বৃহস্পতিবার, মে ২৩, ২০২৪
Homeসারাবাংলাদুধের তৃষ্ণায় বুক ফাটে, মাকে খোঁজে হাফসা

দুধের তৃষ্ণায় বুক ফাটে, মাকে খোঁজে হাফসা

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: আধো বুলিতে সবে মা ডাকতে শিখেছে ১৫ মাস বয়সের হাফসা। তার সেই ডাকে সাড়া মেলে না মমতাময়ী মায়ের। টানা ছয় দিন ধরে তার মা মা ডাক আর বুকফাটা কান্নায় ভারি গোটা গ্রাম। বুঝে ওঠার আগেই পৃথিবীর সবচেয়ে নিরাপদ আশ্রয়টি হারিয়েছে অবুঝ হাফসা। যার সান্ত্বনা নেই আপন-স্বজন, পাড়া-প্রতিবেশী, কারও কাছেই।

মঙ্গলবার দুপুরে এমনই হৃদয়বিদারক দৃশ্য দেখা গেছে শিশু হাফসার নানাবাড়ি সৈয়দপুরের খাতামুধুপুর ইউনিয়নের মুসরত ধুলিয়া সর্দারপাড়া গ্রামে। ১৮ এপ্রিল মারা যান শিশুটির মা এ্যামিলি আক্তার। দৃশ্যত আত্মহত্যা বলে মনে হলেও স্বজন ও প্রতিবেশীদের দাবি, হত্যার পর এ্যামিলির লাশ ঝুলিয়ে দিয়ে সাজানো হয়েছে আত্মহত্যার নাটক। অন্যদিকে স্ত্রী হত্যার দায় মাথায় নিয়ে গ্রেপ্তার এড়াতে পালিয়ে বেড়াচ্ছে হাফসার বাবা নুরুল আমিন। আর তাতেই শুরুর আগেই এলোমেলো হয়ে গেছে শিশু হাফসার পৃথিবী।

সন্তান হারা এ্যামিলির মা শিউলি বেগম বলেন, দুধের তৃষ্ণায় বুক ফাটে। সারাদিনই মাকে খোঁজে আর কান্না করে হাফসা। এখন এই বাচ্চাকে কী দিয়ে সান্ত্বনা দেব? তার ভবিষ্যৎই বা কী? কীভাবে বাঁচাব তাকে? এমন মৃত্যু যেন আর কোনো মাকে দেখতে না হয়। কোনো সন্তানকে যেন এভাবে মা-হারা হতে না হয়।

পুলিশ, স্বজন ও স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রায় তিন বছর আগে নীলফামারী সদর উপজেলার চড়াই খোলা ইউনিয়নের উত্তর বেঙমাড়ি গ্রামের নুরুল আমিনের সঙ্গে বিয়ে হয় সৈয়দপুরের খাতামধুপুর ইউনিয়নের মুসরত ধুলিয়া সর্দারপাড়া গ্রামের এ্যামিলি আক্তারের। বিয়ের সময় নগদ ৫ লাখ টাকা ও একটি মোটরসাইকেল যৌতুক হিসেবে দেয় মেয়ে পক্ষ। এর পরও সুখ জোটেনি এ্যামিলির ভাগ্যে। বিয়ের কিছুদিন পর থেকেই শ্বশুর বাড়ি থেকে ৪ লাখ টাকা আনার জন্য এ্যামিলিকে চাপ দিতে থাকে স্বামী নুরুল আমিন। এ নিয়ে প্রায়ই তাদের মধ্যে ঝগড়া হতো।

বৃহস্পতিবারএ্যামিলির বড় ভাই ওলিউর রহমান বোনের শ্বশুর বাড়ির এলাকার এক প্রতিবেশীর মাধ্যমে জানতে পারেন, তাঁর বোনকে হত্যা করে লাশ ঘরের ফ্যানের সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। খবর পেয়ে ছুটে যান তিনি। এ সময় নুরুল আমিন ও তার পরিবারের কেউই বাড়িতে ছিল না। খাটের এক কোনায় ছটফট করছিল কান্নারত শিশু হাফসা। খবর পেয়ে লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহত এ্যামিলির প্রতিবেশী ফিরোজা বেগম জানান, যৌতুক নিয়ে তাদের মধ্যে অশান্তি ছিল। এ নিয়ে একাধিকবার নুরুল আমিনকে বোঝানো হয়েছে। তাতে শেষ রক্ষা হয়নি এ্যামিলির। ১৫ মাসের শিশুকন্যাকে রেখেই চিরতরে চলে যেতে হয়েছে তাঁকে। এখনও কান্না থামেনি দুধের শিশুটির। নানির কাছে আছে সে। কারও আদর-ভালোবাসাতেই শান্ত হচ্ছে না হাফসা।

নিহতের ভাই ওলিউর রহমানের দাবি, তাঁর বোনকে প্রথমে শ্বাসরোধে হত্যা করে পরে ফাঁস টানিয়ে ঝুলিয়ে দিয়ে আত্মহত্যার নাটক সাজানো হয়েছে। তাঁর স্বামী নুরুল আমিন মাদাকসক্ত। এর আগেও সে এ্যামিলিকে হত্যার চেষ্টা করেছিল।

সদর থানার এসআই আবু তালেব আকন্দ জানান, তিনি ঘটনাস্থলে পৌঁছে এ্যামিলিকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পান। পরে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠান।

থানার ওসি তানভীরুল ইসলাম জানান, আইনি প্রক্রিয়া শেষে মরদেহ স্বজনের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন এলে বোঝা যাবে এ্যামিলির মৃত্যুর আসল কারণ। সে অনুসায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments