শুক্রবার, জুলাই ১৯, ২০২৪
Homeসারাবাংলাজগন্নাথপুরে পাগলা শিয়াল-কুকুর-বানর ও বিড়ালের কামড়ে আহত-৩২

জগন্নাথপুরে পাগলা শিয়াল-কুকুর-বানর ও বিড়ালের কামড়ে আহত-৩২

ওয়াহিদুর রহমান : সুনামগঞ্জ জেলাধীন জগন্নাথপুর উপজেলার সর্বত্র পাগলা কুকুর,শিয়াল,বানর ও বিড়ালের আতঙ্কে-আতঙ্কিত গোটা উপজেলাবাসী।
দিন দুপুরে এবং রাতে আত্মরক্ষার্থে এই হিংস্র পাগলা পশুর হাত থেকে রেহাই পেতে গ্রামাঞ্চলের মানুষজন রাস্তা-ঘাটে লাঠিসোটা ও বিভিন্ন জাতের জিনিষপত্র হাতে নিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে বলে ভূক্তভোগীদের মধ্যে অনেকে জানান।

গত-১(সেপ্টেম্বর)শুক্রবার থেকে ৪(সেপ্টেম্বর)সোমবার পর্যন্ত জগন্নাথপুর পৌর-শহর সহ জগন্নাথপুর উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চলে দিনে অথবা রাতে পাগলা শিয়াল, কুকুর-বানর ও বিড়াল খোলামেলা জায়গায় এমনকি বসত ঘরের ভিতর ঢুকেও লোকজনকে কামড়াতে মুঠেই দ্বিধাবোধ করছেনা।

এ-পর্যন্ত পাগলা পশুর কামড়ে উপজেলায় নারী,পুরুষ,বয়োজ্যেষ্ঠ বৃদ্ধা এবং অবুঝ বাচ্ছা সহ প্রায় ৩২জনকে কামড়ে আহত করেছে। এরই মাঝে ২৬ জনকে জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিয়েছেন বলে কর্তব্যরত চিকিৎসক নিশ্চিত করেছেন।তবে অন্যান্য  আহতরা স্থানীয় পর্যায়ে চিকিৎসা নিয়েছেন বলে
অনেকে জানান।
পাগলা কুকুর,শিয়াল,বানর ও বিড়ালের কামড়ে আহতরা হলেন, জগন্নাথপুর উপজেলার রানীগঞ্জ  ইউনিয়নের টিয়ার গাঁও গ্রামের আতাউর রহমান (৩০),বিলাল হোসেন(৪৫),দোস্তপুর গ্রামের কুতুব উদ্দিন(৬৫),নাইম হাসান(১৯),সাজ্জাদ মিয়া(৫০), নুর ইসলাম(৮০),আবুল কাশেম(৪০),কুবাজপুর গ্রামের জাবেদ মিয়া(৩০),ফরাজ মিয়া(৫০), পাবেল মিয়া(২৩),নাইম মিয়া(২০),আসিদুর রহমান(৫০),মোজাম্মেল হক(২২),মুকাদ্দুছ মিয়া (২৩),লেচু মিয়া (৪৫), আজাদ মিয়া (৪৪), উজ্জল মিয়া (১৯),আলী হোসেন(৪০),কাঞ্চন মিয়া(২৫), তারেক রহমান(১৮),সাইদ মিয়া(১৭),জামালপুর গ্রামের মিনার আলী(১৪),আছিমপুর গ্রামের রহিমা বেগম(৬৫),পৌর-শহরের হাসপাতাল পয়েন্ট এলাকার কামরুল ইসলাম(৩২),পূর্ব ভবানীপুর গ্রামের মোজাহিদ মিয়া(১৮) ও নোয়াগাঁও গ্রামের মাত্র ১৩ মাস বয়সী অবুঝ শিশু আকছা বেগম।এর মধ্যে কুকুরের কামড়ে ২৪, বানরের কামড়ে ১, বিড়ালের কামড়ে ১ ও বাকিরা শিয়ালের কামড়ে আহত হয়েছেন বলে এলাকাবাসী সূত্রে জানাগেছে।

এ ব্যাপারে ৪(সেপ্টেম্বর)সোমবার জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার-পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃমধু সুধন ধর ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান,গত ৪ দিনে কুকুর সহ বিভিন্ন পশুর কামড়ে আহত ২৬ জন রোগী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসে চিকিৎসা নিয়েছেন।তিনি অত্যান্ত দুঃখের সাথে বলেন,দীর্ঘদিন ধরে সরকারী বরাদ্দের কোন ভ্যাকসিন আমাদের সদর হাসপাতালে নেই।জরুরী প্রয়োজনে রোগীদের তা আমরা দিতে পারছিনা।আপাতত জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ থেকে প্রাপ্ত ভ্যাকসিন একেবারে অস্বচ্ছল রোগীদের বিনামূল্যে আমরা প্রদান করেছি।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerkagoj.com.bd/
Ajker Bangladesh Online Newspaper, We serve complete truth to our readers, Our hands are not obstructed, we can say & open our eyes. County news, Breaking news, National news, bangladeshi news, International news & reporting. 24 hours update.
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments