বুধবার, ফেব্রুয়ারি ২১, ২০২৪
Homeসারাবাংলাভূঞাপুরে ডাব খাওয়াকে কেন্দ্র মায়ের সামনে অপমান ও মারধর করায় স্কুলছাত্রের আত্মহত্যা

ভূঞাপুরে ডাব খাওয়াকে কেন্দ্র মায়ের সামনে অপমান ও মারধর করায় স্কুলছাত্রের আত্মহত্যা

আব্দুল লতিফ তালুকদার: অন্যের গাছের ডাব খাওয়াকে কেন্দ্র করে আবির (১৪) নামে এক স্কুলছাত্রকে মায়ের সামনেই অপমান ও মারধর করায় ক্ষোভে মায়ের ওড়না পেঁচিয়ে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। মঙ্গলবার দুপুর ২টার দিকে টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর পৌর এলাকার ঘাটান্দি সোনিয়া হাসপাতালের পাশের একটি ভাড়া বাসা এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে ওই বাসা থেকে আবিরের মরদেহ উদ্ধার করেছে ভূঞাপুর থানা পুলিশ।

আবির উপজেলার অর্জুনা ইউনিয়নের কুঠিবয়ড়া গ্রামের বাদশা মণ্ডলের ছেলে। সে পৌর এলাকার আলহাজ হায়দার আলী মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্র ছিল। স্বজন ও প্রতিবেশীরা জানান, সোমবার রাতে মাকে নিয়ে পার্শ্ববর্তী ঘাটাইল উপজেলার যদুরপাড়া গ্রামের তার নানা সুজ্জত আলীর বাড়িতে যায়। পরে ৮-১০ জন বন্ধু মিলে ডাকিয়াপটল গ্রামে ওয়াজ মাহফিল শুনতে গিয়ে সিংগুরিয়া গ্রামের ডা.ওয়াজেদের বাড়ির গাছে ডাব খাওয়ার জন্য যায়। আবির গাছে ওঠে। এক পর্যায়ে আশপাশের লোকজন টের পেয়ে ধাওয়া করলে বন্ধুরা পালিয়ে গেলেও আবিরকে ধরে মারধর করে। এরপর আবিরের মাকে ডেকে নিয়ে তাকে চুরির অপবাদ দেয় এবং সেখানে মা তাকে শাসন করে বাসায় নিয়ে আসে। এ ঘটনার পর মঙ্গলবার সকালে আবিরের মা ও তার বড় ভাই কর্মস্থলে চলে যায়। দুপুরের দিকে তার মা বাড়িতে এসে আবিরকে ডাকতে থাকে এবং বাথরুমের দরজা ধাক্কা দিয়ে দেখতে পায় ভেতর থেকে আটকানো। পরে ডাক-চিৎকার ও তার বড় ছেলেকে ফোন করলে সে বন্ধুদের নিয়ে এসে বাথরুমের দরজা ভেঙে আবিরের ঝুলন্ত লাশ দেখতে পায়।

তার এক মামী জানান, চুরির অপবাদ দিয়ে মাকে অপমান করায় ক্ষোভে- দুঃখে সে আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়। ভূঞাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ফরিদুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তদন্ত শেষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments