আবুল বাশার: এখন যেমন ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিতব্য একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন কিভাবে হবে? ফলাফল কোন পক্ষে যাবে, এনিয়ে জাতী অনেকটাই উদ্বিগ্ন। তেমনি মুখিয়ে আছে দেশবাসী।

১৯৭১ সালের ৭ মার্চ ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনত্বার সংগ্রাম, যার যা কিছু আছে তাই নিয়ে শত্রুর মোকাবেলা কর।বঙ্গবন্ধুর বক্তৃতায় জাতীর উদ্দেশে দেয়া এ ঘোষণা জাতীকে এবং আমদের যুব ও ছাত্র সমাজকে উজ্জীবিত করেছিল।

বঙ্গবন্ধুর সেই আহ্বানের মধ্যে মুক্তি ও স্বাধীনত্বা দু’টি শব্দ বিদ্যমান ছিল। মুক্তি বলতে তিনি পাকিস্থানের বিজাতীয় শাসন -শোষণ ও নানা বৈষম্য থেকে বাংগালি জাতীর মুক্তির জন্য পূর্ব পাকিস্তানকে স্বাধীন করার কথা বলেছিলেন। অর্থাৎ ৭০ সালে অনুষ্ঠিত পাকিস্তানের সাধারন নির্বাচনে গণতান্ত্রীক ভাবে জনগণের ভোটে আওয়ামীলীগ একক সংখ্যা গরিষ্ঠতা অর্জন করলেও পাকিস্তানি শাসক গোষ্টি যখন বাংগালির নেতা বঙ্গবন্ধুর কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরে টালবাহানা শুরু করলো তখন বঙ্গবন্ধু বাংগালির গণতান্ত্রিক অধিকার আদায় ও রক্ষাসহ অর্থনৈতিক,সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক মুক্তির জন্য ৭ মার্চ এ ঘোষণা দিয়েছিলেন ।

সে সময় জাতিগতভাবে সকল দ্বিধাদ্বন্দ্ব এড়িয়ে পাকিস্থানের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খানের পরবর্তী পদক্ষেপের দিকে আমরা ছাত্ররা নিবির পর্যবেক্ষণে ছিলাম। লক্ষ্য করেছিলাম মার্চ মাসে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে আওয়ামীলীগের প্রতিনিধি দলের সাথে প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খানের জাতীয় সংসদ অধিবেশন ডাকা হবে কি হবেনা, হলে কবে কোথায় আধিবেশন ডাকা হবে? নানা বিষয়ে প্রায় কোন না কোন দিন আলোচনা চলছিলো। হঠাৎ করে ২৩ মার্চ কোনরূপ সিন্ধান্ত ছারাই প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খান প্লেনে উড়াল দিয়ে পশ্চিম পাকিস্তানে চলে গেলেন। ঐদিন রাতেই পাকিস্তান দিবস উপলক্ষে রেডিও টেলিভিশনে জাতীর উদ্দেশে প্রচারিত এক ভাষণে তিনি পাকিস্থানে সামরিক শাসন জারি করার ঘোষনা দিলেন।