আবুল বাশার: নাম তার মনি প্রামানিক একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধ সময়ে পাকিস্তান হানাদার বাহিনীর সহায়তাকারী শান্তি কমিটির দালাল। ১৬ ডিসেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা বিজয় অর্জনের পর মনি প্রামানিক যুদ্ধাপরাধের নানা অভিযোগে মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে ধরা পরে। মুক্তিযোদ্ধারা ক্ষমা করার শর্ত হিসেবে তাকে জোরে- ” জয়বাংলা ” শ্লোগান দিতে বলে। মুক্তিযোদ্ধারা সমস্বরে ‘জয়বাংলা’ শ্লোগান দিয়ে তাকে বার বার উদ্বুদ্ধ করার চেষ্টা করে। যতবার মুক্তিযোদ্ধারা জয়বাংলা বলে, সে ততবার পাকিস্তান জিন্দাবাদ বলে। এরপর তার শাস্তি হয় মৃত্যুদন্ড।

দেশ স্বাধীন হয়ে গেল। মুক্তিযোদ্ধারা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশে বিনা শর্তে আত্মবিশ্বাসে মনোকষ্ট নিয়ে শুন্যহাতে ঘরে ফিরে গেলো। শুরু হলো মুক্তিযোদ্ধাদের অনিশ্চিত শত্রুবেষ্টীত জীবন। মুক্তিযুদ্ধের চেতনাহীন জনগোষ্টির মাঝে মুক্তিযোদ্ধাদের শত্রু গযুদ্ধাপরাধী শান্তি কমিটির দালাল, রাজাকার, আলবদর, আলসামস্ হারিয়ে গেল। তারা ধর্মের ছদ্দাবরণে মানুষের মাঝে ধর্মের সুরসুরি দিয়ে মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধাদের বিরুদ্ধে জনরোষ সৃষ্টির পেড়েক একের পর এক ঠুকতে থাকলো। এ কাজে তাদের সাথে সহায়ক ভূমিকা পালন করলো সে সময়ের রাষ্ট্রের প্রশাসন এবং রাজনীতি নির্ধারক ক্ষমতায় থাকা একটি গোষ্ঠি। বেশীরভাগ মুক্তিযোদ্ধারা আর্থসামাজিক নিরাপত্তাহীন হয়ে রাষ্ট্রের দমন পীড়নের শিকার হলেন।

গণতান্ত্রীক সংস্কৃতির রাজনৈতিক চর্চা এড়িয়ে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা উল্টো রথে যাত্রা শুরু করলো। মুক্তিযুদ্ধের মধ্যদিয়ে স্বাধীন বাংলাদেশের মানুষের চাওয়া পাওয়ার আখাঙ্কার যে প্রত্যাশা- অর্থনৈতিক, সামাজিক, শিক্ষা, চিকিৎসা, সংস্কৃতির সাম্যতায়,শোষণ-বঞ্চনা ও বৈষম্যহীন গণতান্ত্রীক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার যে অঙ্গীকার ছিল তা থেকে বিচ্যুত হলো রাষ্ট্র শাসকরাগ (যা বঙ্গবন্ধু জাতির জন্য করতে চেয়েছিলেন)।

স্বাধীনত্বা পরবর্তী দীর্ঘ ৪৭ বছর ধরে জাতীকে যেমন একদিকে চর্চাহীন রাজনীতির আবর্তে ফেলে রাখা হয়েছে অপরদিকে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষ বিপক্ষ বলে জাতীকে রাষ্ট্র ও রাজনীতির মুল ধর্ম থেকে বিচ্যুৎ করে ইহলৌকিক পারলৌকিক ধর্মের খোলসে বন্দীকরে মানুষের চিন্তার জগতকে শিক্ষা সংস্কৃতিতে শুধুমাত্র ব্যক্তির অকাংখা পুরুনে সহায়ক হিসেবে সৃষ্টি করা হচ্ছে। রাষ্ট্র শাসনে মানুষের অধিকার মৌলিক চাহিদাগুলো পুরুনের ক্ষত্রে তেমনটা অগ্রগতি নেই। নীতি নৈতিকতাহীন সমাজ রাষ্ট্র কাঠামো বলবৎ রাখার ক্ষেত্রে দেশের রাজনীতি একক ভূমিকা পালন করছে। সে কারনে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষ বিপক্ষ শব্দ দুটি মানুষের চিন্তার জগতের মাঝে গুলিয়ে গেছে। গণমানুষের অধিকার হরণের মুল শত্রু কে বা কাহারা এ বিষয়ে মাঠ পর্যায়ে রাজনৈতিক দলগুলোর কোন রাজনৈতিক চর্চা না থাকার কারনে সুবিধাবাদ কতিপয় ব্যক্তির রাষ্ট্র সেবার নামে দু’দলে বিভক্ত হয়ে দেশের রাজনীতিতে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করছে। যা জাতীর জন্য কল্যাণকর নয়।

বিজয় অর্জনের পরেও ১৯৭১ সালের ডিসেম্বরে মনি প্রামানিককে যেমন মুক্তিযুদ্ধের রণহুঙ্কার ‘জয়বাংলা’ বলানো যায়নি তেমনি স্বাধীনত্বা পরবর্তী দীর্ঘ ৪৭ বছর রাজনৈতিক চর্চার মাঝ দিয়ে দেশের জনগণকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় শানিত করা হয়নি। কারন জাতী মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় শানিত হলে উভয়কেই বর্জন করবে। বর্তমান প্রক্ষাপটে উভয় পক্ষে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাহীন মনি প্রামানিকদের মত জনগোষ্টির সংখ্যা বেড়েছে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনার দাবীদারদের অনেকেই তাদের সাথে গা মিলিয়েছে মিলাচ্ছে। মুক্তিযুদ্ধের মুল চেতনা পথভ্রষ্ট হয়ে ভিন্ন পথে লুকোচুরি খেলছে।

আজ নিজের এবং প্রজন্মের মুক্তির পথের পথ প্রদর্শক হিসেবে- নতুন প্রজন্মকে এ গল্প নিয়ে ভাবতে হবে- তোমাদের যাত্রা শুভ হোক।

♥। মুক্তিযোদ্ধা আবুল বাশার।♥