সাহারুল হক সাচ্চু: সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় রোপা আমনের সবুজ ধান রং বদলে সোনালী হচ্ছে। বিভিন্ন এলাকার মাঠে অতি আগাম করে আবাদ করা রোপা আমন ধান কাটা শুরু হয়েছে । আবার পাশের জমির ধান সবে পাক ধরেছে। সরকারী লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে এবারে ২ হাজার ১৫ হেক্টর বেশী জমিতে রোপা আমন ধানের আবাদ হয়েছে ৷

মাঠের রোপা আমন ধানকে ঘিরে কৃষকেরা বিভিন্ন পরিকল্পনা আশা স্বপ্ন রয়েছে। এ ধানকে ঘিরে তারা সামনের বোরো ধানের আবাদের খরচ করবেন বলে চিন্তা ভাবনা করছেন। উল্লাপাড়ায় এবারে স্বাভাবিকের চেয়ে কম মাত্রায় বর্ষা হয়েছে৷ বর্ষা তেমন না হওয়ায় বোনা আমন ধানের আবাদ হয়নি বলে জানা গেছে ৷ এদিকে এবারে সরকারী লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশী পরিমাণ জমিতে রোপা আমন ধানের আবাদ বলে জানা গেছে ৷

কৃষকেরা জমিতে সেচ মেশিনে পানি সেচ দিয়ে জমি তৈরী ও ধান জমিতে পানি দিয়ে আসছেন ৷ উপজেলা কৃষি অফিস থেকে জানা যায়, উল্লাপাড়া উপজেলায় এবারের মৌসুমে ৯ হাজার ১২৫ হেক্টর পরিমাণ জমিতে রোপা আমন ধানের আবাদের সরকারী লক্ষ্যমাত্রা ছিলো ৷ সেখানে ১১ হআর ১৪০ হেক্টর পরিমাণ জমিতে রোপা আমন ধানের আবাদ করা হয়েছে ৷ সরকারী লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২ হাজার ১৫ হেক্টর বেশী পরিমাণ জমিতে আবাদ হয়েছে ৷ এবারের মৌসুমে কৃষকেরা উপজেলার সলঙ্গা ,রামকৃষ্ণপুর , হাটিকুমরুল , বড়হর ইউনিয়নের বিভিন্ন মাঠে আগে রোপা আমন ধানের আবাদ শুরু করেছেন ৷ এরপর পূর্ণিমাগাঁতী , বাঙ্গালা , দুর্গানগর , পঞ্চক্রোশী , সদর উল্লাপাড়া ইউনিয়নের বিভিন্ন মাঠে এ ধানের আবাদ শুরু করা হয় ৷ সব মাঠেই সেচ মেশিন চালিয়ে জমিতে পানি সেচ দিয়ে পাওয়ার টিলারে হালচাষ ও ধান চারা লাগানো হয়েছিলো ৷ বেশী হারে ফলন হয় এমন বিভিন্ন জাতের রোপা আমন ধানের চারা কৃষকেরা লাগিয়েছিলেন বলে জানান ৷

একাধিক সেচ মেশিন মালিকের বক্তব্য তারা নিজের জমিতে রোপা আমন ধানের আবাদ পানি দেওয়া আর স্ক্রীমভুক্ত কৃষকদের জমিতে ফসলের অংশ নেওয়ার চুক্তিতে জমিতে পানি সেচ দিচ্ছেন ৷ বিভিন্ন এলাকার কৃষকেরা জানান স্বাভাবিক বর্ষা হলে তাদের জমিতে পানি উঠতো৷ বর্ষার পানি নেমে যাওয়া কিংবা জমি থেকে পানি শুকানোর পর সরিষা ফসলের আবাদ করা হতো৷ এবারে সরিষা ফসল আবাদ করা হতো বিভিন্ন মাঠের এমন বহু জমিতে রোপা আমন ধানের আবাদ করা হয়েছে ৷ সদর উল্লাপাড়া ইউনিয়নের ছোটো বাখুয়া মাঠ জুড়ে রোপা আমন ধানের আবাদ করা হয়েছে ৷ মাঠটির বেশী জমিতে সরিষা ফসল আবাদ করা হয়ে থাকে৷ কৃষক আবু বক্কার , আছমত আলীসহ অনেকেই বলেন রোপা আমনের আবাদ করায় এবারের মৌসুমে সরিষা ফসলের আবাদ হবে না৷ উপজেলার রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নের নাইমুড়ি ভেংড়ী মাঠে প্রায় সব জমিতেই রোপা আমন ধানের আবাদ করেছেন কৃষকেরা ৷

কৃষক আব্দুল প্রামানিকসহ আরো ক’জন কৃষক জানান এবারে বর্ষার পানি মাঠের জমিতে উঠলেও তা বেশীদিন থাকেনি৷ তারা জমি থেকে পানি নামতেই রোপা আমন ধানের আবাদ করেছেন ৷ এদিকে গত কয়েকদিনে বিভিন্ন এলাকার মাঠে সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে সব মাঠেরই রোপা আমন ধান বেশ ভালো আছে৷ ধানে পাক ধরেছে। সবুজ রং বদলে সোনালী রং রূপ নিচ্ছে। কোনো রোগ বালাই নেই ৷ কৃষকেরা আগেই রোগ বালাই প্রতিরোধী ঔষধ ব্যবহার করেছেন বলে জানা গেছে ৷ বিভিন্ন মাঠে আগে লাগানো ধান এখন পাক ধরেছে। এদিকে জমিতে সেচ মেশিন চালিয়ে পানি সেচ দেওয়া হচ্ছে ৷

বিভিন্ন এলাকার কৃষকেরা জানান তারা মাঠের রোপা আমন ধান ফসলের ভালো হারে ফলনের আশা নিয়ে আছেন ৷ কোনো দুর্যোগে যেন ক্ষয় ক্ষতি না হয় এ কামনা করছেন৷ এ ধানকে ঘিরে তাদের নানা পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানা গেছে ৷ কৃষকদের কথায় বছরের প্রধান আবাদের ইরি বোরো ধান ফসলের আবাদে মোটা অংকের টাকা খরচ করতে হয়৷ রোপা আমন ধান ফসল ভালো ভাবে ঘরে উঠলে সে খরচের টাকার যোগান হবে৷ আজ শুক্রবার সলঙ্গা ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকার মাঠে কৃষকদেরকে অতি আগাম করে আবাদ করা রোপা আমন ধান কাটতে দেখা গেছে। বড়গোজা ইকবাল মন্ডলের কাটারী ভোগ ধান কাটা মজুরেরা জানান ফলনের হার বেশ ভালো । তারা চারশো টাকা দিন হাজিরায় কাজ করছেন। দিয়ারপাড়ার কৃষক আঃ রউফের নিজের জমিতে আবাদ করা ধান কেটে এনে মাড়াই করা হচ্ছে। তিনি বলেন বিঘায় চৌদ্দ থেকে সাড়ে চৌদ্দ মণ হারে ফলনের কথা জানান।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সূবর্ণা ইয়াসমিন সুমী বলেন উল্লাপাড়া উপজেলা কৃষি নির্ভর । বলতে গেলে এ উপজেলায় সব ধরণের ফসলের আবাদ হয়৷ বছরের প্রধান আবাদ হলো বোরো ( ইরি) ধানে। এরপর সবচেয়ে বেশী পরিমাণ জমিতে রোপা আমন ও সরিষা ফসলের আবাদ হয়ে থাকে৷ সরকারী লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে এবারে বেশী পরিমাণ জমিতে রোপা আমন ধানের আবাদ হয়েছে ৷ বর্ষার পানি মাঠগুলোয় বেশী দিন না থাকা ও কোনো কোনো মাঠে পানি না উঠায় কৃষকেরা জমি পতিত না রেখে রোপা আমন ধানের আবাদ করেছেন ৷ সরকারের কৃষি প্রণোদনায় উপজেলা কৃষি অফিস থেকে প্রান্তিক কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে রোপা আমন ধান বীজ ও রাসায়নিক সার বিতরণ করা হয়েছে ৷ কৃষকেরা কৃষি অফিস থেকে পাওয়া ধান বীজে কিংবা নিজ বাড়ির ধানে করা রোপা আমন ধানের নিজস্ব বীজতলার চারা জমিতে লাগিয়েছিলেন । এছাড়া অনেক কৃষক বিভিন্ন হাট কিংবা সরাসরি বীজতলা থেকে চারা কিনে জমিতে লাগিয়েছেন ৷ তিনি আরো বলেন সব মাঠেই রোপা আমন ধান ফসল বেশ ভালো আছে৷ কোনো রোগ বালাই নেই । আগাম আবাদ করা ধান শুরু হয়েছে । ভালো হারে ফলন হচ্ছে বলে খোজ খবর নিয়ে জানছেন।

Previous articleরাজশাহীতে বিপুল পরিমাণ চোলাইমদসহ গ্রেফতার ৩
Next articleরাজীব গান্ধী হত্যাকাণ্ডে জড়িত নলিনীসহ ৬ জনকে মুক্ত করে দিলো সুপ্রিম কোর্ট
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।