মারুফা মির্জা: সিরাজগঞ্জের বেলকুচি উপজেলার দৌলতপুরে পেস্তকে পারিবারিক কলহের জের ধরে প্রভাবশালী বড় ভাই আমিরুল ইসলাম বাবুর কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছেন নিরহ ছোট ৩ ভাই। প্রভাব খাটিয়ে নিজেদের তাঁত ব্যবসার বিপুল পরিমান টাকাই শুধু আত্বসাৎ করে ক্ষান্ত হননি। পাশাপাশি ছোট ভাইদের ৩ স্ত্রী ও এক শিশু সন্তানকে তালা বন্ধ করে ঘরে অবরুদ্ধ করে তাদের তাঁত কারখানার ১০টি তাঁতের সুতা-তানা কেটে দিয়েছে বড় ভাই ও তার সহযোগীরা।

এতে ক্ষতি হয়েছে প্রায় ১০ লক্ষাধিক টাকা। এজন্য ক্ষতিগ্রস্তরা তার বড় ভাই ও সহযোগীদের দায়ী করে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। এরপর থেকে ছোট ভাইরা পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখে পদক্ষেপ নেবার কথা জানিয়েছে থানা পুলিশ।

পুলিশ ও ক্ষতিগ্রস্তরা জানান, দৌলতপুর পেস্তক খুকনী গ্রামের শামচুল হকের পারিবারিক তাঁত ব্যবসার প্রায় ৩০ লাখ টাকা আত্বসাৎ নিয়ে বড় ছেলে আমিরুল ইসলাম বাবুর সাথে গত দু মাস আগে থেকে ছোট ৩ ছেলের দ্বন্ধ চলে আসছিল। গত মঙ্গলবার ভোরে বেলকুচির সোহাগপুর হাটে ছোট ৩ ভাই মনিরুল ইসলাম, ইয়ামিন হোসেন ও ইয়াসিন হোসেন মিলে শাড়ী বিক্রি করার জন্য যায়। এদিন হঠাৎ করে ছোট ভাইদের কারখানার ১৭টি তাঁতের শ্রমিকেরা দুপুরে খাবার খেতে গেলে ভাইদের স্ত্রীরা ঘরে থাকাবস্থায় বাহিরে তালাবদ্ধ করে গালিগালাজ ও মারধর করে বড় ভাই বাবু, তার স্ত্রী ও সহযোগীরা।

তারপর দুপুরে কারখানা হতে শ্রমিকেরা খাবার খেতে গেলে ভাইদের তাঁতগুলোর মধ্যে ১০টির সুতা-তানা কেটে ফেলা হয়। ঐ অবস্থায় আটকিয়ে থাকা স্ত্রীরা দুপুর ২টার দিকে ফোন করে স্বামীদের জানান, তাদের তালাবদ্ধ করে অত্যাচারের কথা। পরে ভীত সন্তুষ্ট ভাইরা রাত সাড়ে ১১ টায় বেলকুচি থানায় অভিযোগ করলে এসআই রিয়াজুল ইসলাম তাদের উদ্ধার করে ও ভাইদের বাড়িতে রেখে আসে।

এত কিছুর পর বুধবার সকালে নানা হয়রানীর শিকার হওয়া ভাইদের বিরুদ্ধে আদালতে তার বাবাকে বাদী করে সৎ মাকে মারধর, লুটপাটের অভিযোগ এনে সাজানো মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে। এ নিয়ে এলাকাতে বিরুপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। স্থানীয়রা জানিয়েছে নির্যাতীতরাই নতুন করে মিথ্যা মামলায় হয়রানীর শিকার হচ্ছেন।

সরেজমিনে বৃহস্পতিবার দুপুরে তাদের বাড়িতে গেলে নির্যাতিত মনিরুল ইসলামের স্ত্রী মীম খাতুন ও ইয়াসিন হোসেনের স্ত্রী মুন্না খাতুন জানান, মঙ্গলবার সকালে আমাদের স্বামীরা বাড়ি থেকে হাটে কাপড় বিক্রি করতে যাবার পর থেকেই তালা দিয়ে অবরুদ্ধ করে শিশু সন্তান সহ ৪ জনকে আটকিয়ে রাখা হয়। ভয়ভীতি ও অশ্লীল ভাবে গালিগালাজ করে ভাসুর বাবু, তার স্ত্রী। অনেক আকুতি জানিয়েছি ছেড়ে দেবার জন্য। কিন্তু তারা ছেড়ে দেয়নি। খাবারও খেতে দেয়নি। পরে থানার পুলিশ এসে আমাদের উদ্ধার করেছে। নতুন করে আমাদের স্বামীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা সাজানো মামলা দিয়ে ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। আমরা চরম নিরাপত্তা হীনতার মধ্যে আছি। এ অবস্থায় আমরা প্রশাসনের কাছে সুবিচার দাবী করছি।

এদিকে বড় ভাইয়ের নিপিড়নের শিকার ছোট ভাই ইয়ামিন হোসেন, ইয়াসিন হোসেন জানান, আমাদের সরলতার সুযোগে বার বার মারধর, স্ত্রীদের তালা বদ্ধ করে রাখা, আমাদের তাঁতের সুতা তানা কাটা থেকে শুরু করে বাড়ি দখল সহ মিথ্যা মামলা দিয়ে আমাদের চরম ভাবে হয়রানী করছে বড় ভাই বাবু ও তার সহযোগীরা। আমরা ভয়ে বাড়িতে যেতে পারছি না।

আলোচিত ঘটনাটির বিষয়ে প্রতিবেশী বেলাল হোসেন, আব্দুল খালেক জানান, দীর্ঘ দিন ধরেই বড় ভাইয়ের রোশানলে ছোট ভাইরা। তাদের নানা ভাবে মারধর ও অত্যাচার, সম্পত্তি আয়েত্বে নেয়া অসাদু কাজ করছে। বিষয়টি এলাকার সবার জানা।

এদিকে ছোট ভাই ও তাদের পরিবারের উপর নির্যাতন এবং তাঁতের সুতা তানা কর্তনের বিষয়ে বড় ভাই আমিরুল ইসলাম বাবু জানান, আমরা এসবের সাথে জড়িত নই।

এ ব্যাপারে বেলকুচি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তাজমিলুর রহমান জানান, গৃহবধুদের আটকিয়ে রাখার ঘটনাটি মর্মান্তিক। পুলিশ গিয়ে তাদের উদ্ধার করেছে। পারিবারিক দ্বন্ধের কারনে তা ঘটেছে বলে প্রাথমিক ভাবে আমরা ধারনা করছি। বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Previous articleসৌদি আরবে হার্ট অ্যাটাকে বাংলাদেশি শ্রমিকের মৃত্যু
Next articleমীর সাব্বির-ইশরাত পায়েল বিতর্ক প্রসঙ্গে – রফিক সুলায়মান
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।