শহিদুল ইসলাম: শার্শার বাগআঁচড়া সম্মিলিত গার্লস স্কুল এন্ড কলেজের অনিয়মের মাধ্যমে বিধিবর্হিভুত ভাবে গঠিত অনুমোদিত গভর্নিং বডির বিরুদ্ধে তদন্ত করা হয়েছে। মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের নির্দেশনায় সোমবার উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার হাফিজুর রহমান চৌধুরীর নেতৃত্বে গঠিত তদন্ত কমিটি বিদ্যালয়ে এসে সকাল ১০ টা থেকে বেলা ২ টা পর্যন্ত তদন্ত করেন। মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার বিদ্যালয়ের অভিভাবক, শিক্ষক ও এলাকার বাসির সাক্ষ্য গ্রহণ করেন।

এসময় বিদ্যালয় চত্বরে উপস্থিত শত শত অভিভাবক, শিক্ষক ও এলাকার সুধীমহল অনিয়মের মাধ্যমে বিধিবহির্ভূত ভাবে গোপনে ম্যানেজিং কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের কাছে তারা সাক্ষ্য দেয়। এবং গোপনে গঠিত পকেট কমিটি অবিলম্বে বাতিল করে নির্বাচনের মাধ্যমে নতুন কমিটি গঠনের দাবি জানান। এর আগে বিদ্যালয়ের অভিভাবক আক্তার ফারুক গত ২৬ সেপ্টেম্বর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডে বিধিবর্হিভুত ভাবে গোপনে গঠিত গভর্নিং বডির বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযোগে তিনি উল্লেখ করেন যে, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নিয়মনীতি লঙ্ঘন করে নিজের স্বার্থ চারিতার্থ করার জন্য শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের না জানিয়ে পোগনে একটি পকেট কমিটি গঠন করেছেন। উপ্ত কমিটি বাতিল করার জন্য অভিযোগকারী আক্তার ফারুক অনুরোধও করেন। এমতাবস্থায় অভিযোগটি তদন্ত পূর্বক একটি প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে নির্দেশনা দেন। এরই প্রেক্ষিতে সোমবার উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার বিদ্যালয়ে এসে তদন্ত করেন।

উল্লেখ্য গত ২ আগষ্ট যশোরের শিক্ষা বোর্ডের নির্দেশনা উপেক্ষা করে অনিয়মের মাধ্যমে বিধিবর্হিভুত ভাবে গোপনে শার্শা উপজেলার বাগআঁচড়া সম্মিলিত গার্লস স্কুল এন্ড কলেজের ম্যানেজিং কমিটি গঠন করা হয়। যে কমিটি গঠনের জন্য নির্বাচনের তফসিল ঘোষনা করা হলেও তা গোপন রাখা হয়ে ছিলো। শুধু তাই নয়, কোন মাইকিংও করা হয়নি। এবং বিদ্যালয়ের শতকরা ৮০/৯০ ভাগ অভিভাবক কমিটি গঠনের বিষয়টি জানেনও না। ফলে এনিয়ে স্থানীয় এলাকাবাসী, শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।

এবিষয়ে প্রধান শিক্ষক শাহানারা খাতুনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি একটু বিদ্যালয়ের কাজে নিয়োজিত আছি। ১০ মিনিট পরে আসেন কথা বলবো বলেই মুহুর্তের মধ্যে বিদ্যালয় প্রাঙ্গন থেকে সরে পড়েন। এব্যাপারে তদন্ত নিয়োজিত উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার হাফিজুর রহমান চৌধুরী বলেন, আমি তদন্ত করে প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য এসেছি। সঠিকভাবে তদন্ত করাই আমার মুল লক্ষ্য। এবং সঠিক প্রতিবেদনই আমি জমা দেব।

Previous articleউল্লাপাড়ায় জলাবদ্ধতায় বাধা সরিষা আবাদ
Next articleএইচএসসির প্রশ্নপত্রে ‘সাম্প্রদায়িক উসকানি’, যা বললেন শিক্ষামন্ত্রী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।