স্বপন কুমার কুন্ডু: ঈশ্বরদীতে খাদ্যবান্ধব ও ওএমএস এর চালের চাহিদা বাড়লেও বরাদ্দ না থাকায় অনেকেইে চাল কিনতে পারছেন না। দীর্ঘসময় লাইনে দাঁড়িয়ে থেকেও শেষ পর্যন্ত খালি হাতে বাড়ি ফিরতে হচ্ছে অনেককে। এরইমধ্যে বেড়েছে খাদ্যবান্ধব ও ওএমএস এর চালের ক্রেতা। পৌর এলাকায় প্রভাব পড়েছে সবচেয়ে বেশী। পূর্বের তুলনায় বরাদ্দ অর্ধেকে নেমে এসছে বলে জানা গেছে। আবার কার্ড করতে না পারায় অনেকেই সরকারের খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ১৫ টাকা কেজির চাল পাচ্ছেন না।

খাদ্যবান্ধব ও ওএমএসের বিক্রয় কেন্দ্রগুলোতে সপ্তাহে পাঁচদিন সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত চাল বিক্রি করার কথা। তবে ঈশ্বরদীর ডিলাররা জানান, বিক্রয়কেন্দ্র খুলতে না খুলতেই অল্প সময়ের মধ্যে শেষ হয়ে যাচ্ছে বরাদ্দকৃত চাল। তাই অনেককে খালি হাতেই ফিরতে হচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ঈশ্বরদীতে ওএমএস এর ৪ জন এবং খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ১২ জন ডিলার রয়েছে। বিক্রয়কেন্দ্রের মাধ্যমে মাথাপিছু পাঁচ কেজি করে ওএমএসের চাল বিক্রি হয়। প্রতি কার্ডে মাসিক বরাদ্দ ৩০ কেজি। খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির কার্ডধারীর সংখ্যা ১২,১৫৫ জন। ৩০ কেজি হিসেবে মাসিক মোট বরাদ্দের পরিমাণ ৩৬৪.৬৫০ মেট্রিক টন। ইতোমধ্যে বরাদ্দ কমে যাওয়ায় দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে থেকেও লাভ হচ্ছে না। ফিরতে হচ্ছে খালি হাতে।

সোমবার (৩১ অক্টোবর) পৌর এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, চাল না পেয়ে অনেক মানুষ খালি হাতে বাড়ি ফিরছেন। বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকেও অনেকে চাল নিতে এসেছিলেন। পিয়ারাখালির জোমেলা বেগম বলেন, রিক্সা ভাড়া ৩০ টাকা খরচ হয়েছে। এখন চাল না পেয়ে খালি হাতেই ফিরতে হচ্ছে। আমাদের দুর্ভোগের শেষ নেই।

ডিলাররা জানান, বরাদ্দ কমে যাওয়ায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। আগের চেয়ে বরাদ্দ এখন ৫০ ভাগ কমেছে। এতে অনেকেই চাল না পেয়ে ফিরে যাচ্ছেন। আমাদের খারাপ লাগলেও করার কিছুই নেই। বরাদ্দ বাড়ালে আমরাও বেশি বিক্রি করতে পারবো।

উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক (অতি: দায়িত্ব) রেজাউল করিম বলেন, বাজারের তুলনায় সরকারের খাদ্যবান্ধব চালের দাম কম থাকায় প্রচুর চাহিদা। পৌর এলাকায় প্রতিদিনের বরাদ্দ ছিল ৮ মে: টন। বরাদ্দ কমে এখন হয়েছে ৪ মে: টন। এতে কম সংখ্যক মানুষ চাল পাচ্ছেন। বরাদ্দ বাড়লে বেশি সংখ্যক মানুষ চাল পাবেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পি এম ইমরুল কায়েস বলেন, বরাদ্দ কমায় এ সমস্যা হচ্ছে। তাছাড়া অন্যান্য স্থানের চেয়ে ঈশ্বরদী পৌর এলাকার বিস্তৃতি অনেক বেশী। যেকারণে কার্ডের পরিমাণও বেশী। বরাদ্দ অর্ধেকে নেমে যাওয়ায় এ সংকট তৈরী হয়েছে। যতটুকু বরাদ্দ পাচ্ছি ততটুকু বিক্রি করা হচ্ছে। খাদ্য নিয়ন্ত্রকের সাথে কথা বলে বরাদ্দ বৃদ্ধির প্রচেষ্টা চলছে বলে জানান তিনি।

Previous articleমহিলা ওয়ার্ডে ঢুকে অপ্রস্তুত নারী পুলিশ সদস্যের ছবি তোলেন সিরাজগঞ্জের জেল সুপার বারেক
Next articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে ২ বার স্থগিত হওয়া ভোট আগামীকাল
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।