অতুল পাল: বাউফলে আলোচিত দুই যুবলীগ নেতা হত্যা মামলায় প্রধান আসামীসহ ৩২ আসামীর নাম বাদ দিয়ে আদালতে চাজশির্ট দাখিল করা হয়েছে। গত ২৭ অক্টোবর পটুয়াখালী চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মো. জামাল হোসেনের আদালতে ওই চার্জশিট দাখিল করা হয়। মামলার বাদির সাথে কথা না বলে এবং তাকে না জানিয়ে গোপনে ওই চার্জশিট দাখিল করা হয়েছে বলে মামলার বাদি সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেন।

মামলার বাদি মফিজ উদ্দিন মিন্টু জানান, হত্যা মামলার প্রধান আসামী মহিউদ্দিন লাবলু ও অন্যতম আসামী মোঃ ফারুক তালুকদারসহ ৩২ জন আসামীর নাম বাদ দিয়ে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিআইবি) গত ২৭ অক্টোবর পটুয়াখালী আদালতে চার্জশিট দাখিল করেছেন। মামলার সঠিক তদন্ত করা হয়নি এবং বাদির সাথে কথা না বলে না জানিয়ে গোপনে ওই চার্জশিট দাখিল করা হয়েছে। পিবিআইর তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক মোঃ লোকমান হোসেনকে অনৈতিক সুবিধা দিয়ে মামলা থেকে প্রধান আসামী মহিউদ্দিন লাবলু ও অন্যতম আসামী মোঃ ফারুক তালুকদারসহ ৩২ জন আসামীর নাম বাদ দেয়া হয়েছে বলেও মামলার বাদি অভিযোগ করেন। ওই হত্যা মামলায় ৬৯ জনকে আসামী করা হয়েছিল। এদিকে এই চাঞ্চল্যকর জোড়া খুনের মামলার গোপনে এ চার্জশিট দাখিলের বিষয়টি জানাজানি হলে এলাকাজুড়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে। নিহতদের স্বজন, স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীসহ সাধারণ মানুষ এঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

নিহতদের ভাই কেশবপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান কেশবপুর ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ সালেহ উদ্দিন পিকু বলেন, প্রধান আসামী মহিউদ্দিন লাভলু ও ফারুক তালুকদারকে চার্জশিট থেকে বাদ দেয়া হয়েছে। তারা আমার দুইভাই হত্যার নির্দেশদাতা ও পরিকল্পনাকারী ছিল। ঘটনার সময় ফারুক তালুকদার সশরিরে উপস্থিত ছিলেন। অথচ তাদের নাম বাদ দেয়া হয়েছে। আমি এ চার্জশিট মানি না। আমরা এ চার্জশিটের বিরুদ্ধে আদালতে নারাজি দেব। উল্লেখ্য, ২০২০ সালের ২রা আগস্ট সালেহ উদ্দিন পিকুর দুইভাই যুবলীগ নেতা রকিব উদ্দিন রুমন ও সদস্য ইশাদ তালুকদারকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছিল। ঘটনার পর বগা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মহিবুল্লাহ মামলার তদন্ত শুরু করেছিলেন। তার বদলিজনিত কারণে তদন্তের দায়িত্ব পান পরবর্তী ইনচার্জ সিরাজুল ইসলাম। তদন্ত কর্মকর্তা সিরাজুল প্রধান আসামীর নাম বাদ দিতে বাদী পক্ষের কাছে প্রস্তাব দেন এমন অভিযোগে বিভাগীয় মামলা করেন বাদী। পরে মামলার তদন্তের দায়িত্ব পান পটুয়াখালী জেলা পিআইবির পুলিশ পরির্দর্শক মো. লোকমান হোসেন। দীর্ঘদিন পরে মামলার প্রধান দুই আসামী মহিউদ্দিন লাভলু ও ফারুক তালুকদারসহ ৩২জনের নাম বাদ দিয়ে আদালতে চার্জশিট জমা দেন ওই তদন্ত কর্মকর্তা।

মামলার প্রধান আসামী কেশবপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন লাভলু জানান, এবিষয়ে আমি এখনো কিছু জানি না। তবে হত্যা মামলায় আমাকে উদ্দেশ্যপ্রনোদিতভাবে আসামী করা হয়েছে। এবিষয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মোঃ লোকমান হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, কারো কর্তৃক প্রভাবিত কিংবা প্ররোচিত হয়ে বা অনৈতিক সুবিধা নিয়ে কোন আসামীর নাম চার্জশিট থেকে বাদ দেয়া হয়নি। তদন্তে যাদের জড়িত থাকার প্রমাণ মিলেছে কেবল তাদের বিরুদ্ধেই আদালতে চার্জশিট দেয়া হয়েছে।

Previous articleমায়ের হাত ধরে রাস্তা পার হওয়ার সময় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় শিশু শিক্ষার্থীর মৃত্যু
Next articleঈশ্বরদীতে সূর্য (ছট) পূজা অনুষ্ঠিত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।