সোমবার, ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০২৪
Homeসারাবাংলাবর্ষা আসলেই ভয়ে গা শিহরে উঠে হাওরবাসীর

বর্ষা আসলেই ভয়ে গা শিহরে উঠে হাওরবাসীর

আহম্মদ কবির: বর্ষা আসলেই বসতবাড়ি ভাঙ্গন ও নিজের জানমান হারানোর আতঙ্কে গা শিহরে উঠে সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার উপজেলার হাওর কেন্দ্রিক টাঙ্গুয়ার হাওর এলাকার মানুষের।এ এলাকার মানুষের বর্ষা আসলেই সাগররুপি টাঙ্গুয়ার হাওরের আছড়ে পড়া উত্তাল ঢেউয়ের কবলে বসতবাড়ি ভাঙ্গন ও নিজের জানমান হারানোর ভয়ে গা শিহরে উঠে।

জানাযায় এ উপজেলার টাঙ্গুয়ার হাওর সংলগ্ন জয়পুর,গোলাবাড়ি,জয়পুর নতুনহাটি, ইসলামপুর,শ্রীয়ার গাও,মুজরাই,মন্দিয়াতা কান্দাহাটি,তরং কান্দাহাটি,মদনপুর, উজ্জ্বলপুর,কালাগাও নতুন হাটি, বিনোদপুর,ইন্দ্রপুর, হুকুমপুর কান্দাহাটি, বলাইকান্দি,সহ এখানকার গ্রামগুলো ছোট-ছোট একেকটা ভাসমান দ্বীপের মতো দেখা যায়।বর্ষা আসলেই হাওরে সামান্য বাসাত হলেই টাঙ্গুয়ার হাওরে প্রচণ্ড ঢেউ ওঠে।তিন-চার ফুট উঁচু এক একটি বিশাল ঢেউ এসে আছড়ে পড়ে হাওর পাড়ের গ্রামগুলোতে।তখন চোখের সামনেই বিলীন হয়ে যায় কষ্টেগড়া বসতভিটা।

এ উপজেলায় এমনও কিছু গ্রাম রয়েছে যে গ্রামগুলোর নাম নথিতে ঠিকই আছে কিন্তু বাস্তবে সেসব গ্রামের কোন অস্তিত্বই নেই।গেল বছর এমন সময় আকস্মিক বন্যায় উপজেলার নিম্নাঞ্চলের শতশত ঘরবাড়ি তলিয়ে যায়।প্রত্যেকটি বাড়ির কোমর থেকে বুক সমান পানি ছিল।কোথাও কোথাও টিনের চালার উপর দিয়েও ঢলের পানি বয়ে গেছে।অনেক বাড়ির অস্তিত্ব পর্যন্ত ছিল না।বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়েছিল সমস্ত এলাকা।বিদ্যুৎ না থাকায় ছিল না মোবাইল নেটওয়ার্ক।হাওরের উত্তাল ঢেউয়ের কারনে নৌকা দিয়ে যোগাযোগ করাও যেতো না।দেখা দিয়েছিল খাবার, বিশুদ্ধ পানি,মোমবাতি,দিয়াশলাইসহ জরুরি পণ্যের সংকট।এই এলাকায় নেই কোন বন্যা আশ্রয়কেন্দ্র। পার্শ্ববর্তী এলাকায় অস্থায়ী বন্যা আশ্রয় কেন্দ্র থাকলেও পর্যাপ্ত নয়।বাড়ি ছেড়ে অন্যত্রে যাওয়ার বড় কোন নৌকাও ছিলনা।প্রাণ বাঁচাতে রীতিমতো সংগ্রাম ও মানবেতর জীবন কাটাতে হয়েছে টাঙ্গুয়ার হাওর এলাকার প্রতিটি মানুষকে।

টাঙ্গুয়ার হাওর পাড়ের জয়পুর গ্রামের বিধবা আয়েশা বেগম বলেন,গত বছর এই সনয় আমার উপরে যে গজব গেছে।অন্যেও বুক কাঁপে।চৌখের পলকে বাড়িঘর ভাইঙ্গা ধান-চাউল ভাসাইয়া লইয়া গেছে।কোন রকম অন্যের বাড়ি গিয়া জীবন বাঁচাইছিলাম।

একই গ্রামের নতুন হাটির কামাল মিয়া বলেন গত বছরের বানে আমার বাড়িঘর ভাইঙ্গা চুইরা নিয়া যাওয়ায় কোন রকম গাছে ধইরা বউ বাচ্চা নিয়া বাঁচছি। এর পাশের গাঁও থাইক্কা নাও লইয়া আইয়া আমরারে উদ্ধার করছে।ঠিক এই সময় এখন পানি আইছে আমার বুকটা ধড়পড় করতাছে।কোন জানি বাড়িঘর ভাইঙ্গা লইয়া যায়গা।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments