আলী ইব্রাহিম: চলতি অর্থবছরের শুরুতেই বিপর্যয় নেমে এসেছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) রাজস্ব আদায়ে। আয়করে রাজস্ব আদায় মন্দের ভালো হলেও বিপর্যয় নেমে এসেছে কাস্টমস ও মূল্য সংযোজন করে (মূসক)। রাজস্ব আদায়ে গড় প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৬.০৭ শতাংশ। এনবিআর সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
সূত্র জানায়, চলতি অর্থবছরের বাজেটে নির্বাচনী বছর বিবেচনায় নিয়ে মূসক আইন বাস্তবায়ন করা হয়নি। কর আদায়ে অতিরিক্ত চাপ প্রয়োগে অনেকটাই বিরত রাজস্ব বোর্ড। এর প্রভাব পড়েছে রাজস্ব আদায়ে। চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রথম দুই মাস (জুলাই-আগস্ট) রাজস্ব আদায়ের গতি ছিল মন্থর। আলোচ্য সময়ে লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ৬ হাজার কোটি টাকা।
অর্থনীতিবিদরা বলছেন, বিশাল বাজেটের লক্ষ্যমাত্রা পূরণে আয়ের খাত না বাড়িয়ে বরং সঙ্কুচিত হয়েছে। নির্বাচনী বছরের কিছু কিছু ক্ষেত্রে শিথিলতা দেখা গেছে। অর্থনীতির সবচেয়ে বড় খাত ব্যাংকে করপোরেট কর কমানো হয়েছে ২.৫ শতাংশ। পাশাপাশি রপ্তানি খাতে উৎসে কর দশমিক ০৭ এর পরিবর্তে দশমিক ০৬ নির্ধারণ করা হয়েছে। এ ছাড়া, মূসকের স্তর পরিবর্তন করা হয়েছে। সব মিলিয়ে বাজেটে আর্থিক খাতের সংস্কার না হওয়ায় এসব রাজস্ব আদায়ে গতি আসছে না। তবে নির্বাচনী বছরে রাজস্ব আদায়ের গতি না বাড়লে বড় ধরনের ঘাটতির মুখে পড়তে হবে রাজস্ব বোর্ডকে।
সূত্র আরো জানায়, চলতি অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৩৫ হাজার ৫৭৭ কোটি টাকা। আর রাজস্ব আদায় হয়েছে ২৯ হাজার ৫৬৭ কোটি টাকা। এর আগের বছরে এ সময়ে রাজস্ব আদায়ের পরিমাণ ছিল ২৭ হাজার ৮৭৬ কোটি ৭৫ লাখ টাকা। খাত হিসেবে দুই মাসে কাস্টমসে রাজস্ব আদায় হয়েছে ৯ হাজার ৯৯৮ কোটি টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৯ হাজার ৯৪৪ কোটি টাকা। অর্থাৎ প্রবৃদ্ধি ০.০৩ শতাংশ। মূসক আদায় হয়েছে ১১ হাজার ৯৮৬ কোটি টাকা, যা আগের অর্থবছরের একই সময়ে ছিল ১১ হাজার ২৫১ কোটি টাকা। অর্থাৎ মূসকে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৬ দশমিক ৫৩ শতাংশ। আর আয়কর খাতে রাজস্ব আদায় হয়েছে ৭ হাজার ৬০৩ কোটি টাকা, যা ২০১৬-১৭ অর্থবছরের একই সময়ে ছিল ৬ হাজার ৬৭৯ কোটি টাকা। অর্থাৎ আগের বছরের তুলনায় প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১৩ দশমিক ৮৩ শতাংশ। উল্লেখ্য, ২০১৮-১৯ করবর্ষে এনবিআরের রাজস্ব আয়ের নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে ২ লাখ ৯৬ হাজার ২০১ কোটি টাকা।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্বব্যাংকের ঢাকা অফিসের প্রধান অর্থনীতিবিদ ড. জাহিদ হোসেন ভোরের কাগজকে বলেন, অর্থবছরের প্রথম দিকে রাজস্ব আদায়ের গতি সাধারণত মন্থর থাকে। তবে এতটা মন্থর কাম্য নয়। এই ধীরগতির কারণ জানতে চাইলে এ অর্থনীতিবিদ বলেন, আমদানি প্রবৃদ্ধি কমেছে, রপ্তানি খাতে উৎসে কর কমানো হয়েছে। এসব খাত থেকে আগের তুলনায় একটু কম রাজস্ব আসতে পারে। ব্যাংকগুলোর করপোরেট কর কমানো হয়েছে। এর প্রভাব রাজস্ব আদায়ে পড়তে পারে। এ ছাড়া, নির্বাচনী বছর হিসেবে হয়তো রাজস্ব বোর্ড কাউকে অসন্তুষ্ট করে রাজস্ব আদায় করতে চাচ্ছে না, এমন সম্ভাবনাও উড়িয়ে দেয়া যায় না। সব মিলিয়ে এসব কারণে হয়তো রাজস্ব আদায় কমতে পারে। রাজস্বসংক্রান্ত মামলার জটও রাজস্ব আদায় কমার একটি কারণ বলে যোগ করেন তিনি।