সোমবার, মার্চ ৪, ২০২৪
Homeসম্পাদকীয়মীর সাব্বির-ইশরাত পায়েল বিতর্ক প্রসঙ্গে - রফিক সুলায়মান

মীর সাব্বির-ইশরাত পায়েল বিতর্ক প্রসঙ্গে – রফিক সুলায়মান

রফিক সুলায়মান: ঢাকাইয়া কুট্টি ভাষায় অসাধারণ একটি কবিতা আছে শামসুর রাহমান-এর। নাম ‘এই মাতোয়ালা রাইত।’ এই কবিতার বিখ্যাত চরণ : ‘কান্দুপট্টির খানকি মাগি চুমাচাট্টি দিয়া কয়, তুমি এই বেগানা দিলের মাহুত আমার।’ স্ক্যাটোলজি আর খিস্তিখেউড় সাহিত্যেরই অংশ। ইমদাদুল হক মিলনের ‘টোপ’ উপন্যাস যখন বিচিত্রায় প্রথম প্রকাশিত হয়েছিলো সেখানে বিভিন্ন জায়গায় ‘মূদ্রণ অযোগ্য’ কথাটি লেখা ছিলো।

হুমায়ূন আহমেদের ‘১৯৭১’ উপন্যাসে মৌলভী সাহেবের পুরুষাঙ্গে প্রমাণ সাইজের পাথর ঝুলিয়ে দেয়ার কথা লিখিত আছে। সালমা বাণীর ‘ভাঙারী’ উপন্যাস তো খিস্তিখেউড়ের জননী। বাংলা গানে কী পরিমাণ অশ্লীলতা এবং খিস্তি আছে, তা মমতাজের গানগুলো শুনলেই বুঝতে পারবেন। ‘মেইন সুইচটা টিপ্যা দে।’ কলিকাতার একটা গানে ছিলো ‘নাগর আমার কাঁচা পিরীত পাকতে দিল না’। স্বামী আমার নাইট কোচের ড্রাইভার, তুমি কেন কোমরের বিছা হইলা না, ভিজাইতাম আর শুকাইতাম – ইত্যাদি চরণগুলো কোনভাবেই শ্লীল নয়, এটা মানার জন্য বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক হওয়ার দরকার নাই।

প্রসঙ্গের অবতারণা মীর সাব্বির-ইশরাত পায়েল বিতর্ক নিয়ে। সাব্বির তাঁর বক্তৃতা দিয়ে চলেই যাচ্ছিলেন। পায়েল তাঁকে থামিয়ে বরিশাইল্যা ভাষায় একটি সংলাপ শুনতে চাইলেন। বরিশাল নিয়ে ধান নদী খাল নয়, শেরেবাংলা নয়, মানিক মিয়া নয় – আসলো জীবনানন্দ দাশের কথা! মানলাম মীর সাব্বির-পায়েলের ইন্টেলেকচুয়াল হাইট অনেক উপরে। তাই তাঁদের প্রিয় জীবনানন্দ দাশ! সংলাপ বিষয়ে মীর বিনয়ের সাথে জানালেন, নাটকের সংলাপ তিনি মনে রাখতে পারেন না। তখনই তিনি ‘মাতারী’ ‘উদলা’ শব্দযুক্ত একটি সংলাপ উচ্চারণ করেন। পায়েলও হেসে কুটি কুটি।

১১-১১-২২ এর এই ঘটনা দিন কয়েক পর ভাইরাল হয়। পায়েল বুলিংয়ের অভিযোগ আনেন। উদলাকে ‘উদোম’ মনে করে তিনি বেদম দুঃখিত হন। ‘মাতারী’ শব্দের জন্য তিনি কষ্ট পেয়েছেন কিনা জানি না। আজ তাঁর একটি ভিডিও দেখলাম। সেখানে তাঁর ফ্যান-ফলোয়ার কত মিলিয়ন সেটি জানাচ্ছিলেন। একটি দৈনিক পত্রিকার ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মেও যে তাঁর মিলিয়ন মিলিয়ন ফলোয়ার সেটিও জানালেন গর্ব করে। এবং, সব শেষে জানালেন, তাঁর জনপ্রিয়তার কাছে মীর সাব্বির কিছুই না। পায়েল বলতে চেয়েছেন, সোশ্যাল মিডিয়ায় মীর সাব্বিরের কোন প্রভাব-প্রতিপত্তিই নেই। একই ঘটনায় মীরের বক্তব্যটিও আমি পড়েছি। পায়েলও পড়েছেন। বস্তুত মীরের বক্তব্য পায়েলের পছন্দ হয় নি।

ঠিক কী বলেছিলেন মীর সাব্বির? ‘এই মাতারি তুমি এরম উদলা গায়ে দাঁড়ায়ে আছো কিয়েরলিগা।’- সম্ভবত এটিই সেই জ্বালাময়ী সংলাপ। ভারতের অনেক শোয়ে কপিল শর্মা, সদ্যপ্রয়াত রাজু শ্রীবাস্তব প্রমুখ নারী অতিথিকে নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করে একটা পাঞ্চ লাইন বলেন। ‘কিয়া ড্রেস পেহেনা মেরে বেহেনা, আগ লাগা দিয়া।’ – এরকম সংলাপ অনেক কমন। ইশরাত পায়েল যে সংলাপে নিজেই আনন্দ পেয়েছেন / ফান করেছেন, সেটি নিয়ে এত্ত জলঘোলা কেন করছেন বুঝতে পারছি না। মীর সাব্বিরকে যেভাবে তুচ্ছতাচ্ছিল্য করছেন এতে করে মনে হচ্ছে তাঁর পেছনে গডফাদার হিসেবে আছেন বাইডেন বা পুটিন!

মীর সাব্বির নয়; এই ঘটনায় সোশ্যাল মিডিয়া এবং নেটিজেনদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন ইশরাত পায়েল। তিনি হয়ে উঠতে চাইছেন বাংলাদেশের কঙ্গনা রানাউত। খিস্তিখেউড় নিয়ে এর আগে এরকম কোন প্রতিক্রিয়া এসেছে বলে আমার জানা নেই।

রফিক সুলায়মান : লেখক, কলামিস্ট।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments