বুধবার, এপ্রিল ২৪, ২০২৪
Homeসারাবাংলাযে কোন সময় নদীগর্ভে বিলিন হতে পারে সাপাহারের কৃষ্ণসদা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়

যে কোন সময় নদীগর্ভে বিলিন হতে পারে সাপাহারের কৃষ্ণসদা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়

বাবুল আকতার: নওগাঁর সাপাহারে পুর্নভবা নদী গর্ভে বিলিন হতে যাওয়া কৃষ্ণসদা গ্রামে নদীর কিনারে অবস্থিত কৃষ্ণসদা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালটি রক্ষার জন্য শিক্ষক, শিক্ষার্থী, অবিভাবক সহ বিদ্যালয় সংশ্লিষ্ট সকলেই সরকার বাহাদুরের আশু দৃষ্টি কামনা করেছেন।

বিদ্যালয়টির ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি,প্র্রধান শিক্ষক ও গ্রামবাসী সূত্রে জানা যায় ১৯৯৫ সালের দিকে নদী ও বিলের কোল ঘোঁসে প্রায় সাড়ে তিন কিলোমিটার লম্বা কৃষ্ণসদা গ্রামের বসবাস রত ছেলে মেয়ে সহ নদীন পূর্বপাড়ে হাপানিয়া গ্রামেরও বেশ কিছু ছেলে মেয়ের লেখা পড়ার কথা চিন্ত করে তৎকালীন এলাকার বেশ কিছু শিক্ষানুরাগী ব্যক্তিবর্গের উদ্যোগে পুর্নভবা নদীর পশ্চিম তীর ঘেঁষে সাড়ে ৩৬শতাংশ জমির উপর প্রথমে কমিউনিটি প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপন করে সেখানে তাদের ছেলে মেয়েদের লেখা পড়া শুরু করে। এর পর ২০১১সালের দিকে বিদ্যালয়টি রেজিষ্ট্রেশন ভুক্তির পর গত ২০১৩সালের জানুয়ারী মাসে বঙ্গবন্ধুর কন্যা তার পিতাকে অনুসরণ করে দেশের সকল রেজি: প্রাথমিক বিদ্যালয়কে এক যোগে জাতীয় করণেন ঘোষনা দিলে অত্র বিদ্যালয়টিও জাতীয় করণের অন্তভুক্ত হয় এবং সে থেকে যাথরিতি সম্পূর্ন সরকারী কারিকুলাম অনুযায়ী বিদ্যালয়টিতে নুতন উদ্যোগে পাঠদান শুরু হয়।নদীর কিনারে বিদ্যালয়টির অবস্থান হওয়ায় বছর বছর বন্যর পানির তোড়ে বিদলয়টির মুল ভবনটুকু বাদে প্রায় সম্পুর্ন জমি নদী গর্ভে বিলিন হয়ে গেলেও যেন দেখার কেউ নেই। বর্তমানে বিদ্যালয়টির সামনে শিক্ষার্থীদের খেলা ধুলা করার মত কোন জায়গা নেই। এছাড়া বর্তমানে বিদ্যালয়টি মারাত্মক ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে।

এবছর বর্ষার পানি কোন ভাবে ফুলে ফেঁপে উঠে বন্যার সৃষ্টি হলে সম্পূর্ন বিদ্যালয় ভবনটি নদী গর্ভে বিলিন হয়ে যেতে পারে বলে বিদ্যালয় সংশ্লিষ্ট সকলে ও এলকার শিক্ষানুরাগী ব্যক্তিরা মনে করছেন। এবিষয়ে বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি তোজাম্মেল হক,প্রধান শিক্ষক রব্বুল হোসেন ও এলাকাবাসীর সাথে কথা হলে তারা বিদ্যালয়টি টিকিয়ে রাখারতে বিদ্যালয়ের তিন দিকে শক্ত গাইড ওয়াল নির্মান অতিব জরুরী হয়ে পড়েছে বলে জানান এবং ইতোমধ্যেই প্রধান শিক্ষক রব্বুল হোনেন সংশ্লিষ্ট বিষয়ে সাপাহার উপেেজলা শিক্ষা অফিসে একটি আবেদনপত্রও জমা দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন।

এর পর নদীগর্ভে বিলিন হতে যাওয়া বিদ্যালয়টি সম্পর্কে জানতে চেয়ে সাপাহার উপজেলা শিক্ষা অফিসার তৃষিত কুমার চৌধুরীর সাথে বিদ্যালয়টির করুন অবস্থার কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন যে, বিষয়টি আমরা অনেক আগে থেকেই চিন্তা করেছি এর পর বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের নিকট থেকে পাওয়া আবেদনপত্রটি যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যেমে উর্ধনত কর্তৃপক্ষের নিকট পাঠিয়েছি বিদ্যালয়টি রক্ষার জন্য নিশ্চিত কোন কাজ হবে বলে তিনি আশস্ত করেছেন।

এর পর এবিষয়ে সাপাহার উপজলা পরিষদ চেয়ারম্যান শাহজাহান হোসেন এর সাথে কথা হলে তিনি জানান যে, শিক্ষাবান্ধব দেশে শিক্ষা বান্ধব সরকারের আমলে শিক্ষার মূল্য অক্ষুন্ন রাখতে যে কোন মূল্যে বিদ্যালয়টিকে টিকিয়ে রাখার জন্য ব্যাবস্থা গ্রহণ করা হবে। তিনি জানান যে ইতোমধ্যেই বিদ্যালয়টি সম্পর্কে উপজেলা শিক্ষাকমিটিতে আলোচনা হয়েছে সরকারীভাবে বিদ্যালয়টি নদী গর্ভে বিলিন ঠেকাতে জরুরী ভিত্তিতে কাজ করা হবে। কোমল মতি শিক্ষার্থীদের শিক্ষাব্যাবস্থা অক্ষুন্ন রাখতে বিদ্যালয়টির উত্তর পূর্ব ও দক্ষিনাংশে গাইড ওয়াল নির্মানের জন্য বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষক শিক্ষার্থী এলাকাবাসী সহ সকল শিক্ষানুরাগী মহল সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments