মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২৪
Homeঅর্থনীতিহিমাগার না থাকায় নষ্ট হচ্ছে উৎপাদিত সবজির ২৫ শতাংশ

হিমাগার না থাকায় নষ্ট হচ্ছে উৎপাদিত সবজির ২৫ শতাংশ

মাসুদ রানা রাব্বানী : রাজশাহীতে চাহিদার বেশি সবজি উৎপাদন হয়। উৎপাদিত এসব সবজি গ্রাম-গঞ্জের হাট-বাজার থেকে ব্যবসায়ীরা কিনে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে সরবরাহ করেন। কেনা-বেচা সহজ হওয়ায় চাষীদের কাছে সবজি অর্থকরি ফসল হয়ে উঠেছে।

তবে হিমাগার না থাকায় উৎপাদিত সবজির ২৫ শতাংশ নষ্ট হচ্ছে সংরক্ষণের অভাবে। এতে অর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন চাষী ও ব্যবসায়ীরা।

রাজশাহীতে প্রতিবছর ৫লাখ মেট্রিক টনের বেশি সবজি উৎপাদন হয়। বিপুল পরিমাণে উৎপাদন হলেও সব সবজিই খাবার উপযোগী করে রাখা সম্ভব হয় না। ফলে উৎপাদনের ২০ থেকে ২৫ শতাংশ সবজি নষ্ট হয়ে যায় সংরক্ষণের অভাবে। এতে লোকসান হয় প্রান্তিক পর্যায়ে চাষী ও ব্যবসায়ীদের। সবজি চাষীরা বলছেন, তারা প্রচুর পরিমাণে সবজি উৎপাদন করেন। কিন্তু সেই সবজি সংরক্ষণের জন্য আলুর রাখার মতো হিমাগার নেই।

হিমাগার না থাকায় সবজি নষ্ট হওয়ার পাশাপাশি কম দামে বিক্রি করে দিতে হয় তাদের। এ কারণে তারা ন্যায্য দাম পাচ্ছেন না। অনেক সময় সরবরাহ কম হলে বাইরে থেকে আনতে হয় সবজি। ফলে পণ্যের দাম ও পরিবহন খরচ মিলে দাম বেড়ে যায় সবজির। এতে করে ক্রেতাকে বেশি টাকায় সবজি কিনে খেতে হয়। রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, জেলায় গত বছরের তুলনায় ১ হাজার ৭৫০ হেক্টর বেশি জমিতে সবজি চাষ হয়েছে। এবছরের (২০২৩-২৪) চলতি মৌসুমে ৫ হাজার ৬৪০ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন সবজি চাষ হয়েছে। ২০২২-২৩ মৌসুমে সবজির চাষ হয়েছে ৩ হাজার ৮৯০ হেক্টর জমিতে। বর্তমানে বাজারে পাওয়া যাচ্ছে এমন ২০২২-২৩ মৌসুমে শীতের সবজির মধ্যে শিম চাষ হয়েছে ২৩০ হেক্টর, পালংশাক ৪৪ হেক্টর, টমেটো ৩১ হেক্টর, ফুলকপি ২৭৫ হেক্টর, মূলা ৩২৮ হেক্টর জমিতে চাষ হয়েছে। ২০২৩-২৪ মৌসুমে ফুলকপি চাষ হয়েছে ৩৮৭ হেক্টর, টমেটো চাষ হয়েছে ৬৪ হেক্টর, মূলা ৪৩৫ হেক্টর, শিম ২৪১ হেক্টর, পালংশাক ৬৬ হেক্টর ও ধনিয়াপাড়া ৩৪ হেক্টর জমিতে চাষ হয়েছে। কৃষি সাধারণত তিনটি মৌসুমে ভাগ করা হয়েছ। একটি রবি, অপরটি খরিপ-১ এবং খরিপ-২। এরমধ্যে রবি মৌসুমে টমেটো, বেগুন, ফুলকপি, বাধাঁকপি, গাজর, লাউ, সীম, বরবটি, শসা, খিরা, করলা, ঢেঁড়স, মিষ্টিকুমড়া, ডাটাশাক, লালশাক, পালং, পুঁইশাক, কলমিশাক, ধনিয়াপাড়া, মটরশুটি, পটল, চাল কুমড়া, চিচিঙ্গা, কাঁকরোল, বরবটি, মুখিকচু, ওলকচু, মনিকচু, গ্রীষ্মকালীন টমেটো, লতিরাজ, সজনা, পুইশাক, লাউ, ঝিঙ্গা, পুদিনা, পেঁপে, কলমিশাক, মরটশুটি চাষ হয়েছে। কিন্তু একটি হিমাগার না থাকায় উৎপাদিত এসব সবজি সংরক্ষণ করা হচ্ছে না।

পবার কৃষক রজব আলী বলেন, তিনি ১২ মাস বিভিন্ন সবজির চাষ করেন। তার জমিতে কোনো কিছু না থাকলেও লাল অথবা সবুজ শাক থাকে। বর্তমানে তার জমিতে ফুলকপি, বাঁধাকপি রয়েছ। ফুলকপি ও বাঁধা কপির গাছ ভালো আছে। তিনি আশা করছেন ভালো ফলন পাবেন। রজব আলী বলেন, সব সবজির প্রথম প্রথম ভালো দাম পাওয়া যায়। পরে দাম কমে যায়। যেমন ঢেঁড়স। শুরুতে অন্য সবজির মতো ভালো দাম থাকে। মাঝে কমে যায় দাম। কিন্তু ঢেঁড়সের শেষ পর্যায়ে ভালো দাম পাওয়া যায়। তবে সেই সময় কারো কাছে থাকে না এই সবজি। কিন্তু সবজি সংরক্ষণের হিমাগার থাকলে সেখানে রেখে সুবিধা মতো সময়ে বেশি দামে বিক্রি করা যেত। এতে করে কৃষকরা অর্থিকভাবে লাভবান হতেন।

গোদাগাড়ীর টমেটো চাষী হাবিবুর রহমান জানান, টমেটোর চাষ শুরু হয়েছে। গাছে গাছে ফুল আর কলি এসেছে। কিছুদিন পর জমি থেকে টমেটো তুলতে শুরু করবেন চাষীরা। এর পরে হাটে বাজারে বিক্রি শুরু হবে। প্রথম দিকে টমেটোর ভালো দাম পাওয়া যায়। তবে শেষের দিকে কেউ নিতে চায় না। সেই সময় টমেটো সংরক্ষণ করা গেলে অব সিজনে ভালো দামে বিক্রি করা যাবে। এতে করে চাষীরা আরো লাভবান হবেন। সবজি ব্যবসায়ী আব্দুস সালাম জানান, শীতকালে সবজির ভরা মৌসুম। এসময় সব সবজির দাম কম হয়। কিছুদিন গেলে আবার সবজির দাম বেড়ে যাবে। এখন সবজি সংরক্ষণ করা গেলে পরবর্তি সময়ে বিক্রি করা যাবে। তখন দামও ভালো পাওয়া যাবে।

রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অফিদফতরের উপপরিচালক মোজদার হোসেন জানান, চাষীদের উৎপাদিত অনেক সবজি সরাসরি জমি থেকে ট্রাক যোগে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পাঠিয়ে দেয়া হয়। তার পরেও উৎপাদিত সবজির ২০ থেকে ২৫ শতাংশ নষ্ট হয় সংরক্ষণের অভাবে। আমরা চেষ্টা করছি রাজশাহীতে সবজির হিমাগারের জন্য। হিমাগার থাকলে এই সবজিগুলোও নষ্ট হবে না।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerkagoj.com.bd/
Ajker Bangladesh Online Newspaper, We serve complete truth to our readers, Our hands are not obstructed, we can say & open our eyes. County news, Breaking news, National news, bangladeshi news, International news & reporting. 24 hours update.
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments