শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২৪
Homeসারাবাংলাচান্দিনায় প্রেমের জেরে কলেজছাত্র কারাগারে

চান্দিনায় প্রেমের জেরে কলেজছাত্র কারাগারে

ওসমান গনি: কুমিল্লার চান্দিনায় প্রেমের টানে ঘর ছেড়ে পালিয়ে যাওয়া প্রেমিক যুগল উদ্ধারের পর প্রেমিকার স্থান হয় মায়ের বুকে আর অপহরণ মামলা মাথায় নিয়ে দরিদ্র কলেজছাত্রের ঠিকানা হয় কারাগারে! কারাগারের অন্ধকারে আড়াই মাস বন্দি মো. হাসান (১৭) নামের ওই ছাত্র ভর্তি হয়ে আজও কলেজের সীমানায় পা রাখতে পারেনি। এ ঘটনায় চান্দিনা উপজেলা জুড়ে নানা আলোচনা-সমালোচনার ঝড় উঠেছে। এসব ঘটনা তুলে ধরে প্রেমিকার পরিবারের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ এনে সুষ্ঠু বিচারের প্রার্থনা করে আদালতে মামলা করেন ভুক্তভোগী হাসানের অসহায় বাবা কৃষক রেশমত আলী।

কারাগারে বন্দি মো. হাসান কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার কেগলা গ্রামের কৃষক রেশমত আলীর ছেলে। ২০২২ সালের মাধ্যমিক পরীক্ষায় চান্দিনার কংগাই উচ্চ বিদ্যালয় থেকে জিপিএ-৪.৮৯ পেয়ে পাস করার পর রাজধানীর দনিয়া কলেজে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হয়। প্রেমিকাকে নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার ঘটনায় অপহরণ মামলা মাথায় নিয়ে কারাগারের চার দেয়ালে বন্দি মেধাবী শিক্ষার্থী হাসানের শিক্ষা জীবন অনিশ্চিয়তার মধ্যে পড়েছে।স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ছোটবেলা থেকেই লেখাপড়ায় মনোযোগী হাসান প্রতি শ্রেণিতে মেধা তালিকায় প্রথম স্থান অর্জন করে আসছে। নবম শ্রেণিতে অধ্যয়নরত অবস্থায় একই শ্রেণির সহপাঠী প্রেমিকার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। ২০২২ সালে মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে উভয়ই পা রাখে কলেজে। পরে তাদের প্রেমের বিষয়টি জানাজানি হয় উভয় পরিবারের মধ্যে।

দরিদ্র কৃষকের সন্তান মো. হাসানের সঙ্গে মেয়ের প্রেমের বিষয়টি কোনোভাবেই মেনে নিতে পারছিলেন না প্রেমিকার বাবা দেলোয়ার হোসেন। মেয়েকে নজরবন্দি করে দেলোয়ার হোসেন প্রেমিক হাসানের পরিবারকে ভীষণভাবে চাপে ফেলে। উভয় পরিবারের মধ্যে শুরু হয় মানসিক ও সামাজিক দ্বন্দ্ব। কিন্তু দুই পরিবারের দ্বন্দ্ব উপেক্ষা করে ঘর ছাড়ে প্রেমিক যুগল।গত বছরের ১২ ডিসেম্বর ওই প্রেমিক যুগল পরিবারের অসম্মতিতে পালিয়ে যায় অজানার উদ্দেশে। তাতে আরো ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে প্রেমিকার পরিবার। মেয়ের প্রেমের ঘটনাকে গোপন রেখে প্রেমিক হাসানের ওপর চাপানো হয় অপহরণের মতো মারাত্মক অভিযোগ। ওই অভিযোগে মো. হাসানের বিরুদ্ধে গত ১৪ ডিসেম্বর চান্দিনা থানায় মামলা দায়ের করেন প্রেমিকার মা। ওই অভিযোগের ভিত্তিতে চান্দিনা থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাদেরকে নারায়ণগঞ্জের মদনপুর কেওড়াতলা থেকে উদ্ধারের পর প্রেমিকার ঠিকানা হয় নিজ বাড়িতে আর দরিদ্র প্রেমিক হাসানের ঠিকানা হয় কারাগারে!

প্রায় তিন মাস কারাগারে বন্দি থাকায় কলেজে ভর্তি হয়েও শ্রেণিকক্ষে উপস্থিত হতে পারেনি মেধাবী ছাত্র হাসান। মো. হাসানের বাবা কৃষক রেশমত আলী জানান, আমার ৩ ছেলে ১ মেয়ের মধ্যে সবার ছোট হাসান। ছোটবেলা থেকেই লেখাপড়ায় অধিক মনোযোগী হওয়ায় ভাবছিলাম তাকে অনেক বড় করব, কিন্তু আর হলো না।হাসানের বড় ভাই ইব্রাহীম জানান, ওই মেয়ে (প্রেমিকা) আরো কয়েকবার আমাদের বাড়ি চলে আসছিল। পরে এলাকার লোকজনের উপস্থিতিতে মেয়েকে নিয়ে যায়। তাদের প্রেমের অনেক ভিডিও ও স্থির চিত্রও রয়েছে।

এ ব্যাপারে দেলোয়ার হোসেন জানান, আমার সম্মান ক্ষুণ্ন করার জন্যই পরিকল্পিতভাবে তারা এ কাজ করেছে। আমার পরিবার আইনের আশ্রয় নিয়ে নারায়ণগঞ্জ থেকে মেয়েকে উদ্ধার করে আনে। এ ঘটনায় মামলা চলছে। শিক্ষার্থী মো. হাসানের ব্যাপারে কংগাই উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শংকর চন্দ্র রায় জানান, ছেলেটি যথেষ্ট মেধাবী ছিল। এসব ঝামেলা মিটিয়ে তাকে লেখাপড়ার সুযোগ দেওয়া জরুরি।চান্দিনা থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) মো. সাহাবুদ্দীন খাঁন জানান, উভয়ই পরিবারের অজান্তে পালিয়ে গেলেও উদ্ধারের পর মেয়েটি ছেলেটির বিরুদ্ধে সাক্ষী দেয়। যে কারণে এ মামলা গ্রহণ করা হয়েছে।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments