বোরহানউদ্দিনে পুলিশ জনতার সংঘর্ষে নিহতদের পরিবারকে আর্থিক অনুদান

এএসটি সাকিল: বোরহানউদ্দিনের ঘটনায় নিহত ৪ পরিবারকে নগদ ২০ লক্ষ টাকার আর্থিক অনুদান দিয়েছেন সাবেক বানিজ্যমন্ত্রী ভোলা সদর আসনের এমপি তোফায়েল আহমেদ। তার পক্ষ থেকে ভোলা-২ আসনের এমপি আলী আজম মুকুল এই অর্থ নিহতের পরিবারের কাছে তুলে দেন।

৫ লক্ষ টাকা করে দেয়া পরিবার গুলো হলেন, ১। মিজান পিতা-হারুন, হাজিরহাট মনপুরা উপজেলা। ২। মাহফুজ পিতা- মহিউদ্দিন পাটোয়ারী, পৌর ৩ নং ওয়ার্ড বোরহানউদ্দিন,৩। তানবীর পিতা-হারুন দেউলা, বোরহানউদ্দিন, ৪। শাহিন পিতা- দেলোয়ার,কাচিয়া ২নং ওয়ার্ড বোরহানউদ্দিন।

আজ শনিবার ২৬ অক্টবর ১২ টায় বোরহানউদ্দিনের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন ভোলা-২ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আলী আজম মুকুল।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, সর্বদলীয় মুসলিম ঐক্য পরিষদের যৌক্তিক দাবীগুলো আমরা ইতিমধ্যেই মেনে নিয়েছি। তাদের ৬ দফার মধ্যে অন্যতম দাবী ছিলো নিহতের পরিবারকে আর্থিক সহয়তা করা, আমরা নিহত প্রত্যেক পরিবারকে জননেতা তোফায়েল আহমেদের পক্ষ থেকে ৫ লক্ষ টাকা করে মোট ২০ লক্ষ টাকা প্রদান করেছি এবং আহতদেরও চিকিৎসার সহয়তা চলছে। এ ঘটনায় ২ টি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে তাদের ১ টি প্রতিবেদন ইতিমধ্যে জেলা প্রশাসকের কাছে জমা দেয়া হয়েছে। উর্ধ্বতন কতৃপক্ষ প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশ দিবেন।

তিনি আরো বলেন,বিডিও ফুটেজ দেখে মূল অপরাদীদের অনেককে চিহ্নিত করা হয়েছে বাকীদেরও চিহ্নিত করার কার্যক্রম দ্রুত গতিতে চলছে।
ক্ষতিগ্রস্ত হিন্দু পরিবার সহয়তা ও ক্ষতিগ্রস্ত মন্দিরের সংস্কারের ব্যাবস্থা করা হবে। তিনি এলাকা ঘুরে ঘুরে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের সাথে দেখা করে তাদের সহানুভূতির সাথে সাথে তাদের পূর্নবাসনসহ সার্বিক ব্যাবস্থা নেয়ার কথাও সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন। ২০ তারিখের ঘটনাটি সরকার ও দেশের বিরুদ্ধে একটি গভীর ষড়যন্ত্র বলে জানান তিনি।

এসময় বোরহানউদ্দিন উপজেলার চেয়ারম্যান আবুল কালাম আযাদ,পৌর চেয়ারম্যান আলহাজ্ব রফিকুল ইসলাম সহ উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রাসের আহম্মেদ ও উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি জসিম উদ্দিন হায়দার উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে ভোলার বোরহানউদ্দিনে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি আজ সকাল থেকে স্বাভাবিক রয়েছে এবং গুরুত্বপূর্ণ স্থানে পুলিশ, র্যাব বিজেবিসহ কোষ্টগার্ডের নিয়ন্ত্রনে রয়েছে।