেলহাজতে
Next articleকলাপাড়ায় নিজ ইউনিয়নে আবাসনের দাবীতে মানববন্ধন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।