শুক্রবার, জুন ২১, ২০২৪
Homeসারাবাংলাঈদ মৌসুমেও ক্রেতা না থাকায় ঈশ্বরদী বেনারসি পল্লিতে খরা পরিস্থিতি

ঈদ মৌসুমেও ক্রেতা না থাকায় ঈশ্বরদী বেনারসি পল্লিতে খরা পরিস্থিতি

স্বপন কুমার কুন্ডু: ঈদ মৌসুমেও ঈশ্বরদী বেনারসি পল্লিতে ক্রেতা না থাকায় খরা পরিস্থিতি বিরাজ করছে। পল্লি এলাকার প্রায় সব দোকানই ক্রেতা শূন্য। তাঁতিরাও বসে বসে দিন কাটচ্ছে। অলস সময় পাড় করছেন দোকানীরা। কেউ কেউ মোবাইলে ভিডিও দেখছেন, আবার কেউ করছেন গল্প। শুক্রবার ও শনিবার সকাল থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত সেখানে অবস্থান করে দেখা গেলো, কোনো দোকানেই উল্লেখযোগ্য বেচাকেনা নেই। এ অবস্থায় হতাশা প্রকাশ করেছেন তাঁত মালিক ও ব্যবসায়ীরা। পনের রোজা চলে গেলেও ঈদের বেচাকেনা শুরু হয়নি।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, রমজান মাসে সবচেয়ে বেশী বিক্রি হয় বেনারসি পল্লিতে। এবারে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের ঊর্ধ্বগতির কারণে এ মার্কেটমুখী হচ্ছেন না ক্রেতারা। আশা ছিলো মাসের শুরুতে ক্রেতাদের পকেটে বেতন-বোনাস ঢুকলে কিছুটা কেনাকাটা বাড়বে। কিন্তু মাস শুরুর সাত দিন পেরিয়ে গেলেও বিক্রি নেই।

দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম বেনারসি পল্লি ঈশ্বরদীতে। ভারতীয় নামী দামী ব্রান্ডের শাড়ির তুলনায় ঈশ্বরদী বেনারসি পল্লিতে উৎপাদিত বেনারসি-কাতান শাড়ির মান অনেক উন্নত। এখানে বিন্দিয়া কাতান, পিওর বেনারসি শাড়িতে বিশেষ কারুকাজ, আনারকলি ও ফুলকলি ছাড়াও নেট কাতান, পিওর কাতান, ওপেরা কাতান, কুচি জামদানি তৈরি হচ্ছে। ঈদকে সামনে রেখে যে প্রাণ চাঞ্চল্য ঈশ্বরদী বেনারসি পল্লীতে ফিরে আসার কথা ছিলো তা আসেনি। অন্যান্যবারে দিনরাত সমানতালে শাড়ি তৈরিতে কারিগররা ব্যস্ত সময় পার করলেও এবারে শুয়ে বসে সময় কাটাতে হচ্ছে।

করোনা পরিস্থিতির কারণে দীর্ঘদিনের মন্দা ভাব থাকলেও এবারে ঈদকে সামনে রেখে ভালো ব্যবসার আশায় বুক বেঁধেছিলেন তাঁতি ও দোকানিরা। দীর্ঘ দুই বছর লোকসান গুনতে হয়েছে। অনেকেই পুঁজি হারিয়ে নি:স্ব হয়েছেন। এদিকে বেনারসি উপকরণের দাম অস্বাভাবিক বেড়ে যাওয়ায় ঐতিহ্যবাহী বেনারসি পল্লীর বেশীরভাগ কারখানাই বন্ধ হয়ে গেছে। তবুও ঈদকে সামনে রেখে তাঁতিরা বিভিন্ন সমিতি ও ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে চালু করেছেন কয়েকটি কারখানা। স্বপ্ন ছিলো ঘুরে দাঁড়াবার। কিন্তু স্বপ্ন কি অধূরা থেকে যাবে এ প্রশ্ন সংশ্লিষ্ঠ সকলের।

কারখানা মালিক ও নাসিম শাড়ি কুটিরের মালিক নাসিম জানান, মন্দাভাব কিভাবে কাটিয়ে উঠতে পারব ভেবে কোন কূলকিনারা পাচ্ছি না। ঈদের বেচাকেনায় এমন খরা পরিস্থিতি হবে আমরা কেউই কল্পনা করতে পারিনি।

জামান টেক্সটাইলের ব্যবস্থাপক শরিফুল আলম জানান, ফতেহমোহাম্মদপুরে বেনারসি তৈরির দ কারিগর রয়েছেন। দুটি কারখানায় ৩০টি তাঁত আছে। শাড়ির অর্ডার পাচ্ছি না। মানুষের অর্থনৈতিক অবস্থা ভালো না। দৈনন্দিন কেনাকাটা করতেই হাঁপিয়ে উঠেছে।

তাঁতি জাবেদ বেনারসি জানান, ঈশ্বরদীর বেনারসির সুনাম ও চাহিদা থাকায় ফতেহমোহাম্মদপুর এলাকায় গড়ে উঠেছে বেশ কিছু শাড়ির দোকান। কিন্তু এবারে কঠিন পরিস্থিতি। অনলাইনে ভারতীয় শাড়ি কেনাকাটার কারণে আমাদের খরিদ্দার নেই।

ঈশ্বরদী বেনারসি পল্লীর ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা খন্দকার ওবাইদুর রহমান জিলানী জানান, ঈশ্বরদীর উৎপাদিত শাড়িগুলোর গুণগত মান, সৌন্দর্য, রং, নকশা বা ডিজাইন অন্য দেশের তুলনায় অনেক ভালো। তাই এখানকার বেনারসি ও কাতানের চাহিদাও রয়েছে।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments