শুক্রবার, জুন ২১, ২০২৪
Homeসারাবাংলাভূঞাপুরে সাব-রেজিষ্টারকে দেয়া ঘুষের টাকা ফেরৎ চেয়ে উকিল নোটিশ !

ভূঞাপুরে সাব-রেজিষ্টারকে দেয়া ঘুষের টাকা ফেরৎ চেয়ে উকিল নোটিশ !

আব্দুল লতিফ তালুকদার: টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে সাব-রেজিষ্টারকে দেয়া ঘুষের টাকা ফেরৎ চেয়ে উকিল নোটিশ দিয়েছে এক ভুক্তভোগি। ৭ লক্ষ টাকা ঘুষ নেয়ার পরও তার দলিল নাম্বার পরিবর্তন করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

দলিল দাতা এবং গ্রহীতা সূত্রে জানাযায়, উপজেলার পুখুরিয়া শিয়ালকোল মৌজায় মৃত মো. হায়দার আলী খানের ৫৪ শতাংশ জমি উত্তরাধিকার সূত্রে পান তার স্ত্রী মাজেদা বেগম এবং একমাত্র কন্যা তানিয়া সুলতানা। এ সম্পত্তি দেখভাল করার জন্য তারা তানিয়ার স্বামী মো. আব্দুল বারী মিয়ার নামে পাওয়ার অব এটর্নি দলিল করতে আসেন ভূঞাপুর সাবরেজিস্ট্রার অফিসে।

গত ৩০/৪/২০২৩ তারিখ সম্পাদিত পাওয়ার অব এটর্নি দলিল করার জন্য সাবরেজিস্ট্রার অফিসে দাখিল করেন। কাগজপত্রে জটিলতার কথা বলে ১০ লক্ষ টাকা ঘুষ দাবি করেন সাব রেজিস্ট্রার অঞ্জনা রাণী দেবনাথ। পরে ৭ লক্ষ টাকা ঘুষের বিনিময়ে দলিল করতে রাজি হন তিনি। সে চুক্তি মোতাবেক ঘুষের ৭ লক্ষ টাকা বুঝে নিয়ে কমিশনের মাধ্যমে দলিল করার পরামর্শ দেন সাব রেজিস্ট্রার। সে মোতাবেক গত ৩/৫/২০২৩ তারিখ সকালে অফিস সহকারি জুয়েলকে প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র দিয়ে দলিল গ্রহিতার নিজ বাসা পৌর এলাকার ঘাটান্দি নাইমা মঞ্জিলে পাঠান সাব রেজিস্ট্রার অঞ্জনা রাণী দেবনাথ। বাসায় সম্পাদিত দলিলে মোট জমির পশ্চিম দিক থেকে ৫৪ শতাংশ জমির দলিল সম্পাদন করে বালাম বই, দলিলসহ অন্যান্য কাগজপত্রে দাতা ও গ্রহীতাগণের টিপসহি ও স্বাক্ষর নিয়ে আসেন। দলিলের সিরিয়াল নাম্বার পরে ১৪৩০।

অন্যদিকে একই সম্পত্তির অন্যান্য অংশিদাররা বাকি জমি বিক্রি করেন খাইরুল ইসলাম গংদের কাছে। তারা ৭/৫/২০২৩ তারিখে দলিল দাখিল করতে গিয়ে জানতে পারে এই সম্পত্তির পশ্চিমাংশ থেকে আগে দলিল হয়ে গেছে। পরে খাইরুল ইসলাম গংরা জমির পশ্চিমাংশ পাওয়ার জন্য প্রস্তাব দেন সাব রেজিস্ট্রারের কাছে। সাব রেজিস্ট্রার অঞ্জনা রাণী দেবনাথ ০৩/০৫/২০২৩ তারিখের গ্রহিতা মো. আব্দুল বারী মিয়ার কমিশনকৃত ১৪৩০ নং পাওয়ার অব এটনি দলিল বাতিল দেখিয়ে ০৭/০৫/২০২৩ তারিখ নিয়মিত দলিলে অন্তর্ভূক্ত করেন এবং ১৪৩০ নং দলিলের নাম্বার কেটে নতুন সিরিয়াল নাম্বার দেন ১৪৩১। অপর দিকে বিশেষ সুবিধার বিনিময়ে খাইরুল ইসলাম গংদের ১৪৩১নং নিয়মিত দলিলের নাম্বার কেটে নতুন সিরিয়াল নাম্বার দেন ১৪৩০।

বিষয়টি জানাজানি হলে প্রথম দলিল গ্রহীতা আব্দুল বারী মিয়া তার দেয়া ঘুষের ৭ লক্ষ টাকা ফেরত চাইলে নানা তালবাহানা করতে থাকে। একপর্যায়ে ঘুষের টাকা ফেরত দিতে অস্বীকার করায় গত ১৬/০৫/২০২৩ তারিখে ঘুষের টাকা ফেরৎ চেয়ে এ্যাডভোকেটের মাধ্যমে উকিল নোটিশ দেন। নোটিশে বলা হয়েছে ৭ কার্য দিবসের মধ্যে ঘুষের টাকা ফেরত না দিলে দুই কোটি টাকা ক্ষতিপুরণের দাবিতে প্রচলিত আইনে মামলা করা হবে। ভূঞাপুর সাব-রেজিস্ট্রার অঞ্জনা রাণী দেবনাথ জানান, তিনি কোন নোটিশ পাননি এবং কোন ঘুষ গ্রহন করেনি।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments