রফিক সুলায়মান: বিষয়টি নিয়ে আমি উদাসিন ছিলাম, প্রথম নজরে এনেছেন হুমায়ুন আহমেদ, তাঁর মধ্যাহ্ন উপন্যাসে। পরে আমি বেশকিছু তথ্য-উপাত্ত জোগাড় করি। রবীন্দ্রনাথ ১৯২৫ এবং ১৯২৬ সালে পরপর দু’বার ইটালি সফর করেন। একটি বেসরকারী, যেটি তিনি আর্জেন্টিনা থেকে সরাসরি ইটালি গিয়েছিলেন। পরের সফরটি ছিলো সম্পূর্ণ রাষ্ট্রীয়, যা মুসোলিনির ইঙ্গীতে সম্পন্ন হয়েছিলো। রবীন্দ্রনাথকে দেখামাত্র মুসোলিনি ভীষণ আবেগে বলে ফেলেন একজন লেখকের সবচে আরাধ্য কথাটিঃ ‘I am one of those many Italians that have read all your books; of course those that have been translated in our language.’ অনুবাদঃ আমি তাদেরই একজন যারা আপনার সমস্ত লেখার ইটালীয় অনুবাদ পড়েছে এবং আপনার গুণগ্রাহীদের অন্যতম। ভারত থেকে রওয়ানা দেয়ার আগে তিনি মুসোলিনিকে লিখেছিলেনঃ ‘…I assure you that such expression of sympathy, coming as it does from the representative of the Italian people, will open a channel of communication of cultural relations between your country and ours, which has every possibility to produce and event of great historical relevance.’ এই সফরের আগে মুসোলিনি বিশ্বভারতীর জন্যে কিছু অনুদান এবং ইটালির শিল্প-সাহিত্যের এক ভাণ্ডার পাঠিয়েছিলেন। সেই ভাণ্ডার গুরুদেবকে শান্তি দিয়েছিলো। পরে একটি ফ্যাসিস্ট কাগজে স্বৈরশাসক সম্পর্কে তিনি বলেছিলেন আরো প্রশস্তিসূচক কথাঃ ‘Let me dream that from the fire-bath the immortal soul of Italy will come out clothed in quenchless light.’ অনুবাদঃ ‘অগ্নিস্নানের মধ্য দিয়ে ইটালির অমর আত্মা অনির্বাণ আলোয় পরিবৃত হয়ে আত্মপ্রকাশ করবে, এই স্বপ্নই দেখতে চাই।’ ব্যক্তি মুসোলিনিকে ‘মিকেলেঞ্জেলোর ভাস্কর্যের মতো দৃঢ়’ বলে মন্তব্য করেছিলেন। তিনি বলেছেনঃ ‘Without any doubt he is a great personality. There is such a massive vigor in that head that it reminds one of Michael Angelo’s chisel. Moreover, there is a simplicity in the man which makes it hard to believe that he is really the cruel tyrant many indulge in depicting.’ অনুবাদঃ ‘মহামান্য মুসোলিনির দেহ ও আত্মা মাইকেল এ্যাঞ্জোলোর বাটালিতে খোদাই করা বলে মনে হয়। তার আচরণেই ধরা পড়ে বুদ্ধিমত্তা ও শক্তি।’ এসব প্রশস্তি বিনিময়ের ব্যাকগ্রাউন্ডে আছে প্রথম সফরের সনয় জেনোয়াতে সংস্কৃত ভাষার অধ্যাপক কার্লো ফর্মিচি’র সাথে গুরুদেবের সাক্ষাৎ। তিনি আঠার মতো গুরুদেবের সাথে লেগে থাকেন এবং দোভাষীর ভূমিকা পালন করেন। এই ফাঁদের পূর্ণতা লাভ করে ফর্মিচির শান্তিনিকেতন ভ্রমণ এবং মুসোলিনির উপহার হস্তান্তরের মধ্য দিয়ে। ফর্মিচির এই সফরে রোম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক গুইসিপ্পে তুচ্চিও ছিলেন। [তুচ্চি কিছুকাল শান্তিনিকেতনে অধ্যাপনাও করেন।] ভারত সম্পর্কে মুসিলিনির জ্ঞান ছিলো সীমিত, ভারত নিয়ে তাঁর কোন আগ্রহও ছিলো না। তবু কেন একজন নোবেল লরিয়েট ঋষি কবির প্রতি তাঁর এই আগ্রহ, এ নিয়ে গবেষণা হতে পারে। মুসোলিনিকে জাতে তোলার জন্যে রবীন্দ্রনাথের মতো একজন বিশ্ব মনীষার বিবৃতির দরকার ছিলো। মুসোলিনি সেটা আদায় করে নিতে পেরেছিলেন শেষ পর্যন্ত। এমনকি রবীন্দ্রনাথ ইটালিতে সুধী সমাবেশে কী বিষয়ে কথা বলবেন, সেটাও ঠিক করে দিয়েছিলেন মুসোলিনি। মুসোলিনির অনুরোধে রবীন্দ্রনাথ বক্তৃতা করেছিলেন ‘the meaning of art’ বিষয়ে। ঠিক একইভাবে রবীন্দ্রনাথকে ব্যবহার করেছিলেন আলবার্ট আইনস্টাইন। আইনস্টাইনেরও ভারত এবং রবীন্দ্র-সাহিত্য নিয়ে কোন মাথাব্যথা ছিলো না। সমগ্রজীবন লোকটার আনুগত্য ছিলো ইহুদিবাদের প্রতি। লেখক রোনাল্ড ডব্লিউ ক্লার্ক লিখেছেন,’His actual commitment was to Zionism only.’ [page 377, আইনস্টাইনের জীবনী] আরেক জায়গায় আইনস্টাইন সম্পর্কে লিখিত আছে,’He would campaign with the Zionists for a Jewish homeland in Palestine.’ ১৯১৯ সালে এক সাক্ষাৎকারে আইনস্টাইন বলেন,’As a Jew, I am from today a supporter of the Jewish Zionists efforts.’ সেই আইনস্টাইন মিঠে মিঠে কথা বলে জাপান জার্মানের বিরুদ্ধে তাঁকে ক্ষেপিয়ে তুললেন। জাপানে বোমা মারার অন্যতম অনুঘটক ছিলেন আইনস্টাইন। এমনকি সুপ্রিম মিলিটারি কমান্ডার জেনারেল আইজেনহাওয়ার পর্যন্ত বোমা ফেলার পক্ষে ছিলেন না। কারণ আমেরিকা যুদ্ধ জয়ের কাছাকাছি পর্যায়ে ছিলো তখন। আইনস্টাইন, ওপেনহাইমার এবং যুদ্ধসচিব হেনরি এল স্টিমসন বোমাবাজির পক্ষে ছিলেন। রবীন্দ্রনাথ এতোবড় এক দুষ্টগ্রহকে ইতিহাসে মহিমান্বিত করে গেছেন! হুমায়ুন আহমেদ এই বিষয়গুলোর খুব গভীরে প্রবেশ করেছিলেন। তিনি দুঃখ করে লিখেছেন, বড় মানুষদের ভুলগুলোও বড় হয়।

(লেখকঃ শিল্প-সমালোচক, নজরুল-কর্মী, অনলাইন এক্টিভিস্ট)