বাংলাদেশ প্রতিবেদক: জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে গণধর্ষণে সোনিয়া আক্তার (১৫) নামে এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় সোনিয়ার পালক বাবা ফিরোজ আলম নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে নয়জনকে আসামি করে থানায় মামলা করলে স্বামীসহ চার আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

রোববার (৩০ অক্টোবর) দুপুরে এ ঘটনায় স্বামীসহ নয়জনকে আসামি করে থানায় মামলা করেন মেয়েটির বাবা ফিরোজ আলম।

সোনিয়া উপজেলার ডোয়াইল ইউনিয়নের গ্রামনিখাই গ্রামের আলতাফ হোসেনের মেয়ে।

আটককৃতরা হলেন জয়নাল মিয়া (৪৫), সাকিব হোসেন (১৮), পল্লব হাসান (১৯) ও মাহিম ইসলাম (১৯)

পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সোনিয়াকে সাতদিন বয়সে দত্তক নেন আলতাফ হোসেনের শ্যালক ফিরোজ আলম। একই উপজেলার পোগলদিঘা ইউনিয়নের গেন্দারপাড়া গ্রামের ফিরোজ আলমের বাড়িতেই বড় হন সোনিয়া। গত বছর উপজেলার জগনাথগঞ্জঘাট এলাকার মাহিম ইসলামের সাথে সোনিয়ার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে যৌতুকের চার লাখ টাকার জন্য সোনিয়াকে নির্যাতন করে আসছিলেন মাহিম। নির্যাতন সইতে না পেরে দেড় মাস আগে মাহিমকে তালাক দেন সোনিয়া। এর কিছুদিন পর থেকে সোনিয়ার সাথে মোবাইল ফোনে নিয়মিত যোগাযোগ শুরু করেন মাহিম। একপর্যায়ে গত ২৩ অক্টোবর সোনিয়াকে মোবাইলফোনে ডেকে নিয়ে যান মাহিম। পোগলদিঘা ইউনিয়নের ডুরিয়ারভিটা গ্রামে ছানোয়ার হোসেনের বাড়িতে তাকে আটকে রেখে মাহিম তার সহযোগীদের নিয়ে ধর্ষন করেন। দু’দিন পর সেখান থেকে একই উপজেলার আওনা ইউনিয়নের দৌলতপুর গ্রামের বন্ধু পল্লবের বাড়িতে নিয়ে সংঘবদ্ধভাবে ধর্ষন করেন।

এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার বিকেলে সোনিয়া গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন। অবস্থা বেগতিক দেখে মাহিম এবং তার সহযোগীরা রাতেই সোনিয়াকে প্রথমে সরিষাবাড়ী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। তার অবস্থার আরো অবনতি হলে চিকিৎসক তাকে জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে নেয়ার পরামর্শ দেন। জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে নেয়ার পথে ২৭ অক্টোবর রাতে সোনিয়ার মৃত্যু হয়। জামালপুর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে ময়নাতদন্ত শেষে ২৯ অক্টোবর বিকেলে সোনিয়ার লাশ গেন্দারপাড়া গ্রামে এনে দাফন করা হয়।

সোনিয়ার মা মনিকা বেগম ও পালক মা বানেছা বেগম জানান, গত ২৩ অক্টোবর সোনিয়াকে মোবাইলফোনে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে বৃহস্পতিবার রাত পর্যন্ত মাহিম তার সহযোগীরা ধর্ষণ করে। এতে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ে সোনিয়া। পরে শুক্রবার সকালে জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।

সরিষাবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ মহব্বত কবীর জানান, এ বিষয়ে থানায় মামলা হয়েছে। ঘটনায় জড়িত চারজনকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। অন্য আসামিদের গ্রেফতারচেষ্টা চলছে বলেও জানান তিনি।

Previous articleসোনারগাঁওয়ে রাস্তার সরকারি গাছ কেটে নেওয়ার অভিযোগ
Next articleমায়ের হাত ধরে রাস্তা পার হওয়ার সময় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় শিশু শিক্ষার্থীর মৃত্যু
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।