সোমবার, মার্চ ৪, ২০২৪
Homeসারাবাংলাফেরার আমন্ত্রণ জানিয়ে দুর্গাদেবীকে বিদায় দিলেন শ্রীমঙ্গলে হাজার হাজার ভক্তরা

ফেরার আমন্ত্রণ জানিয়ে দুর্গাদেবীকে বিদায় দিলেন শ্রীমঙ্গলে হাজার হাজার ভক্তরা

মোঃ জালাল উদ্দিনঃ চোখের জল আর আবারও স্বর্গ থেকে মর্ত্যালোকে ফেরার আমন্ত্রণ জানিয়ে দুর্গাদেবীকে বিদায় দিলেন মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে হাজার হাজার ভক্তরা। বাবার বাড়ি বেড়ানো শেষে ‘আনন্দময়ী’ দেবী ফিরে গেলেন কৈলাসের দেবালয়ে। নানা উপাচারে বিজয়া দশমী পূজোর পর উৎসবমুখর পরিবেশে ঢাকের বাদ্য, আবির খেলা আর বিসর্জনের মধ্য দিয়ে সাঙ্গ হলো বাঙালি হিন্দুর সবচেয়ে বড় পার্বণ পাঁচ দিনের শারদীয় দুর্গোৎসব।
সনাতন ধর্মের বিশ্বাস অনুযায়ী, মহালয়ার দিন ‘কন্যারূপে’ ধরায় আসেন দশভূজা দেবী। বিসর্জনের মধ্য দিয়ে তাকে এক বছরের জন্য বিদায় জানানো হয়। তার এই আগমন ও প্রস্থানের মাঝে আশ্বিন মাসের শুক্লপক্ষের ষষ্ঠী থেকে দশমী তিথি পর্যন্ত চলে দুর্গোৎসব।
বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ শ্রীমঙ্গল উপজেলা শাখার সভাপতি ডা. হরিপদ রায় বলেন, মহিষাসুর বধ করার মধ্য দিয়ে আজ বিজয়ী হয়েছেন দুর্গা মা। সে কারণেই আজ আমাদের আনন্দের দিন, আমরা উৎসব করি। জাতি, ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষ সবাইকে বিজয়ার শুভেচ্ছা জানাই।
বিজয়া দশমীর আনুষ্ঠানিকতায় মঙ্গলবার ৯টা ৫৮ মিনিটের মধ্যে শেষ হয় দশমী বিহিত পূজা। ষোড়ষাপোচারে পূজার পাশাপাশি দেবী প্রতিমার হাতে জরা, পান, শাপলা ডালা দিয়ে আরাধনা করা হয়। সবশেষে দর্পণ বিসর্জনের সময় প্রতিমার সামনে একটি আয়না রেখে তাতে দেবীকে দেখে তার কাছ থেকে সাময়িক সময়ের জন্য বিদায় নেন ভক্তরা। মন্ত্র উচ্চারণের মাধ্যমে প্রতিমা থেকে ঘটে এবং ঘট থেকে আবার ভক্তের হৃদয়ে ‘মাকে’ নিয়ে আসাকে বিসর্জন বলে। শ্বশুরালয়ে ফেরার আগে দুর্গতিনাশিনী দেবী দূর্গাকে সিঁদুর, পান আর দুর্বা দিয়ে বরণ কর নেন নারী পূণ্যার্থীরা; এর মধ্য দিয়ে জরা কাটিয়ে পৃথিবী যেন শস্য শ্যামল হয়ে ওঠে, সেই প্রার্থনা করা হয়।
বিজয়া দশমীতে দুপুর থেকেই মণ্ডপে মণ্ডপে রঙ খেলায় মেতে ওঠেন ভক্তরা। সকলের কল্যাণ ও স্বামীর দীর্ঘায়ু লাভে একে অপরকে ভক্তি সহকারে সিঁদুর পরিয়ে দেন নারীরা। বিদ্যালাভে শিক্ষার্থীরা বই ছুইয়ে নিয়েছেন মায়ের পায়ে। পাখার বাতার, ঢাক, ঝাঁজ আর শঙ্কের বাদ্যে দেবীকে মিষ্টিমুখ করিয়েছেন ভক্তরা। চোখের জলে হাতজোড় করে জানিয়েছেন প্রণাম।
মঙ্গলবার ২৪ অক্টোবর ২০২৩ইং, দুপুরে শ্রীমঙ্গল উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে ট্রাকে করে প্রতিমা এনে জড়ো করা হয় মৌলভীবাজার রোডের সার্বজনীন দুর্গাবাড়ী এলাকায়। এরপর সেখান থেকে শঙ্খ আর উলুধ্বনি, খোল-করতাল-ঢাক-ঢোলের সনাতনি বাদ্যের সঙ্গে আধুনিক উচ্চস্বরের সাউন্ড সিস্টেমে দেবী বন্দনার গানে গানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে শোভাযাত্রাটি মৌলভীবাজার রোডের সার্বজনীন দুর্গাবাড়ী থেকে শুরু হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে ভক্তরা। স্বল্পগতিতে চলা ট্রাক ও পিকআপ ভ্যানে চড়া পূজারিদের পাশাপাশি হাজার হাজার ভক্তরা পায়ে হেঁটে শোভাযাত্রায় অংশ নেন। প্রতিমা ঘাটে নেওয়ার পর ভক্তকূল শেষবারের মতো ধূপধুনো নিয়ে আরতিতে মেতে ওঠেন। শেষে পুরোহিতের মন্ত্রপাঠের মধ্য দিয়ে দেবীকে বিসর্জন দেওয়া হয়। বিসর্জন শেষে মন্দিরে শান্তির জল নিয়ে আসা হয়; সন্ধ্যায় মণ্ডপে করা হয় আশীর্বাদ।
আনুমানিক বিকাল তিনটার সময় বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ শ্রীমঙ্গল উপজেলা শাখার সভাপতি ডা. হরিপদ রায়ের সভাপতিত্বে ও বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ শ্রীমঙ্গল পৌর শাখার সাধারণ সম্পাদক বিশ্বনাথ দাশ চৌধুরী ছোটন এর সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে উদ্বোদন করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব উপাধ্যক্ষ ড. মোঃ আব্দুস শহীদ এমপি।
বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, মৌলভীবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অধ্যক্ষ সৈয়দ মনসুরুল হক, শ্রীমঙ্গল উপজেলা চেয়ারম্যান ভানু লাল রায়, শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলী রাজিব মাহমুদ মিঠুন, শ্রীমঙ্গল উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ লিটন আহমেদ, শ্রীমঙ্গল উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মিতালী দত্ত, শ্রীমঙ্গল উপজেলা আওয়ামীগের সভাপতি অর্ধেন্দু কুমার দেব, শ্রীমঙ্গল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহাঙ্গীর হোসেন সরদার, উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি বর্তমানে উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা মোঃ তফাজ্জল হোসেন ফয়েজ, ভিক্টোরিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অয়ন চৌধুরী, শ্রীমঙ্গল উপজেলা বেসরকারি মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সাবেক সভাপতি ও বেগম রসুলজান আব্দুল বারী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিমান বর্ধন, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ শ্রীমঙ্গল উপজেলা শাখার সাবেক সভাপতি স্বপন রায়, শ্রীমঙ্গল উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক জগৎজ্যোতি ধর, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ মৌলভীবাজার জেলা শাখার সহ-সভাপতি অজয় কুমার দেব, বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের শ্রীমঙ্গল উপজেলা শাখার সভাপতি দ্বিজেন্দ্র লাল রায়, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ শ্রীমঙ্গল উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক শ্রীপদ দেব, পৌরসভা ৭নং ওয়ার্ডের কাউন্সিল মীর এম এ সালাম, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ শ্রীমঙ্গল পৌর শাখার সভাপতি সুমন রায়, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ শ্রীমঙ্গল উপজেলা শাখার সাবেক সাধারণ সম্পাদক জহর তরফদার, সুশীল শীল, বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের শ্রীমঙ্গল উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক সমীরন সরকার। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, প্রিন্ট মিডিয়া, ইলেকট্রনিক মিড়িয়া ও অনলাইন সাংবাদিকবৃন্দ।
এই শোভাযাত্রাকে দেখতে শ্রীমঙ্গলে লক্ষাধিক মানুষের ঢল নামে। রাস্তায় স্থান না পেয়ে অনেকে দোতলা-তিনতলা ভবনের ছাদ কিংবা বেলকনিতে দাঁড়িয়ে প্রতিমা দর্শন করেন। বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ শ্রীমঙ্গল পৌর শাখার সাধারণ সম্পাদক বিশ্বনাথ দাশ চৌধুরী ছোটন জানান, এই শোভাযাত্রায় প্রায় শতাধিক প্রতিমা নিয়ে শোভাযাত্রায় অংশগ্রহণ করেন। সারা দেশে ৩২ হাজার ৪০৭টি মণ্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
গত ১৪ অক্টোবর শুভ মহালয়ার মধ্য দিয়ে দেবীতে স্বর্গালোক ছেড়ে পৃথিবীতে আসার আমন্ত্রণ জানানো হয়। ২০ অক্টোবর দুর্গাষষ্টীর মধ্য দিয়ে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব শুরু হয়।
পঞ্জিকামতে, দেবী দুর্গা এবার মর্ত্যে এসেছেন ঘোটকে অর্থাৎ ঘোড়ায় চড়ে। ফিরবেনও তাতেই। এই বাহনের ফল হলো ‘ছত্রভঙ্গ’। শ্রীমঙ্গল উপজেলার মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও ভূনবীর দশরথ স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ ঝলক কান্তি চক্রবর্তী তিনি বলেন, ঘোটকে যেহেতু দেবীর আগমন এবং গমন, সেটি অশুভ বার্তা, তবে ভক্তের আরাধনায় দেবীর মন তুষ্ট হলেই মিলবে শান্তি। প্রার্থনায় মায়ের মন ভক্তের জন্য সহানুভূতিশীল হয়। অশুভের বিনাশ হয়, শুভশক্তির জয় হয়।
আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerkagoj.com.bd/
Ajker Bangladesh Online Newspaper, We serve complete truth to our readers, Our hands are not obstructed, we can say & open our eyes. County news, Breaking news, National news, bangladeshi news, International news & reporting. 24 hours update.
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments