সোমবার, ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০২৪
Homeসারাবাংলাসংশোধিত ফলাফলে জয়পুরহাটের একটি বিদ্যালয়ের বৃত্তিপ্রাপ্ত সবাই বাদ !

সংশোধিত ফলাফলে জয়পুরহাটের একটি বিদ্যালয়ের বৃত্তিপ্রাপ্ত সবাই বাদ !

এস এম শফিকুল ইসলাম: এবার বৃত্তি পরীক্ষার স্থগিত ফলাফলে জয়পুরহাটের একটি বিদ্যালয়ের তিন জন শিক্ষার্থীর সাধারণ গ্রেডে বৃত্তি পাওয়ার তালিকায় রোল নম্বর ছিল। এতে বিদ্যালয়টির শিক্ষক-অভিভাবক ও গ্রামবাসীরা আনন্দিত হয়েছিলেন। তবে তাঁদের আনন্দ বেশিক্ষণ থাকেনি। বৃত্তি পরীক্ষার সংশোধিত ফলাফলে তিনই বাদ পড়েছে।

১৫ বছর আগে জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলার রোয়াইড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টিতে মাত্র একজন শিক্ষার্থী ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পেয়েছিল। এরপর বিদ্যালয় থেকে কোনো শিক্ষার্থী আর বৃত্তি পায়নি। এতে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন তাঁরা।

বাদ পড়া তিন শিক্ষার্থীর অভিভাবকের জানান, সন্তানদের কৃতিত্বে আমরা উচ্ছ্বাসিত হয়েছিলাম। এখন আমরা ও আমাদের সন্তানেরা লজ্জা পাচ্ছি। এই ঘটনাটি আমাদের সন্তানদের কচি মনে বড় দাগ কাটাল।

রোয়াইড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও গ্রামবাসী সূত্রে জানা গেছে, ২০০৮ সালে বিদ্যালয় থেকে একজন শিক্ষার্থী বৃত্তি পেয়েছিল। এরপর কোনো শিক্ষার্থী আর বৃত্তি পায়নি। এবার বিদ্যালয়ের ৭ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে ৬ জন শিক্ষার্থী বৃত্তি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল। বৃত্তি পরীক্ষার প্রথম প্রকাশিত ফলাফলে সাধারণ গ্রেডে ১৮-১৯ ও ২০ নম্বর রোল ছিল। এই রোল নম্বর গুলো যথাক্রমে আব্দুল্লাহ আল জিসান, সাখাওয়াত হোসাইন সৌরভ ও আমিন শিকদারের। দীর্ঘদিন পর বিদ্যালয়ে তিন জন শিক্ষার্থী সাধারণ গ্রেডে বৃত্তি পাওয়ায় গ্রামবাসী, বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও অভিভাবকেরা সবাই খুশি হয়েছিলেন। ফলাফল প্রকাশের অভিভাবকেরা আনন্দে মিষ্টিও বিতরণ করেছিলেন। প্রকাশের পরপরই হঠাৎ করেই বৃত্তি পরীক্ষার ফলাফল স্থগিত করা হয়। বুধবার রাতে বৃত্তি পরীক্ষার সংশোধিত ফলাফল প্রকাশ করা হয়। সংশোধিত বৃত্তি পরীক্ষার ফলাফলে তিন জনের রোল নম্বর নেই।

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে দশটায় রোয়াইড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা গেছে, শিক্ষার্থী আব্দুল্লাহ আল জিসান ও তার বাবা আব্দুল করিম প্রধান শিক্ষক আজাদুর রহমানের কাছে এসেছেন। আব্দুল করিম প্রধান শিক্ষককে বলছিলেন, স্যার রাতে খবর পেয়ে আমাদের পরিবারের কারও চোখে রাতে ঘুম আসেনি। আমি ছেলেকে সান্ত্বনা দিতে পারছি না। তখন প্রধান শিক্ষক আজাদুর রহমান ও অন্য শিক্ষকেরা নির্বিকার হয়ে ছিলেন। একপর্যায়ে আব্দুল্লাহ আল জিসানের বাবা আব্দুল করিমের দু চোখ দিয়ে অঝরে পানি ঝরছিল।

কাঁদতে-কাঁদতে আব্দুল করিম বলেন, আমি নিজেকেই মানাতে পারছি না। আমার ছেলেকে কিভাবে সান্ত্বনা দিব। ফলাফলের খবর জানার পর আমরা কেউ রাতে ঘুমাতে পারিনি। এটা আমার ছেলের কচি মনে দাগ কাটল।
রোয়াইড় গ্রামের বাসিন্দা ও আক্কেলপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান জিয়াউল হক বলেন, দীর্ঘ দিন পর আমাদের বিদ্যালয়ের তিন শিক্ষার্থীর বৃত্তি পাওয়ায় আমরা সবাই খুশি হয়েছিলাম। সংশোধিত ফলাফলে জানলাম তিন জনের কারও তালিকায় নাম নেই। এটা কষ্টের।

রোয়াইড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আজাদুর রহমান বলেন, বৃত্তি পরীক্ষার স্থগিতকৃত ফলাফলের তালিকায় আমাদের বিদ্যালয়ের তিন শিক্ষার্থীর রোল নম্বর সাধারণ গ্রেডে ছিল। বুধবার রাতে প্রকাশিত সংশোধিত বৃত্তি পরীক্ষার ফলাফলের তালিকায় ওই রোল নম্বর গুলো নেই।

জয়পুরহাট জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোফাজ্জল হোসেন বলেন, বৃত্তি পরীক্ষার সংশোধিত তালিকা প্রকাশ হয়েছে। কে বাদ পড়ল কে যোগ হয়েছে তা এখন বলা যাচ্ছে না।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments