বাংলাদেশ ডেস্ক: মেডিকেল টেকনোলোজিস্টদের নতুন নিয়োগবিধি কেন বাতিল করা হবে না, জানতে চেয়ে হাইকোর্ট ইতিপূর্বে স্বাস্থ্য অধিদফতরের প্রতি রুল জারি করেছিলেন। কিন্তু সেটিকে গোপন রেখে ল্যাব অ্যাটেনডেন্টদের ১৫ জনের একটি গ্রুপ হাইকোর্টের অন্য একটি বেঞ্চে নতুন নিয়োগবিধির অধীনে তাদের পদোন্নতি দাবি করে রিট মামলা করেন।

হাইকোর্টের এই বেঞ্চ যেহেতু আগের রিট মামলা বা রুলের কথা জানতেন না তাই স্বাভাবিকভাবেই ল্যাব অ্যাটেনডেন্টদের পদোন্নতির এই আবেদনটি নিষ্পত্তির জন্য রুল জারি করেন। নিয়ম অনুযায়ী এক্ষেত্রে স্বাস্থ্য অধিদফতরের কাজ ছিলো হাইকোর্টের পরের এই বেঞ্চটিকে আগের রুলের কথা অবগত করা। কিন্তু সেটি স্বাস্থ্য অধিদফতর করেনি। এমনকি পরের এই বেঞ্চটি যে ‘আবেদন নিষ্পত্তি’র রুল জারি করেছেন সেটিরও ইচ্ছাকৃতভাবে অপব্যাখ্যা করেছেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তারা। বলা হয়, হাইকোর্ট নাকি এই ১৫ জন ল্যাব অ্যাটেনডেন্টকে মেডিকেল টেকনোলোজিস্ট পদে পদোন্নতির আদেশ দিয়েছেন। আর এই মিথ্যা তথ্যকে ভিত্তি হিসেবে দাঁড় করিয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের ‘দুই হাসান’র সিন্ডিকেট হাতিয়ে নিয়েছেন অন্তত ৩ কোটি টাকা। এই অবৈধ পদোন্নতি বাবদ ১৫ ল্যাব অ্যাটেনন্ডেন্টের কাছ থেকে গড়ে কমপক্ষে ২০ লাখ টাকা করে আদায় করা হয়েছে বলে স্বাস্থ্য অধিদফতরের সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে।

তবে সর্বশেষ গত ৩১ আগস্ট হাইকোর্ট নতুন করে রুল জারি করেছেন। স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক (প্রশাসন) শেখ মোহাম্মদ হাসান ইমামের স্বাক্ষরে জারি হওয়ায় ১৫ জন ল্যাব অ্যাটেনডেন্টকে মেডিকেল টেকনোলজিস্ট (ল্যাবরেটরি) পদে দেওয়া পদোন্নতি কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল দিয়েছেন হাইকোর্ট। পদোন্নতিসংক্রান্ত বিষয়ে করা এক সম্পূরক আবেদনের শুনানি নিয়ে বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের সমন্বয়ে গঠিত ভার্চুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রুল দেন। স্বাস্থ্যসচিব (স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ), আইনসচিব, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ও পরিচালককে (প্রশাসন) চার সপ্তাহের মধ্যে ওই রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের সূত্র জানায়, অধিদফতরের অন্যান্য সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা এই অবৈধ পদোন্নতিতে মোটেই রাজি ছিলেন না। নিয়ম অনুযায়ী স্বাস্থ্য অধিদফতরের অধীন সকল পদোন্নতিই হবার কথা বিভাগীয় পদোন্নতি কমিটির মাধ্যমে। অতীতে তা-ই হয়ে এসেছে। কিন্তু ১৫ ল্যাব অ্যাটেনন্ডেন্টের অবৈধ পদোন্নতির কাজটি সম্পাদন করেছেন পরিচালক (প্রশাসন) ডা. শেখ মোহাম্মদ হাসান ইমাম ও প্রশাসনিক কর্মকর্তা মো. ফারুক হাসান হাতে হাতে, বিভাগীয় পদোন্নতি কমিটিকে পাশ কাটিয়ে। যাদেরকে স্বাস্থ্য খাতের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা ‘দুই হাসান’র সিন্ডিকেট বলে আখ্যায়িত করে থাকেন। অবশ্য, গত ডিসেম্বরে এই পদোন্নতির সময় প্রশাসনিক কর্মকর্তা ফারুক হাসানের তখনো স্বাস্থ্য অধিদফতরে পদায়ন হয়নি। অধিদফতরের প্রশাসনিক কর্মকর্তা পদটি তখন শূন্য ছিলো। পরিচালক (প্রশাসন) হাসান ইমামের প্রভাবে ফারুক হাসান তখন আনঅফিসিয়ালি এই পদে কাজ করছিলেন। এই পুরো টাকাটা লেনদেন হয়েছে ফারুক হাসানের মাধ্যমেই, সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো এ তথ্য জানিয়েছেন।

‘হাইকোর্ট পদোন্নতির আদেশ দিয়েছেন’ এমন মিথ্যা তথ্য দিয়ে বিভাগীয় পদোন্নতি কমিটিকে পাশ কাটিয়ে হাতে হাতে পদোন্নতির আদেশটি জারির ব্যবস্থা করা হয়েছে। কিন্তু বাস্তবে ১৫ ল্যাব অ্যাটেনন্ডেন্টের রিট মামলায় হাইকোর্ট পদোন্নতির কোনো আদেশ দেননি। শুধুমাত্র ১৫ জন ল্যাব অ্যাটেনন্ডেন্টের ‘আবেদন নিষ্পত্তি’ করার জন্য বলেছেন হাইকোর্ট। তাছাড়া হাইকোর্ট যদি পদোন্নতির আদেশ দিতেনও সেটি এক্ষেত্রে বাস্তবায়ন করা সম্ভব ছিলো না। কারণ, হাইকোর্টের অন্য বেঞ্চ ইতিমধ্যেই নতুন এই নিয়োগবিধির সংশ্লিষ্ট ধারা কেন বাতিল করা হবে না, এই মর্মে রুল জারি করেছেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের প্রতি। সেটির নিষ্পত্তি না করে নতুন আদেশ বাস্তবায়ন করা সম্ভব নয়। আদালতও তা জানেন। হাইকোর্টের পরের এই বেঞ্চকে ইতিপূর্বের রুলের কথা জানানো হয়নি। জানানো হলে নিশ্চয়ই ১৫ জন ল্যাব অ্যাটেনন্ডেন্টের আবেদন নিষ্পত্তি করার জন্য বলতেন না হাইকোর্ট।

নিয়ম অনুযায়ী কোনো একটি নির্দিষ্ট বিষয়ে আলাদা আলাদা মামলা চলমান থাকার কোনো সুযোগ নেই। কোনো ঘটনাকে কেন্দ্র করে আলাদা মামলা দায়ের হলেও সবগুলো মামলা এক আদালতে এনে একই সঙ্গে মীমাংসা করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। আর এ কারণেই ল্যাব অ্যাটেনন্ডেন্টরা ইতিপূর্বের রিট মামলার কথাটি এক্ষেত্রে গোপন করেছেন। স্বাস্থ্য অধিদফতরের প্রশাসন শাখার কর্মকর্তাদের যদিও এ বিষয়টি আদালতকে জানানো অপরিহার্য ছিলো কিন্তু তারা তা জানান নি। তবে আদালতকে জানানো না হলেও স্বাস্থ্য অধিদফতরের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা প্রথমদিকে এই রুলটির বাস্তবায়ন সম্ভব নয় বলে নাকচ করে দেন। ওই সময় দুই হাসানের সিন্ডিকেট তখনো স্বাস্থ্য অধিদফতরে আসেননি। অধিদফতরের তখনকার কর্মকর্তারা ল্যাব অ্যাটেনডেন্টদের এই আবেদন নাকচ করে দেন। কিন্তু ল্যাব অ্যাটেনডেন্টদের আবেদন নিষ্পত্তির বিষয়ে হাইকোর্ট রুল জারির প্রায় ১১ মাস পরে দুই হাসান’র সিন্ডিকেট এই রুলের বিষয়ে মিথ্যা তথ্য দিয়ে ১৫ ল্যাব অ্যাটেনডেন্টের অবৈধ পদোন্নতির আদেশটি জারি করেন।
মামলার বিবরণে জানা যায়, বাংলাদেশ স্বাস্থ্য বিভাগীয় নন-মেডিকেল কর্মচারী নিয়োগ বিধিমালা-২০১৮ এর শিডিউল ১ এর ৩০ নং ক্রমিকে প্রদত্ত ল্যাব অ্যাটেনডেন্টদের মেডিকেল টেকনোলজিস্ট (ল্যাবরেটরি) পদে পদোন্নতির বিধান চ্যালেঞ্জ করে ইতিপূর্বে বেকার অ্যান্ড প্রাইভেট সার্ভিসেস মেডিকেল টেকনোলজিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের (বিপিএসএমটিএ) সভাপতি মো. শফিকুল ইসলামসহ চারজন মেডিকেল টেকনোলজিস্ট হাইকোর্ট বিভাগে রিট মামলা দায়ের করেন। রিট মামলা নং ৮৫৯৬/২০১৮। ওই রিট পিটিশনের শুনানি শেষে হাইকোর্ট ২০১৮ সালের ২ জুলাই নিয়োগ বিধির উক্ত ধারাটি কেন বেআইনী ঘোষণা করা হবে না, জানতে চেয়ে রুল জারি করেন। বিচারপতি জেবিএম হাসান এবং বিচারপতি মো. খাইরুল আলমের বেঞ্চ ওই রুল জারি করেন। উক্ত মামলাটি চলমান থাকাকালেই ১৫ জন ল্যাব অ্যাটেনন্ডেন্ট হাইকোর্টের বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের বেঞ্চে নতুন একটি রিট মামলা দায়ের করেন। হাইকোর্টের এই বেঞ্চ ১৫ ল্যাব অ্যাটেনডেন্টের ‘আবেদন নিষ্পত্তি’র জন্য রুল জারি করেন ১০ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ইং।

কিন্তু ল্যাব অ্যাটেনন্ডেন্টরা তখন এই রুলের আদেশ স্বাস্থ্য অধিদফতরে নিয়ে গেলে অধিদফতরের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা ‘নিয়োগ বিধি নিয়ে জারি হওয়া রুলের নিষ্পত্তি হওয়া ছাড়া এই আবেদন নিষ্পত্তি করা সম্ভব নয়’ বলে জানিয়ে দেন। পরবর্তীতে ২০২০ সালের আগস্টে অধিদফতরের পরিচালক (প্রশাসন) পদে আসেন শেখ মোহাম্মদ হাসান ইমাম। এ সময় স্বাস্থ্য অধিদফতরে মেডিকেল টেকনোলোজিস্ট ও মেডিকেল টেকনিশিয়ান পদে বড় ধরনের নিয়োগ প্রক্রিয়া চলছিলো। পরিচালক (প্রশাসন) পদে হাসান ইমামের পদায়ন হওয়ার পরই দুদক কর্তৃক চিহ্নিত শীর্ষ দুর্নীতিবাজ কর্মচারী ফারুক হাসান অধিদফতরে আনঅফিসিয়ালি আসতে শুরু করেন। প্রথমদিকে পরিচালক (প্রশাসন) এর রুমে বসেই ফারুক হাসান আনঅফিসিয়ালি কাজ করতেন। ক্রমান্বয়ে ‘দুই হাসান’ পুরো স্বাস্থ্য অধিদফতরকেই ঘুষ-দুর্নীতির স্বর্গরাজ্যে পরিণত করেন। বিশেষ করে ৮৮৯ মেডিকেল টেকনোলোজিস্ট এবং ১৮০০ মেডিকেল টেকনিশিয়ান নিয়োগের প্রক্রিয়াকে কেন্দ্র করে শুধু স্বাস্থ্য অধিদফতরই নয়, গোটা স্বাস্থ্যখাতেই এক নজিরবিহীন ঘুষ কেলেংকারির জন্ম দেয় এই সিন্ডিকেট। যেটি নিয়ে এখনো স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বেকায়দায় আছে। তদন্ত কমিটি গঠন করলেও রিপোর্ট জমা দিতে পারছে না কমিটি। কারণ তদন্ত কমিটি যথাযথভাবে রিপোর্ট পেশ করতে গেলেই এই চক্রটি ফেঁসে যায়। এদিকে তদন্তের ফয়সালা না হওয়ার কারণে সরকারের নির্দেশিত জরুরি নিয়োগও বন্ধ রয়েছে। আর তার মধ্যেই দুই হাসানের এই অপকর্মের ঘটনায় হাইকোর্ট নতুন করে রুল জারি করেছে।

গত বছরের ২৯ ডিসেম্বর স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (প্রশাসন) ডা. শেখ মোহাম্মদ হাসান ইমাম এর স্বাক্ষরে এই ১৫ ল্যাব অ্যাটেনডেন্টের অবৈধ পদোন্নতির আদেশ জারি করা হয়। ওই সময় স্বাস্থ্য অধিদফতরের প্রশাসনিক কর্মকর্তার পদটি শূন্য ছিলো। এর মাত্র ৯দিন আগে অধিদফতরের প্রশাসনিক কর্মকর্তাকে অন্যত্র বদলি করে ফারুক হাসানের জন্য পদটি শূন্য করেন পরিচালক হাসান ইমাম। পদ শূন্য থাকায় ফারুক হাসানই ওই সময় আনঅফিসিয়ালি প্রশাসনিক কর্মকর্তার কাজ করছিলেন। তিনি ল্যাব অ্যাটেনডেন্টদের সঙ্গে অবৈধ পদোন্নতির রফদফা এবং ঘুষ লেনদেন করেন। দুই হাসান এই পদোন্নতি আদেশ জারির মাধ্যমে হাতিয়ে নেন অন্তত ৩ কোটি টাকা।

উল্লেখ্য, মো. ফারুক হাসান দুদক কর্তৃক চিহ্নিত একজন শীর্ষ দুর্নীতিবাজ কর্মচারী। ২০১৯ সালের সালের ২৩ জানুয়ারি দুর্নীতি দমন কমিশনের সচিব (অতিরিক্ত সচিব) মোহাম্মদ মুনীর চৌধুরীর স্বাক্ষরে স্বাস্থ্য খাতের শীর্ষ ২৩ জন কর্মচারীর তালিকা পাঠানো হয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে। ‘স্বাস্থ্য অধিদফতরের দুর্নীতিবাজ, স্বেচ্ছাচারী, ক্ষমতালিপ্সু কর্মকর্তা-কর্মচারী’ শিরোনামে দুদকের সেই চিঠিতে বলা হয়েছে, “উপর্যুক্ত বিষয়ে সদয় অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, স্বাস্থ্য অধিদফতরের অধীনস্থ বিভিন্ন কার্যালয়ে কর্মরত কতিপয় দুর্নীতিবাজ, স্বেচ্ছাচারী ও ক্ষমতা অপব্যবহারকারী কর্মকর্তা-কর্মচারীরা দীর্ঘদিন যাবৎ একই কর্মস্থলে চাকরি করার সুবাদে দুর্নীতির শক্তিশালী বলয় তৈরি হয়েছে, যা স্বাস্থ্য অধিদফতরের সুশাসনকে ক্ষতিগ্রস্থ করছে মর্মে প্রতীয়মান। এসব কর্মকর্তা-কর্মচারীরা (তালিকা সংযুক্ত) ক্ষমতার অপব্যবহার করে অঢেল সম্পদের মালিক হয়েছেন মর্মেও জানা যায়। দুর্নীতি দমন কমিশনে তাদের বিরুদ্ধে ইতিমধ্যে অনেক অভিযোগ জমা হয়েছে যা আমাদের গোয়েন্দা ইউনিট কর্তৃক অনুসন্ধান পর্যায়ে রয়েছে।

এমতাবস্থায়. আপাততঃ এসব কর্মকর্তা-কর্মচারীকে দুর্নীতি প্রতিরোধকল্পে বর্তমান কর্মস্থল থেকে জরুরি ভিত্তিতে অন্যত্র বদলির ব্যবস্থা গ্রহণ সমীচীন হবে বলে কমিশন মনে করে। এ সম্পর্কিত গৃহীত ব্যবস্থা দুর্নীতি দমন কমিশনকে অবহিত করার জন্য অনুরোধ করা হলো।”

স্বাস্থ্যখাতে দুদকের এই শীর্ষ ২৩ দুর্নীতিবাজ কর্মচারীর তালিকায় মো. ফারুক হাসানের নাম দুই নম্বরে রয়েছে। দুদকের সেই চিঠির পর স্বাস্ব্য সেবা বিভাগ এই ২৩ কর্মচারীকে ঢাকার বাইরে বিভিন্ন স্থানে শাস্তিমূলক বদলি করে। তারমধ্যে মো. ফারুক হাসানের পদায়ন হয় রাঙ্গামাটিতে। ফারুক হাসান ওই সময় ছিলেন ঢাকা বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের দফতরে। শেখ মোহাম্মদ হাসান ইমাম ওই সময় ছিলেন ঢাকা বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক পদে। স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ মো. ফারুক হাসানকে রাঙ্গামাটিতে বদলি করলেও তিনি সেই কর্মস্থলে যাননি। তিনি হাসান ইমামের দুর্নীতির সহযোগী হিসেবে ঢাকা বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের কার্যালয়েই আনঅফিসিয়ালি কাজ করতে থাকেন। হাসান ইমাম স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক (প্রশাসন) পদে বসার পর পরই ফারুক হাসানকে অধিদফতরে পদায়নের ফন্দিফিকির খুঁজতে থাকেন। ফারুক হাসানও এ সময় স্বাস্থ্য অধিদফতরে হাসান ইমামের সঙ্গে আনঅফিসিয়ালি কাজ করতে থাকেন। মেডিকেল টেকনোলোজিস্ট ও টেকনিশিয়ান নিয়োগের ঘুষ লেনদেনে হাসান ইমামের সহযোগী হন। অবশেষে এক পর্যায়ে ফারুক হাসানকে অধিদফতরে পদায়নের ব্যবস্থা করতেও সক্ষম হন হাসান ইমাম। যদিও ফারুক হাসানের এই পদায়নে খোদ ডিজিসহ অধিদফতরের অন্যদের বিরোধিতা ছিলো। এমনকি এ নিয়ে গোটা স্বাস্থ্যখাতেই তোলপাড় বয়ে গিয়েছিলো। কিন্তু কোনো সমালোচনাকেই তোয়াক্কা করেননি হাসান ইমাম। সেই থেকে অধিদফতরে অনেক কেলেঙ্কারির জন্ম দিয়েছেন দুই হাসান।

Previous articleঘরে মায়ের ঝুলন্ত লাশ, বিছানায় ছেলের
Next articleগভীর রাতে চলন্ত বাসে সন্তান প্রসব
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।