বাংলাদেশ প্রতিবেদক: বাড়ছে মানুষ, কমছে কৃষি জমি। ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার খাদ্যের চাহিদা মেটাতে নির্ভরতা বাড়ছে কৃষির ওপর। কিন্তু নির্ভরতা বাড়লেও বাড়ছে না ফসলি জমি। চাহিদার সাথে তাল মিলিয়ে কি ভাবে একই জমি থেকে অধিক কিংবা বারবার ফসল পাওয়া যায় ভাবতে হচ্ছে সেই ভাবনা। আর তাই তো কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি ও উৎপাদন ব্যয় কমাতে কৃষি যান্ত্রিকীকরণ ও আধুনিক প্রযুক্তির সঠিক ব্যবহারে নানান উদ্যোগ নিয়েছে বর্তমান কৃষিবান্ধব সরকার। সরকারের গৃহীত উদ্যোগ বাস্তবায়নে মাঠ পর্যায়ে কাজ করে যাচ্ছে কৃষি বিভাগ।

সেই ধারাবাহিকতায় কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে সমলয় পদ্ধতিতে বোরো চারা রোপণের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে ট্রে পদ্ধতিতে বীজতলা তৈরি ও চারা উৎপাদন শেষের দিকে পৌঁছেছে। সোমবার (২৩ জানুয়ারি) দুপুরে শাহবাজার ও বিলুপ্ত ছিটমহল দাসিয়ার ছড়ায় গিয়ে দেখা, যায় আধুনিক পদ্ধতিতে বোরো ধানের বীজতলা তৈরির চিত্র। ট্রেতে বীজ বপনের অল্পদিনের মধ্যেই গজিয়েছে চারা। বীজতলার পরিচর্যা করছেন কৃষকরা। সবুজ সতেজ চারা দেখে স্বস্তিতে কৃষকরা এবারের বোরো চাষাবাদ করে অধিক ফলনের স্বপ্ন দেখছেন।

স্থানীয় কৃষি বিভাগ জানিয়েছে, স্বল্প জমিতে অধিক ধান উৎপাদন করে মানুষের খাদ্য চাহিদা পূরণের লক্ষ্যে উপজেলায় উন্নত প্রযুক্তির মাধ্যমে সমলয় পদ্ধিতে বোরো ধান চাষাবাদের প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। এরই মধ্যে সরকারি কৃষি প্রণোদনা কার্যক্রমের আওতায় কৃষকরা নতুন মাত্রায় ট্রেতে চারা উৎপাদন করছেন। তারা মেশিন দিয়ে মাটিভর্তি ট্রেতে বপন করছেন হাইব্রিড ১২০৫ জাতের ধানবীজ। সেই বীজ গজিয়ে চারায় পরিণত হয়েছে।

কৃষির সর্বাধুনিক কৃষি প্রযুক্তি ব্যবহারে উচ্চ ফলনশীল একই জাত ব্যবহার, ট্রেতে বীজ বপন, কম বয়সের চারা রোপণ, চারা রোপণে রাইচ ট্রান্সপ্লান্টার ব্যবহার, সুষম সার ব্যবহার, আইল ফসল, ধান কর্তনে কম্বাইন হারভেস্টার ব্যবহার করে উৎপাদন বাড়ানো, উৎপাদন খরচ সাশ্রয় করা, কৃষি যান্ত্রিকীকরণের মাধ্যমে ভরা মৌসুমে কৃষি শ্রমিকের সংকটের সমাধান সম্ভব হবে সমলয় চাষাবাদে।

সমলয় পদ্ধতিতে বোরোধান চাষাবাদে আগ্রহী কৃষক সফিয়ার রহমান রব্বানী ও শাহজাহান আলী বলেন, আমরা বহুদিন ধরে ধান চাষাবাদ করে আসছি। তবে এর আগে কখনোই ট্রেতে বীজ বপন করে চারা উৎপাদন করিনি। স্থানীয় কৃষি বিভাগের সহযোগিতা ও পরামর্শে এবারই প্রথম বোরো ধানের চারা উৎপাদন করা হচ্ছে। ট্রেতে বীজ বপনের অল্পদিনের মধ্যেই চারা গজিয়েছে। চারাগুলো সবুজ সতেজ দেখা যাচ্ছে। আমরা আমরা আশা করছি এবারে এই চারা রোপণের মাধ্যমে অধিক ফলন গড়ে তুলতে পারব।

উপজেলার বড়ভিটা ব্লকের উপসহকারী কৃষি অফিসার আশরাফুল আলম বলেন, আধুনিক পদ্ধতিতে চাষাবাদ করে কৃষকরা যাতে অধিক ফলন পেতে পারেন সে লক্ষ্যেই আমরা কাজ করে যাচ্ছি। আমার ব্লকে ৩৮ জন কৃষক এবারে সমলয় পদ্ধতিতে বোরোধান রোপণের প্রস্তুতি নিয়েছেন। আমি আশা করি কৃষকেরা এই পদ্ধতি ব্যবহার করে অধিক ফলন পাবেন ইনশাআল্লাহ।

উপজেলা কৃষি অফিসার নিলুফা ইয়াসমিন বলেন, বোরো ধান সমলয় চাষাবাদের জন্য উপজেলায় প্রাথমিকভাবে ৩০০ বিঘা জমিতে চারা রোপণের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এটি অর্জনে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে। এই পদ্ধতিতে ধান চাষে ইতোমধ্যে কৃষকদের প্রণোদনা দেওয়া হয়েছে। আর অল্পদিনেই সমলয় পদ্ধতিতে বোরোধান রোপণের কাজ শুরু হবে। কৃষকদের আগ্রহ দেখে উপজেলায় এবারে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে অধিক জমিতে সমলয় পদ্ধতির ব্যবহারের আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

 

Previous articleচিলমারীতে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ
Next articleসহকারী জজ পদে উত্তীর্ণ জবির সাত শিক্ষার্থী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।