বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত প্রদীপ ও লিয়াকতকে কারাগারের কনডেম সেলে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। গতকাল সোমবার কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতে মৃত্যু দণ্ডে দণ্ডিত হয়ে কক্সবাজার জেলা কারাগারে নেয়া হলে তাদের দু’জনকে কনডেম সেলে পাঠানো হয়।

এছাড়া তাদের দু’জনের ডিভিশনও বাতিল করা হয়েছে। কক্সবাজার জেলা কারাগারের জেল সুপার নেছার আলম এ তথ্য জানিয়েছেন।

কোনো ব্যক্তি আদালতে দোষী সাব্যস্ত হয়ে মৃত্যুদণ্ডাদেশ প্রাপ্ত হলে আদালতের নিয়ম অনুযায়ী মামলার রায় হওয়ার সাতদিনের মধ্যে সমস্ত নথি, কেস ডায়েরি, স্বাক্ষী প্রমাণাধীসহ কাগজপত্র হাইকোর্টে পাঠাতে হয়। এ সময় ‘লালসালু’ দিয়ে বিশেষ ধরণের প্যাকেট করে এসব কাগজ হাইকোর্টে পাঠাতে হয়। এ কারণে নিয়মানুযায়ী মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত প্রদীপ কুমার দাশ ও লিয়াকত আলীর মামলার রায়ের কপিও সেভাবে হাইকোর্টে যেতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন কক্সবাজারের সিনিয়র আইনজীবী ও সিনহা হত্যা মামলার আইনজীবী মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর।

অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর বলেন, ‘মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের ফাঁসির আদেশ হাইকোর্টকে অবহিত করতে হয়। হাইকোর্টকে অবহিত না করা পর্যন্ত কার্যকর হবে না। এছাড়াও আসামি পক্ষও আপিল করতে পারে। মামলায় সন্তুষ্ট না হলে উচ্চ আদালতে যাওয়ার এখতিয়ার
সবার রয়েছে।’

এদিকে, ৩১ জানুয়ারি সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডাদেশ প্রাপ্ত আসামি টেকনাফ থানার বরখাস্ত ওসি প্রদীপ কুমার দাশ ও বরখাস্ত পরিদর্শক লিয়াকত আলীকে কক্সবাজার জেলা কারাগারের কনডেম সেলে রাখা হচ্ছে। খাবার থেকে শুরু করে সকল সুযোগ-সুবিধা জেল কোড অনুযায়ী হবে বলে জানিয়েছে কক্সবাজার জেল সুপার নেছার আলম।

তিনি জানান, প্রথম শ্রেণীর কর্মকর্তা হিসেবে জেল কোড অনুযায়ী প্রদীপ ও লিয়াকত কারাগারে ডিভিশন পেতেন। এই দু’জন হত্যা মামলায় দণ্ডিত হওয়ায় তাদের কারাগারের ডিভিশন বাতিল করা হয়েছে।

সোমবার বিকেলে কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইলের আদালতে সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলায় প্রদীপ কুমার দাশ, লিয়াকত আলীকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেয়। এছাড়াও সাত জন আসামি মামলার অন্যান্য আসামি এসআই নন্দ দুলাল রক্ষিত, কনস্টেবল সাগর দেব, রুবেল শর্মা, পুলিশের সোর্স নুরুল আমিন, নিজাম উদ্দিন ও আয়াজ উদ্দীনকে যাবতজীবন কারাদণ্ড ও চার জনকে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা দেয়া হয়। অনাদায়ে ছয় মাসের জেল দেয়া হয়।

তারা হচ্ছেন, কনস্টেবল সাগর দেব, পুলিশের সোর্স নুরুল আমিন, মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন ও আয়াজ উদ্দিন।

এছাড়াও ‘এপিবিএনর এসআই শাহজাহান আলী, কনস্টেবল মো. রাজীব ও মো. আব্দুল্লাহ, পুলিশের কনস্টেবল সাফানুল করিম, কামাল হোসেন, লিটন মিয়া ও পুলিশের কনস্টেবল আব্দুল্লাহ আল মামুনকে খালাস প্রদান করেন আদালত।

সন্ধ্যায় পুলিশ ভ্যানে তাদেরকে কক্সবাজার জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।

Previous articleসোনারগাঁওয়ে ২৬ লাখ টাকার রাস্তার বেহাল অবস্থা
Next articleআইসিটি মামলায় দুই মাদ্রসা শিক্ষকের সাজার বদলে এক বছর করে প্রবেশন সুবিধা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।