সৌদি আরবে নির্যাতিত নারীদের কান্না আর কত দিন?

ওসমান গনি: জীবনের দুঃখ কষ্টের গ্লানি দূর করতে আমাদের দেশের নারীরাও এখন পুরুষের ন্যায় মাঠে নেমে পড়ছে কাজের সন্ধানে। তাদের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য একটাই কর্মের মাধ্যমে সুখের সংসার গড়ে তোলা। কিন্তু দেশে কঠোর পরিশ্রম করেও যখন সংসারের দুঃখ ও কষ্ট দূর করা যাচ্ছে না তখন মহিলারা বাধ্য পুরুষদের ন্যায় বিদেশে পাড়ি জমাচ্ছে। কিন্তু সেখানেও তাদের ভাগ্য সুপ্রসন্ন হয় হচ্ছে না। তার কারন বর্তমানে বাংলাদেশ সহ সারাবিশ্বে পুরুষ শাসিত সমাজে তাদের কোন নিরাপত্তা নাই।

আমাদের দেশের বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে নিয়মিত খবর প্রকাশ হচ্ছে সৌদি আরবে আমাদের দেশের মহিলাদের ওপর শারীরিক ও যৌন নির্যাতন হচ্ছে।বাংলার অনেক মহিলারা সৌদিআরবের জানোয়ারদের যৌন নি্র্যাতন থেকে নিজেকে রক্ষা করতে না পেরে আত্মহনন করছে আবার অনেকে বিভিন্ন জায়গায় পালিয়ে গিয়ে নিজেদের কে রক্ষা করছে।অনেক মহিলা আবার কোনরকমে জীবনটা বাচিয়ে নিজের দেশে চলে আসছে।এগুলোর খবর আমাদের দেশের সবারই কম- বেশি জানা হচ্ছে। কিন্তু তেমন কোন ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না। সৌদিআরব থেকে ফেরত নারীদের মুখ থেকে নির্যাতনের লোমহর্ষক কাহিনী শুনলে যেকোন মানুষের কান্না চলে আসবে। সউদীতে নারী শ্রমিক নির্যাতনের কেন সুরাহা নেই?’ সৌদিআরবের লোকদের যৌন প্রস্তাবে রাজি না হলে মহিলাদের কে খেতে দেয়া হয় না, চলে অমানুষিক নির্যাতন। ‘সৌদিআরব থেকে ফেরার পর এসব মহিলাদের পরিবারেও ঠাঁই নেই’। ‘সৌদি আরবে নারী শ্রমিকের পরিবেশের পরিবর্তন হচ্ছে’। ‘সৌদীতে গ্রহকর্মী হিসেবে গিয়ে দেশে ফিরলেন পঙ্গু হয়ে’। ‘প্রবাসে নারী কর্মী নির্যাতনের ভিন্ন ব্যাখ্যা দিলেন আমাদের মন্ত্রী’। ‘সৌদীতে নারী কর্মী খুন আমাদের দেশের এজেন্সি বলছে, ‘আল্লাহই ভালো জানে’। ‘মালয়েশিয়ায় ১০ বাংলাদেশি নারীকে পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করার অভিযোগ’। ‘আটজনের কাছে বিক্রি, ধর্ষণ করতো তিনজন’। ‘নারী কর্মীদের নির্যাতনে সৌদী আইনে হস্তক্ষেপের সুযোগ নেই’। ‘বিদেশে নারী শ্রমিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা যাচ্ছে না’। ‘তোকে কিনে এনেছি, যা ইচ্ছা করব’- এই শিরোনামগুলো হলো আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন মিডিয়া বিবিসি’র খবরের শিরোনাম। গত কয়েক দিনে প্রভাবশালী মিডিয়াটি এসব খবর প্রচার করেছে। এই খবরগুলো প্রচারের পরও অবস্থার কোনো পরিবর্তন হয়নি। সৌদী আরবে কাজের জন্য যাওয়া বাংলাদেশের নির্যাতিত নারীদের আর্তচিৎকার কেউ শুনছে না।
বিবিসির ওই শিরোনামগুলোর সত্যতা মেলে গত ২৬ আগস্ট সৌদী থেকে ফিরে আসা ১১১ নারীর কথায়। নির্যাতনের বর্ণনা দিতে গিয়ে একজন নারী শ্রমিক বলেন, ‘বাসায় কাজ দেয়া হয়। প্রতি রাতেই শরীরের ওপর চলতো নির্যাতন। বাসার বাবা এবং ছেলে দু’জনই নির্যাতন করতো। প্রতিবাদ করলেই মারধর। একপর্যায়ে অজ্ঞান হয়ে পড়তাম। কিন্তু তাতে তারা থেমে যেত না। ওই অবস্থাতেই শরীরের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ত। জ্ঞান ফিরলে বুঝতে পারতাম সেটা।’ আরেকজন নারী বলেন, ‘আমাকে প্রতি রাতে ৪ থেকে ৮ জন নির্যাতন করতো। কোনো না করার উপায় ছিল না। ‘না’ বললেই নেমে আসতো নির্যাতন। রিক্রুটিং এজেন্সিকে জানালে তারা বলতো দেখছি। আর ওরা বলতো তোমাকে বিক্রি করে দেয়া হয়েছে, আমরা কিনেছি; যা খুশি তাই করবো।’ সউদী ফেরত দুই নারীর নির্যাতনের এই বর্ণনায় উঠে আসে বিদেশে নারী শ্রমিক পাঠানোর পর তাদের চালচিত্র।
গত ২৬ আগস্ট সউদী আরব থেকে দেশে ফেরা দুই নারী এভাবে নির্যাতনের বর্ণনা দেন। সেদিন তাদের সঙ্গে আরও ১১১ নারী দেশে ফেরেন। তাদের সাক্ষাৎকার নিয়ে একটি প্রতিবেদন তৈরি করেছে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়। পরে সেই প্রতিবেদন সংসদীয় কমিটিতে উপস্থাপন করা হয়। ওই প্রতিবেদন অনুযায়ী, দেশে ফেরা ১১১ নারীর মধ্যে ৩৮ জন যৌন নির্যাতনের কারণে দেশে ফিরতে বাধ্য হন। এ ছাড়া ৪৮ জন নিয়মিত বেতন-ভাতা না দেয়ায়, পর্যাপ্ত খাবার খেতে না দেয়ায় ২৩ জন, ৪ জন ছুটি না দেয়ায়, মালিক ছাড়া অন্য বাড়িতে কাজ করানোর জন্য ৭ জন, ১০ জন অসুস্থতার কারণে, পারিবারিক কারণে ১ জন, ভিসার মেয়াদ না থাকায় ৮ জন, দুই বছরের চুক্তি শেষ হওয়ায় ১৬ জন এবং অন্যান্য কারণে ২ জন ফিরে আসেন। দেশে ফেরত আসা নারী শ্রমিকরা জানান, সৌদী আরবে হাজার হাজার নারী শ্রমিক জুলুম-নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। তাদের ভয়ভীতি দেখিয়ে সে দেশে রাখা হচ্ছে।
যৌন নির্যাতনের শিকার এসব নারীর কথায় ফুটে উঠেছে নির্মম প্রহারের বর্ণনা। সুস্থ মানুষ হিসেবে সৌদী যাওয়ার পর মাত্র কয়েক মাসের ব্যবধানে অসুস্থ হয়ে ফিরতে হয়েছে। ‘কাজ করতে গিয়ে কেন আমাকে নির্মম নির্যাতনের শিকার হতে হলো’- প্রশ্ন করেন ওই দুই নারী।
বাসায় কাজ করার সময় বাবা-ছেলের হাতে নিয়মিত নির্যাতিত নারী বলেন, ‘ওই মালিক বলেন, তোকে কিনে এনেছি। তোর সঙ্গে যা ইচ্ছা তা-ই করব। এভাবে প্রতি রাতে আমার ওপর যৌন নির্যাতন করা হতো। কিন্তু একদিন আমি পালিয়ে সৌদী পুলিশের কাছে ধরা দেই। আমার কাছে কোনো কাগজপত্র না থাকায় পুলিশ আমাকে জেলে পাঠায়।’ অপরজন বলেন, ‘রিক্রুটিং এজেন্সি আমাকে ৪০ হাজার টাকার বিনিময়ে সৌদী আরবে পাঠায়। প্রথম এক বছর দেড় মাস একটি বাসায় কাজ করি। তারা নিজেদের বাসা ছাড়া আত্মীয়দের বাসায় নিয়েও কাজ করাতো। অথচ তিন বেলা ঠিকমতো খেতেই দিত না। এমনকি এত কাজ করার পরও বেতন পেতাম না। রিক্রুটিং এজেন্সিকে জানানোর পর তারা হোটেলে কাজ দেয়। সে হোটেল যেন দোজখখানা। প্রতি রাতে ৪ থেকে ৮ জন আমার উপর জুলুম-নির্যাতন করে। নতুন মালিক বলল, ‘বাংলাদেশি প্রায় চার লাখ টাকায় তার কাছে আমাকে বিক্রি করেছে।’
অবশ্য প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিবের মতে, ‘নানা নির্যাতনের শিকার হয়ে সৌদী আরব থেকে নারী শ্রমিকদের ফিরে আসা সম্পর্কে সরকার অবগত। এ বিষয়ে প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রীর সর্বশেষ সফরেও দেশটির কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলাপ হয়েছে।
সৌদী আবরে নারী শ্রমিকদের ওপর পাশবিক নির্যাতনের কারণে ইন্দোনেশিয়া ও শ্রীলঙ্কা, ভারত ও নেপাল সে দেশে নারী শ্রমিক পাঠানো কমিয়ে দিয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশের নারী শ্রমিকদের সৌদী আরবে যাওয়া বেড়ে গেছে। বৈদেশিক কর্ম সংস্থান ব্যুরো সূত্রে জানা যায়, মূলত ১৯৯১ সাল থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে বিদেশে নারী শ্রমিক পাঠানো শুরু হয়। ওই বছর দুই হাজার ১৮৩ জন নারী শ্রমিক বিদেশ যায়। আর চলতি বছর এই ১০ মাসে গেছে ৭৮ হাজার ৪৫ জন। তবে ২০১৫ সাল থেকে প্রতি বছর এক লাখেরও বেশি নারী শ্রমিক বিদেশ যাচ্ছেন। তবে বেশির ভাগই যাচ্ছে সৌদী আরব। অথচ সৌদী আরবে নারী শ্রমিক নির্যাতন এখন ওপেন সিক্রেট। সৌদী আরবে ধর্ষিত ও নির্যাতিত হয়ে গত কয়েক দিনে শত শত নারী শ্রমিক দেশে ফিরে এসেছেন। তারা নিজেদের দুর্দশার চিত্র মিডিয়ায় তুলে ধরেছেন। প্রশ্ন হচ্ছে- যে দেশে নারী শ্রমিকের মর্যাদা নেই, সে দেশে কেন নারী শ্রমিকদের পাঠানো হচ্ছে?
বাংলাদেশ নারী শ্রমিকদের নির্যাতনের ব্যাপারে সৌদী আরবের মতো দেশকে চাপ সৃষ্টি করতে পারছে না। আমাদের শ্রম বাজারের একটা বড় জায়গা হচ্ছে সৌদী আরবে। শ্রীলঙ্কা, ফিলিপিন্স যখন বলল যে আমরা তোমাদের (সৌদী আরব) নারী শ্রমিক দেবো না, গৃহ শ্রমিক দেবো না, তখন সৌদী আরব শর্ত দিলো যে বাংলাদেশ থেকে যদি একজন নারী শ্রমিক পাঠানো হয় তাহলে দু’জন পুরুষ শ্রমিক নেবো। স্বভাবতই তখন আমাদের দেশের শ্রমিকরা চিন্তা করেছে, ঠিক আছে আমার যদি পুরুষ শ্রমিক যায়, আর তারা যা বলতেছে যে ফোন ব্যবহার করতে দেবে, ঠিকমতো বেতন দেবে, কোনো রকম অত্যাচার হবে না তখন সরকার রাজি হলো, আমরাও সিভিল সোসাইটি রাজি হলাম।’
সৌদীতে কাজ করতে গিয়ে যৌন নির্যাতনের শিকার প্রাণ হারানো আবিরন বেগমের লাশ গ্রহণের সময় ছোট বোন রেশমা বেগম ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেছেন, ‘আমরা গরিব এ জন্য আমাদের মান-ইজ্জত-সম্ভ্রমের মূল্য নেই। আমার বোন সৌদী আরবে কাজের জন্য গিয়ে সম্ভ্রম হারিয়ে প্রাণ দিয়েছে। অথচ সরকার নীরব! ধনীদের কোনো মেয়ের এমন অবস্থা হলে সরকার কি নীরব থাকতো?’ খুলনার অজপাড়াগাঁয়ের মেয়ে রেশমার কথার সূত্র ধরে প্রশ্ন আসে বিদেশে আর কত দিন বাংলাদেশের নারী শ্রমিকদের সম্ভ্রম খোয়াতে হবে? বিষয়টির ব্যাপারে অতিদ্রুত বিহীত ব্যবস্থা গ্রহন করা প্রয়োজন বলে আমাদের দেশের বিজ্ঞমহল মনে করেন।

ওসমান গনি

লেখক- সাংবাদিক ও কলামিস্ট