রবিবার, জুন ১৬, ২০২৪
Homeসারাবাংলাতাহিরপুরে বিলিন হয়ে যাওয়া কেশবপুর গ্রামে ৬০ বছর পর ফের জনবসতি শুরু

তাহিরপুরে বিলিন হয়ে যাওয়া কেশবপুর গ্রামে ৬০ বছর পর ফের জনবসতি শুরু

আহম্মদ কবির: গ্রামটিতে ফসলি জমি,বসতিজমি,বিদ্যালয়ের নামে জমি সবই আছে,এবং সরকারের নথিতে ওই গ্রামটির নাম কেশবপুর থাকলেও,বাস্তবে ছিলনা গ্রামের কোন অস্তিত্ব ও মানুষের বসবাস।স্থানীয়দের ধারণ মতে ৬০ বছর পূর্বে অর্থাৎ ১৯৬৩ সালে হাওরের উত্তাল ঢেউওয়ের ভয় ও জীবিকার তাগিদে ওই গ্রামের মানুষ গ্রাম ছেড়ে অন্যত্রে চলে যায় সবাই,তখন থেকে গ্রামটি মানুষশূণ্য।

এরপর থেকেই গ্রামটি হাওরের উত্তাল ঢেউয়ের আঘাতে ধীরে ধীরে বিলিন হয়ে অস্তিত্ব হারিয়ে ফেলে।এছাড়াও পার্শ্ববর্তী জয়পুর গ্রামেও একই সময়ে জনশূন্য দেখা দেয়।তবে জয়পুর গ্রামে কিছুদিন পরেই পার্শ্ববর্তী ছিলানী তাহিরপুর গ্রাম হতে স্থানান্তর হয়ে পুনরায় জনবসতি শুরু করলেও কেশবপুর গ্রামটি জনশূন্যই থেকে যায়।একসময় ওই কেশবপুর গ্রামে পূর্বে বসবাসকারী মহনবাশী,লিলু বর্মণ,কাচা বর্মণ ,মংলা বর্মণ,সুরেশল্ল বর্মণ নারায়ণ বর্মণ,মন্ডল বর্মণ, কুনাই বর্মণ কানো বর্মণ ,রায়পতি বর্মণ ,বাদল বর্মণসহ ২০-২৫টি পরিবারের লোকজন তাদের বাপদাদার ফেলে যাওয়া ফসলি জমি রোপণ করার জন্য মাটির টানে জিরাতি হয়ে(অস্থায়ী বসবাস করতেন) কার্তিক মাস থেকে জৈষ্ট্য মাস পর্যন্ত। কিন্তু কালের আবর্তে বিভিন্ন প্রতিকূলতায় ওদের ফসলি জমি গুলো বিক্রি করতে শুরু করায়।২০১১ সাল থেকে কেশবপুর গ্রামে অস্থায়ী বসবাসের জন্যও কেউ আসতো না।

গেল ২০১৬ সাল সাল থেকে তাহিরপুর উপজেলার শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের চারাগাঁও গ্রাম হতে আক্কাছ মিয়া (৭৫) নামের এক ব্যক্তি তার ক্রয়কৃত জমি রোপণ করার জন্য পুনরায় অস্থায়ী বসবাস শুরু করে ।ধীরেধীরে তিনি কেশবপুর গ্রামে স্থায়ী বসবাসের জন্য ৩০ শতাংশ জায়গা ক্রয় করে,গেল দুই বছর ধরে মাটি কাটার পর এই বছর ২০২৩ সালে স্থায়ী বসবাস শুরু করেন তিনি।

গ্রামটি সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের টাঙ্গুয়ার হাওর সংলগ্ন জয়পুর গ্রামের ঠিক দক্ষিণ পূর্বপাশে জগদীশপুর মৌজায় অবস্থান।

স্থানীয় প্রবীণ মুরব্বীদের সাথে কথা বলে জানাযায় এই কেশবপুর ও জয়পুর গ্রামে পূর্বে হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনের বসবাস ছিল।৬০ বছর পূর্বে হাওরের উত্তাল ঢেউ ও নানামুখী সমস্যায় গ্রামে নিজেদের বসতভিটে ছেড়ে অন্যত্রে ফাঁড়ি জমায় এই হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন ।তাদের মধ্যে কেউ কেউ আবার পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতেও চলে গেছে।এই গ্রামে ১৯৪০ সালে জয়পুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় নামে একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেও ছিল।যে বিদ্যালয়ে কেশবপুর, জয়পুর,গোলাবাড়ি ও ছিলানী তাহিরপুর গ্রামের ছাত্র-ছাত্রীরা পড়ালেখা করতো। গ্রাম দুটি জনশূন্য হয়ে যাওয়ার পর,বিদ্যালয়ের ঘরটি টিনসেট থাকায় পার্শ্ববর্তী ছিলানী তাহিরপুর গ্রামের লোকজন বিদ্যালয়ের ঘরটি ভেঙে পুনরায় ছিলানী তাহিরপুর গ্রামে নির্মাণ করে।বর্তমানে বিদ্যালয়টি নামে ছিলানী তাহিরপুর গ্রামে দুটি ভবন রয়েছে ।এই বিদ্যালয়ের নামে এখনো কেশবপুর গ্রামের ৩শতাংশ জায়গা রয়েছে।জায়গাটি ১৯৪০ সালে বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠাকালীন সময় ওই গ্রামে বসবাসকারী চথুর মরল বিদ্যালয়ের নামে দান করেছিলেন।

স্থানীয় জয়পুর গ্রামের ৭০ বছরের প্রবীণ মুরব্বী আব্দুল মালেক জানান,আমরা যখন ছোট সেই সময় বিলিন হয়ে যাওয়া গ্রামটিতে আমরা শেষ বয়সে জনবসতি দেখতে পেয়ে খুবই ভাল লাগলো। শিশু বয়সে ওই গ্রামে স্কুলে যাইতাম তখন হয়তো আমি ওয়ান টুতে পড়ি,এরপর থেকেই গ্রামটি জনশূন্য।এবছর একজন গ্রামটিতে ভিটেবাড়ি তৈরি করে বসবাস করতে দেখে ভালই লাগলো,আমরা হারিয়ে যাওয়া গ্রামটি পুনরায় ফিরে পেলাম।হয়তোবা সেই সময়ের মানুষগুলোকে আর ফিরে পারো না এই গ্রামে।

বিলিন হয়ে যাওয়া কেশবপুর গ্রাম হতে অন্যত্রে চলে যাওয়া প্রবীণ মুরব্বী লিলু বর্মণ জানান এই গ্রামে আমার বাপদাদাসহ পূর্বপুরুষ এই গ্রামে বসবাস করতেন,আমরাও করেছি,প্রতি বছরেই আমাদের ঘরবাড়ি হাওরের উত্তাল ঢেউয়ের আঘাতে ভেঙে যেতো,ঢেউয়ের সাথে যুদ্ধ করেই বাপদাদারা বসবাস করতেন।একসময় নিরুপায় হয়ে আমাদের নিয়ে ভিটেবাড়ি ফেলে পার্শ্ববর্তী(ধর্মপাশা উপজেলার)বর্তমান মধ্যনগর উপজেলার সীমান্তবর্তী মাছেরছড়া গ্রামে চলে আসেন। বর্তমানে আমরা ওই গ্রামে বসবাস করছি।একসময় আমরা জমি রোপণ করার জন্য কেশবপুর গ্রামে যাইতাম, আস্তে আস্তে জমি বিক্রি করার পর ১০-১২ বছর ধরে আমরা ওই গ্রামে আর যাইনা।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments