অতুল পাল: বাউফলে ইলিশের অভয়ারণ্য হিসেবে ঘোষিত তেঁতুলিয়া নদীতে চলছে অবাধে ইলিশ শিকার। তেঁতুলিয়ায় ইলিশ প্রজনন নির্বিঘœ করতে ৭ থেকে ২৮ অক্টোবর পর্যন্ত ২২ দিনের ইলিশ শিকারে নিষেধাজ্ঞা দিলেও এক শ্রেণির অসাধু জেলেরা নৌ পুলিশের জ্ঞাতসারেই অবাধে ইলিশ শিকার করছে।

ইলিশ শিকারে বিরত থাকা জেলেরা বলছেন রক্ষকই এখন ভক্ষক হয়ে অনৈতিক সুবিধা নিয়ে কিছু জেলেদেরকে ইলিশ শিকারে উৎসাহিত করছেন। এমনকি আটককৃত জাল সামান্য পুড়িয়া বাকি জাল জেলেদের কাছেই বিক্রি করছেন। একটি সূত্র জানায়, বাউফলের দক্ষিণ প্রান্ত কালাইয়া ইউনিয়নের বগি খাল থেকে উত্তর প্রান্তের ধুলিয়া ইউনিয়নের চর বাসুদেবপাশা পর্যন্ত তেতুঁলিয়া নদীর ৪০ কিলোমিটার এলাকায় ছোট ছোট নৌকা ও ইঞ্জিনচালিত ট্রলার নিয়ে অবাধে মা ইলিশ শিকার করছে জেলেরা। মাছ ধরায় কৌশলগত হিসেবে নদীতে নামানো হয় অপ্রাপ্তবয়স্ক শিশুদের।

কালাইয়া ইউনিয়নের চর কালাইয়া, শৌলা ও বগি, নাজিরপুর ইউনিয়নের বড় ডালিমা, কচুয়া, ধানদী, নিমদী, তাঁতেরকাঠি, কেশবপুর ইউনিয়নের মমিনপুর, ভরিপাশা, ধুলিয়া ইউনিয়নের ধুলিয়া লঞ্চঘাট, মঠবাড়িয়া ও কাছিপাড়া ইউনিয়নের কারখানা ও বাহেরচর এলাকার নদী পাড়ে প্রকাশ্য বিক্রি হচ্ছে এসব ইলিশ। বর্তমানে ১ কেজি ওজনের মা ইলিশের হালি বিক্রি হচ্ছে ২ হাজার ৫০০ থেকে থেকে ৩ হাজার টাকায়। নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র জানায়, নৌ পুলিশের অভিযানে ব্যবহৃত স্পীডবোডের দুজন চালকসহ কয়েক দালাল পুলিশের হয়ে অনৈতিক সুবিধা নিয়ে জেলেদেরকে মাছ শিকারে উৎসাহিত করছে। জেলেরা ওই দালালদের মাধ্যমে নৌকা প্রতি ১০ হাজার টাকা নৌ পুলিশকে দেন। যারা টাকা দেন না তাদের উপরর চড়াও হয় নৌ পুলিশ।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক জেলে জানান, নিষেধাজ্ঞার প্রথম দিকে আমরা নদীতে নামিনি। কিন্তু নৌ পুলিশকে ম্যানেজ করে কিছু জেলেরা মাছ ধরে। এজন্য আমরাও নএখন নদীতে নামছি। নৌ পুলিশ যাদের কাছ থেকে টাকা খেয়েছে তাদের ধরে না। আমাদের উপর চরাও হয়। অপরদিকে মা ইলিশ রক্ষায় নৌ পুলিশের অভিযানে যে পরিমাণ অবৈধ কারেন্ট জাল জব্ধ করা হয় তার আংশিক পুড়িয়ে বাকি জাল জেলেদের কাছেই বিক্রি করা হয়। নৌ পুলিশের ভাড়া করা স্পীডবোডের স্বপন নামের এক চালক এসব জাল সংরক্ষণ ও বিক্রির কাজ করছে । জানা গেছে, ২ থেকে ১৫ হাজার টাকায় বিক্রি করা হয় জব্ধকৃত জাল।

জাল কিনে নেওয়া এক জেলে জানান, স্বপন পুলিশের স্পীডবোড চালায়। অভিযানে উদ্ধার করা জাল তার বাড়িতে থাকে। বিভিন্ন দামে স্বপন ওই জাল বিক্রি করে। আমি তার কাছ থেকে ৩ হাজার টাকার জাল কিনেছি। একইভাবে চন্দ্রদ্বীপ ইউনিয়নের কয়েকজন জেলেদের কাছে জাল বিক্রি করেছে স্বপন।

এবিষয়ে কালাইয়া নৌ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মো. লুৎফার রহমান বলেন, নৌ পুলিশের কেউ জড়িত থাকার তথ্য প্রমাণ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে। বাউফল উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মো. মাহবুবু আলম তালুকদার জানান, মা ইলিশ রক্ষায় মৎস্য বিভাগ কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছে। এর বাহিরে অন্য কোনো দপ্তর অনিয়ম করলে তার দায়ভার মৎস্য বিভাগ নিবে না।

Previous articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে র‍্যাবের অভিযানে ঘাতক ভুটভুটি চালক গ্রেফতার
Next articleউলিপুরে চুরি করতে গিয়ে প্রাণ গেল চোরের
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।