স্বপন কুমার কুন্ডু: উৎসব মূখর পরিবেশে ঈশ্বরদীতে হিন্দু সম্প্রদায়ের দুই দিন ব্যাপী সূর্য (ছট) পূজা শুরু হয়েছে। রবিবার (৩০ অক্টোবর) বিকেলে ঈশ্বরদী উপজেলা চত্বরের পুকুরে সূর্য দেবের উদ্দেশ্যে পূজাদানের জন্য হিন্দু সম্প্রদায়ের সহস্রাধিক নারী ও বিপুল সংখ্যক পুরুষের সমাগম ঘটে। এতদঞ্চলের মধ্যে ঈশ্বরদীতে জাঁক-জমকপূর্ণভাবে দীর্ঘদিন ধরে সূর্য্য পূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

রবিবার সূর্য্যাস্থের আগে অবাঙ্গালি হিন্দুদের নারীরা উপবাস করে কোমড় পর্যন্ত পানিতে পুকুরে নেমে এই পূজার সূচনা করেন। সূর্য্য অস্ত যাওয়া পর্যন্ত চলে এই পূজা। সোমবার ভোরে সূর্যোদয়ের আগেই আবারও নারীরা পুকুরে নেমে সূর্যোদয় না হওয়া পর্যন্ত সূর্য্যদেবের অর্চনা করবেন।

এসময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার পি এম ইমরুল কায়েস, প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি স্বপন কুমার কুন্ডুসহ স্থানীয় নের্তৃস্থনীয় ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

সূর্য্য পূজা উপলক্ষে ঈশ্বরদীতে হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যে উৎসব মূখর পরিবেশ বিরাজ করছে। এ পূজায় মূর্তি উপাসনার স্থান নেই। ডুবিত এবং উদিত সূর্য্যকে পূজা করা হয়। পূজার দু’দিন আগে লাউ ভাত এবং একদিন আগে খির ভাত খাওয়ার সাথে ৩৬ ঘণ্টার এক কঠোর ব্রত পালন করেন নারীরা। পূজায় সম্পূর্ণ সাত্বিক নৈবেদ্য ইত্যাদি কুলো, ডালা বা পাচিতে রেখে উৎসর্গ করা হয়। বিভিন্ন ফল মূল, মিঠাই ইত্যাদির সঙ্গে পরম্পরাগত বিহারী লোকখাদ্য “ঠেকুয়া” প্রস্তুত করে নৈবেদ্য রূপে প্রদান করা হয়।

এসময় নুন-মশলা বর্জিত সম্পূর্ণ নিরামিষ খাদ্য গ্রহণ করা হয়। পূজা শেষে আত্মীয় স্বজন, প্রতিবেশীদের প্রসাদ বিতরণ এ পূজার অন্যতম নিয়ম। অবাংগালি হিন্দু সম্প্রদায়ের এই পূজা বর্তমানে সার্বজনীন রূপ পেয়েছে। বিভিন্ন ভাষাভাষী ও সম্প্রদায়ের মানুষ এই পূজার মাহাত্ম উপলব্ধি করে পূজায় সামিল হতে শুরু করেছেন।

হিন্দু বর্ষপঞ্জীর কার্তিক মাসের শুক পরে ষষ্ঠী তিথিতে উদযাপিত একটি প্রাচীন হিন্দু পার্বণ। সূর্য্যোপাসনার এই অনুপম লৌকিক উৎসব পূর্ব ভারতের বিহার, ঝাডখন্ড, পূর্ব উত্তর প্রদেশ এবং নেপালের তরাই অঞ্চলে পালিত হয়ে থাকে।

ছট পূজা সূর্য্য ও তার পতœী ঊষার (ছটী মাঈ) প্রতি সমর্পিত হয়, যেখানে তাকে পৃথিবীতে জীবনের স্রোত বহাল রাখার জন্য ধন্যবাদ জ্ঞাপন ও আশীর্বাদ প্রদানের কামনা করা হয়। ছটে কোনও মূর্তি পূজা করা হয় না।

ছট বা ছঠ, ষষ্ঠী নামের অপভ্রংশ। মূলত সূর্য ষষ্ঠী ব্রত হওয়ার দরুন একে ছট বলা হয়। কার্তিক মাসের অমাবস্যা তিথিতে দীপাবলি পালনের পর এই চার দিনের ব্রতের (কার্তিক) শুকা চতুর্থী থেকে কার্তিক শুকা সপ্তমী) সবচেয়ে কঠিন ও তাৎপর্যপূর্ণ রাত্রি হল কার্তিক শুকা ষষ্ঠী; বিক্রম সংবৎ-এর কার্তিক মাসের শুকা ষষ্ঠী তিথিতে এই ব্রত উদযাপিত হওয়ার কারণে এর নাম ছট রাখা হয়েছে। এই পূজার কবে কোথায় উৎপত্তি হয়েছিল তার কোনো স্পষ্ট নিদর্শন পাওয়া যায় না। কিন্তু কিছু পৌরাণিক আখ্যানে ছট পূজার নীতি নিয়মের সাথে মিল থাকা উৎসব দেখা যায়।

Previous articleবাউফলে দুই যুবলীগ নেতা হত্যা মামলা: প্রধান আসামীসহ ৩২ জনের নাম বাদ দিয়ে চার্জশিট
Next articleসিংগাইরে নারী পুলিশ সদস্যের লাশ উদ্ধার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।